default-image

মোটর কোম্পানি ফোর্ড একটি স্বচ্ছ মাস্ক তৈরি করছে। এন-৯৫ মানের এই মাস্ক ব্যবহার করলে ব্যবহারকারীর মুখের হাসি দেখা যাবে। এ ছাড়া এতে মূক ও বধিরদের অন্যের ভাব বুঝতেও সহায়ক হবে।

ফোর্ড আশা করছে, চলতি বছরই এই মাস্ক বাজারে পাওয়া যাবে। ইতিমধ্যে তা পেটেন্টের অনুমতি পেয়েছে।

করোনা প্রতিরোধে এখন সারা বিশ্বে মানুষ মাস্ক ব্যবহার করছে। এতে শ্রবণ প্রতিবন্ধী মানুষ লিপ রিডিংয়ের সুবিধা নিতে পারছে না। মূক এবং বধিরদের যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম ‘ইশারা ভাষা’ ও ‘লিপ রিডিং’। লিপ রিডিংয়ে মানুষ কী বলছে, তা তারা ঠোঁটের ওঠানামা দেখে বুঝে নেয়।

বিজ্ঞাপন
বর্তমানে বিশ্বে যেসব মাস্ক ব্যবহৃত হচ্ছে তা মূক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধী মানুষদের জন্য কার্যকর ও উপযোগী নয়। এমন পরিস্থিতিতে বিকল্প উদ্যোগ নিয়েছে ফোর্ড মোটর সংস্থা

যুক্তরাজ্যের শিশু বিষয়ক চিকিৎসক ফিজ ইজাগারেন ছোটবেলা থেকেই শ্রবণ প্রতিবন্ধী। তিনি বলেন, ‘মাস্ক পরা থাকলে আমি অন্যের কথা বুঝতে পারি না। মাস্ক পরা ব্যক্তির মুখের ভাষা পড়তে পারি না। তবে দু-একটি শব্দ এলোমেলোভাবে শুনতে পাই। যার কোনো অর্থ হয় না।’

বর্তমানে বিশ্বে যেসব মাস্ক ব্যবহৃত হচ্ছে তা মূক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধী মানুষদের জন্য কার্যকর ও উপযোগী নয়। এমন পরিস্থিতিতে বিকল্প উদ্যোগ নিয়েছে ফোর্ড মোটর সংস্থা।

ফোর্ডের ভাইস প্রেসিডেন্ট জিম বাম্বিক এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘করোনা মহামারির মধ্যে যেসব বিষয় হারিয়ে যাচ্ছে, তার একটি হলো হাসির শক্তি। এই হাসি আর মুখের নাড়াচাড়া প্রত্যক্ষ করেই শ্রবণ প্রতিবন্ধী মানুষেরা ভাব বুঝতে পারে। ফোর্ড মোটর তাদের কথা মাথায় রেখেই স্বচ্ছ মাস্কের ডিজাইন তৈরি করছে। সেই নকশাতেই মাস্ক তৈরি হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন