default-image

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্র শাখা বঙ্গবন্ধু পরিষদের উদ্যোগে আয়োজিত আলোচনা সভায় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে নির্মিত সংগীতচিত্র ‘ফিরে এসো বঙ্গবন্ধু’–এর উদ্বোধন করা হয়েছে।

নিউইয়র্কে গত ২৬ মার্চ ভার্চ্যুয়াল আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধু পরিষদে সভাপতি নুরুন নবী। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন সাইফুর রহমান ওসমানী। সভায় যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য থেকে বঙ্গবন্ধু পরিষদের নেতারা অংশ নেন।

সভার শুরুতেই মহান মুক্তিযুদ্ধের সব শহীদ, ১৯৭৫ সালে নিহত বঙ্গবন্ধু, তাঁর পরিবারের সদস্য ও জাতীয় চার নেতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। যুক্তরাষ্ট্র শাখা বঙ্গবন্ধু পরিষদের টাইটেল স্পনসরশিপে ও ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক ‘এইচডি বাংলা’ টেলিভিশনের উদ্যোগে ও সার্বিক তত্ত্বাবধানে বাংলাদেশ, ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পীদের নিয়ে নির্মিত সংগীত-চিত্র ‘ফিরে এসো বঙ্গবন্ধু’ নিয়ে সভায় বক্তারা আলোকপাত করেন। সভায় সংগীত–চিত্রের একটি প্রমো ভিডিও প্রদর্শন করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সংগীত-চিত্রের উদ্বোধন হচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত। এই সংগীত চিত্রের মাধ্যমে আপনারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে যুক্তরাষ্ট্র তথা সারা বিশ্বের নতুন প্রজন্মের কাছে উপস্থাপন করতে যাচ্ছেন।’

বিজ্ঞাপন

সভাপতির বক্তব্যে নুরুন নবী বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধু পরিষদ ও সংগঠনের ক্যালিফোর্নিয়া, জর্জিয়া, ম্যাসাচুসেটস, পেনসিলভানিয়া, বৃহত্তর ওয়াশিংটন ডিসি, মিশিগান, দক্ষিণ নিউজার্সি এবং ফ্লোরিডা শাখা ‘ফিরে এসো বঙ্গবন্ধু’ সংগীত চিত্র প্রকাশের একমাত্র টাইটল স্পনসর হতে পেরে আমরা আনন্দিত ও গর্বিত। এই সংগীত চিত্রের মাধ্যমে আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে যুক্তরাষ্ট্র তথা সারা বিশ্বে নতুন প্রজন্মের মাঝে উপস্থাপন করতে পারব।’

‘ফিরে এসো বঙ্গবন্ধু‘ গানটি লিখেছেন কলকাতার গীতিকার শুভদ্বীপ চক্রবর্তী এবং গানটির সুরকার কলকাতার জনপ্রিয় সংগীত পরিচালক চিরন্তন ব্যানার্জি। দুজনেই দীর্ঘদিন ধরে কলকাতায় বঙ্গবন্ধুর ওপর গবেষণা, গান রচনা, সুর ও বেশ কিছু সংগীতচিত্র নির্মাণ করে কলকাতা এবং বাংলাদেশে প্রশংসিত হয়েছেন। ‘ফিরে এসো বঙ্গবন্ধু’ সংগীত চিত্রটি চিত্রায়িত হচ্ছে বাংলাদেশ, কলকাতা ও যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেস ও নিউইয়র্ক শহরে।

এই সংগীত চিত্রে অংশগ্রহণকারী প্রবাসী তারকাদের মধ্যে রয়েছেন—নিউইয়র্ক থেকে জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী তনিমা হাদী ও লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে মারভীন অধিকারী রূপম। কলকাতা থেকে অংশগ্রহণকারী কণ্ঠশিল্পীদের মধ্যে রয়েছেন ২০১৭ শ্রেষ্ঠ মহিলা নেপথ্য কণ্ঠশিল্পী বিভাগে জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত কণ্ঠশিল্পী ইমন চক্রবর্তী, রাঘব চ্যাটার্জি এবং ‘ফিরে এসো বঙ্গবন্ধু’র সুরকার চিরন্তন ব্যানার্জি ও গীতিকার শুভদ্বীপ চক্রবর্তী।

বাংলাদেশ থেকে নির্বাচিত কণ্ঠ তারকাদের মধ্যে আছেন পাঁচবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার এবং একুশে পদকপ্রাপ্ত জনপ্রিয় শিল্পী সৈয়দ আব্দুল হাদী, ২০০৬ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত সামিনা চৌধুরী, ১৯৭২ সালে বাংলা পপ-রক গানের পথিকৃৎ স্পন্দন শিল্পী গোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতা সদস্যদের দ্বিতীয় প্রজন্মের সন্তানদের নিয়ে গঠিত স্পন্দন ও কণ্ঠশিল্পী এ পি শুভ। স্পন্দনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য কাজী হাবলুর নেতৃত্বে এ নতুন ব্যান্ডের সদস্যদের মধ্যে রয়েছেন—প্রয়াত ফিরোজ সাঁইয়ের তিন ছেলে রেজওয়ান ফিরোজ, রাইহান ফিরোজ, রেদওয়ান ফিরোজ, কাজী হাবলুর ছেলে কাজী আনান।

কলকাতার আপটেম্পু স্টুডিওতে ‘ফিরে এসে বঙ্গবন্ধু’ সংগীত চিত্রের সুরকার চিরন্তন ব্যানার্জি ও শুভদ্বীপ চক্রবর্তীর যৌথ তত্ত্বাবধানে পোস্ট প্রোডাকশনের কাজ শেষ করে আগামী ১০ এপ্রিল মুক্তির মাধ্যমে বিশ্ববাসীর কাছে বঙ্গবন্ধুকে উপস্থাপন করা হবে।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধু পরিষদের উপদেষ্টা এম এ সালাম, সহসভাপতি ফাহিম রেজা নূর, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রাফায়েত চৌধুরী, বঙ্গবন্ধু পরিষদ পেনসিলভানিয়া শাখার সভাপতি আবু তাহের বীরবিক্রম, বৃহত্তর ওয়াশিংটন শাখার সভাপতি দস্তগীর জাহাঙ্গীর, মিশিগান শাখার আহ্বায়ক আহাদ আহমদ, ক্যালিফোর্নিয়া শাখার সাধারণ সম্পাদক রানা মাহমুদ।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু পরিষদ বোস্টন শাখার আহ্বায়ক সফেদা বসু, আটলান্টা শাখার সাধারণ সম্পাদক মাহবুব রহমান ভূঁইয়া,বৃহত্তর ওয়াশিংটন শাখার সাধারণ সম্পাদক নাসরিনা আহমেদ প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধু পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক স্বীকৃতি বড়ুয়া।

বিজ্ঞাপন
যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন