default-image

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের শেষ মুহূর্তের প্রচার চলছে। উভয় পক্ষই জোর প্রচারে ব্যস্ত। বিশেষত ‘সুইং স্টেট’ খ্যাত গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গরাজ্যগুলোকে নিজেদের পক্ষে টানতে সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তাঁর ডেমোক্রেটিক প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেন। কিন্তু শেষ মুহূর্তের এই প্রচেষ্টাতে জাতীয় পর্যায়ের মতো অঙ্গরাজ্য পর্যায়েও ঠিক পেরে উঠছেন না ট্রাম্প।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচন সামনে রেখে করা সাম্প্রতিক প্রায় সব জনমত জরিপে জাতীয় পর্যায়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প থেকে এগিয়ে রয়েছেন জো বাইডেন। সাম্প্রতিক বিভিন্ন জনমত জরিপে বাইডেন ট্রাম্প থেকে জাতীয়ভাবে প্রায় ১১ শতাংশ পয়েন্ট ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন। কিন্তু এই এগিয়ে থাকা নিয়ে নিশ্চিন্ত হওয়ার সুযোগ নেই। কারণ, ২০১৬ সালে হিলারি ক্লিনটনও এগিয়ে ছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ট্রাম্পের কাছে তিনি ইলেকটোরাল ভোটে পরাজিত হন। তাই এবার ভীষণ সাবধানী বাইডেন শিবির।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়, এবারের নির্বাচনে আটটি অঙ্গরাজ্যের ফলকে খুব গুরুত্বপূর্ণ ধরা হচ্ছে। বলা হচ্ছে, এই আট অঙ্গরাজ্যের ফলের ওপরই নির্ভর করছে আসন্ন প্রেসিডেনশিয়াল নির্বাচনের ফলাফল। এই প্রেক্ষাপটে মার্কিন সব গণমাধ্যম ও জরিপকারী প্রতিষ্ঠান এই অঙ্গরাজ্যগুলোর দিকে বিশেষভাবে মনোযোগ দিয়েছে। বাড়তি গুরুত্ব দিয়ে এই অঙ্গরাজ্যগুলোয় জনমত জরিপ চালানো হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
২০টি ইলেকটোরাল ভোট থাকা পেনসিলভানিয়ায় বাইডেনের অবস্থান বেশ ভালো বলতে হবে। দ্য হিল/হ্যারিস এক্স পরিচালিত সর্বশেষ জনমত জরিপে দেখা গেছে, অঙ্গরাজ্যটির ভোটারদের ৫০ দশমিক ৩ শতাংশই বাইডেনের পক্ষে। আর ট্রাম্পের পক্ষে রয়েছেন ৪৪ দশমিক ২ শতাংশ ভোটার

গার্ডিয়ান এ ধরনের বিভিন্ন জরিপকে বিবেচনায় নিয়ে সংশ্লিষ্ট জরিপগুলোর ফলাফল বিশ্লেষণ করেছে। এই বিশ্লেষণের ওপর ভিত্তি করে তারা সংশ্লিষ্ট আট অঙ্গরাজ্যে কে কতটা এগিয়ে তার একটি ধারণা দিয়েছে। গার্ডিয়ানের বিবেচনাধীন আট সুইং স্টেটের মধ্যে গত নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট থেকে রিপাবলিকান অঙ্গরাজ্যে পরিণত হওয়া ছয়টি অঙ্গরাজ্য রয়েছে। এগুলো হলো ফ্লোরিডা, পেনসিলভানিয়া, ওহাইও, মিশিগান, উইসকনসিন ও আইওয়া। এই অঙ্গরাজ্যগুলোয় সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার দুই মেয়াদেই ডেমোক্র্যাটরা জয় পেয়েছেন। সঙ্গে এবারের প্রবণতাকে বিবেচনায় নিয়ে অ্যারিজোনা ও নর্থ ক্যারোলাইনাকেও এই সুইং স্টেটের কাতারে ফেলা হয়েছে। এ দুই অঙ্গরাজ্যে গত কয়েকটি নির্বাচনে রিপাবলিকানরা জয় পেলেও এবার পরিস্থিতি কিছুটা ভিন্ন মনে হচ্ছে।

ফ্লোরিডায় রয়টার্স/ইপসস পরিচালিত সর্বশেষ জরিপে দেখা যায়, অঙ্গরাজ্যটিতে বাইডেনের প্রতি সমর্থন রয়েছে ৪৯ শতাংশ ভোটারের। আর ট্রাম্পের প্রতি সমর্থন রয়েছে ৪৭ শতাংশ ভোটারের। হিসাব থেকেই বোঝা যাচ্ছে অঙ্গরাজ্যটিতে বেশ হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। ২ শতাংশ পয়েন্ট এগিয়ে থাকলেও এই এগিয়ে থাকা যে, কোনো কিছুর নিশ্চয়তা দেয় না, তা উভয় শিবির জানে। ফলে ২৯টি ইলেকটোরাল ভোট নিজের দিকে টানতে উভয় পক্ষই সেখানে জোর প্রচার চালাচ্ছে।

এ তুলনায় ২০টি ইলেকটোরাল ভোট থাকা পেনসিলভানিয়ায় বাইডেনের অবস্থান বেশ ভালো বলতে হবে। দ্য হিল/হ্যারিস এক্স পরিচালিত সর্বশেষ জনমত জরিপে দেখা গেছে, অঙ্গরাজ্যটির ভোটারদের ৫০ দশমিক ৩ শতাংশই বাইডেনের পক্ষে। আর ট্রাম্পের পক্ষে রয়েছেন ৪৪ দশমিক ২ শতাংশ ভোটার। অর্থাৎ, অঙ্গরাজ্যটিতে বাইডেন ট্রাম্প থেকে ৬ দশমিক ১ শতাংশ পয়েন্ট ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন।

জরিপকারী প্রতিষ্ঠান মর্নিং কনসাল্ট পরিচালিত সর্বশেষ জরিপের তথ্যমতে, ১৮টি ইলেকটোরাল ভোট থাকা ওহাইও অঙ্গরাজ্যেও এবার উভয় পক্ষের মধ্যে ব্যাপক প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। জরিপের তথ্যমতে, অঙ্গরাজ্যটিতে ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রতি ভোটার সমর্থনের হার ৪৯ শতাংশ, আর বাইডেনের প্রতি ৪৭ শতাংশ। আবার কুইনিপিয়াক বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালিত জরিপে দেখা গেছে, বাইডেনের প্রতি ভোটার সমর্থন ৪৮ শতাংশ এবং ট্রাম্পের প্রতি সমর্থন ৪৭ শতাংশ। অঙ্গরাজ্যটিতে পরিচালিত সাম্প্রতিক বিভিন্ন জনমত জরিপের ফল গড় করে গার্ডিয়ান জানাচ্ছে, অঙ্গরাজ্যটিতে ডোনাল্ড ট্রাম্প বাইডেন থেকে ১ দশমিক ৭ শতাংশ ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন।

মিশিগানেও ডেমোক্র্যাটদের অবস্থান ভালো। অঙ্গরাজ্যটিতে রয়েছে ১৬টি ইলেকটোরাল ভোট। দ্য হিল/ হ্যারিস এক্স পরিচালিত সাম্প্রতিক জরিপের তথ্যমতে, অঙ্গরাজ্যটিতে বাইডেনের প্রতি ভোটার সমর্থন ৫৪ শতাংশ। আর ট্রাম্পকে সমর্থন করছেন ৪৩ শতাংশ ভোটার। আর রয়টার্স/ ইপসস পরিচালিত সাম্প্রতিক জরিপের তথ্যমতে, অঙ্গরাজ্যটির ভোটারদের ৫১ শতাংশই বাইডেনকে সমর্থন করছেন। আর ট্রাম্পকে সমর্থন করছেন ৪৩ শতাংশ ভোটার। এই দুই জরিপসহ সাম্প্রতিক আরও কয়েকটি জরিপকে বিবেচনায় নিয়ে দ্য গার্ডিয়ান জানাচ্ছে, মিশিগানে বাইডেন ট্রাম্প থেকে ৭ দশমিক ৭ শতাংশ পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছেন।

উইসকনসিনে রয়েছে ১০টি ইলেকোটরাল ভোট। এই অঙ্গরাজ্যে এবার বাইডেন বেশ ভালো অবস্থানে রয়েছেন। ইউগভ/ সিবিএস নিউজ পরিচালিত সাম্প্রতিক জরিপে অঙ্গরাজ্যটিতে বাইডেন ভোটার সমর্থনে এগিয়ে রয়েছেন। জরিপের তথ্যমতে, ভোটারদের ৫০ শতাংশ বাইডেনকে সমর্থন জানিয়েছেন। বিপরীতে ট্রাম্পকে সমর্থন জানিয়েছেন ৪৫ শতাংশ ভোটার। আর রয়টার্স/ইপসস জরিপ জানাচ্ছে, বাইডেনের প্রতি ভোটার সমর্থন ৫১ শতাংশ এবং ট্রাম্পের প্রতি সমর্থন ৪৪ শতাংশ। সম্প্রতি পরিচালিত সবগুলো জরিপকে বিবেচনায় নিয়ে গার্ডিয়ান বলছে, অঙ্গরাজ্যটিতে বাইডেন ট্রাম্প থেকে ৭ দশমিক ১ শতাংশ পয়েন্ট ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
আইওয়া অঙ্গরাজ্যে পরিচালিত জরিপগুলো বলছে, সেখানে এবার দুই পক্ষে জোর লড়াই হবে। সাম্প্রতিক বিভিন্ন জরিপের গড় করে গার্ডিয়ান জানাচ্ছে, অঙ্গরাজ্যটিতে ট্রাম্প বাইডেন থেকে ১ দশমিক ২২ শতাংশ পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছেন

আইওয়া অঙ্গরাজ্যে পরিচালিত জরিপগুলো বলছে, সেখানে এবার দুই পক্ষে জোর লড়াই হবে। ইউগভ/সিবিএস নিউজ পরিচালিত সর্বশেষ পরিচালিত জরিপে, অঙ্গরাজ্যটির ভোটারদের ৪৯ শতাংশ বাইডেনকে সমর্থন জানাচ্ছেন। ট্রাম্পের প্রতি সমর্থনের হারও একই। ৬টি ইলেকটোরাল ভোট তাই শেষ পর্যন্ত কার কাছে যাবে, তা আগে থেকে বলার কোনো উপায় আদতে নেই। সাম্প্রতিক বিভিন্ন জরিপের গড় করে গার্ডিয়ান যদিও জানাচ্ছে, অঙ্গরাজ্যটিতে ট্রাম্প বাইডেন থেকে ১ দশমিক ২২ শতাংশ পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছেন।

নর্থ ক্যারোলাইনায় রয়েছে ১৫টি ইলেকটোরাল ভোট। গত দুটি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অঙ্গরাজ্যটিতে রিপাবলিকানরা জয় পেলেও এবার ভিন্ন কিছু হতে পারে। নিউইয়র্ক টাইমস/ সিনা কলেজ পরিচালিত সাম্প্রতিক জরিপের তথ্যমতে, অঙ্গরাজ্যটিতে বাইডেনের প্রতি ভোটার সমর্থন রয়েছে ৪৬ শতাংশ। আর ট্রাম্পের প্রতি ভোটার সমর্থন রয়েছে ৪২ শতাংশ। একই ধরনের আরেকটি জরিপ চালিয়ে মর্নিং কনসাল্ট জানাচ্ছে, বাইডেন ও ট্রাম্পের প্রতি ভোটার সমর্থনের হার ৫০ ও ৪৬ শতাংশ। আর রয়টার্স/ইপসস জানাচ্ছে, বাইডেনকে সমর্থন দিচ্ছে ৪৮ শতাংশ ভোটার এবং ট্রাম্পকে ৪৭ শতাংশ ভোটার। সাম্প্রতিক বিভিন্ন জরিপের গড় করে গার্ডিয়ান জানাচ্ছে, অঙ্গরাজ্যটিতে বাইডেন জনসমর্থনে ট্রাম্প থেকে ৩ দশমিক ৮ শতাংশ পয়েন্ট ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন।

বাকি থাকল অ্যারিজোনা। অঙ্গরাজ্যটিতে ইলেকটোরাল ভোট রয়েছে ১১টি। রিপাবলিকান অঙ্গরাজ্য হিসেবে পরিচিত এই অঙ্গরাজ্যে এবার বাইডেন বিস্ময়করভাবে এগিয়ে রয়েছেন। রয়টার্স/ইপসস পরিচালিত সর্বশেষ জরিপে দেখা গেছে, বাইডেন ও ট্রাম্পের প্রতি এই অঙ্গরাজ্যের ভোটারদের সমর্থনের হার যথাক্রমে ৫০ ও ৪৬ শতাংশ। আর ইউগভ/সিবিএস নিউজ পরিচালিত জরিপ বলছে, বাইডেন ও ট্রাম্পের প্রতি ভোটার সমর্থনের হার যথাক্রমে ৪৯ ও ৪৫ শতাংশ। আর সাম্প্রতিক জরিপগুলোর গড় করে গার্ডিয়ান জানাচ্ছে, অঙ্গরাজ্যটিতে বাইডেন ট্রাম্প থেকে ৩ দশমিক ৬ শতাংশ পয়েন্ট ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন।

সব মিলিয়ে দেখা যাচ্ছে আট সুইং স্টেটের মধ্যে দুটি আগে থেকেই ট্রাম্পের দিকে কিছুটা ঝুঁকে আছে। বাকি ছয়টি বাইডেনের দিকে ঝুঁকে আছে। মুশকিল হচ্ছে, গত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে হওয়া জনমত জরিপগুলোতেও হিলারি এগিয়ে ছিলেন। অভিযোগ ছিল, সেসব জনমত জরিপে রিপাবলিকানদের চেয়ে ডেমোক্র্যাটদের মতামতের ওপর বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছিল। ফলে নির্বাচনের আগে জনমত জরিপগুলো সঠিক তথ্য দিতে পারেনি। এবার এ কারণে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান জরিপ পরিচালনার ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করছে। কিন্তু তারপরও বিশেষত সুইং স্টেটগুলোর ক্ষেত্রে এসব জনমত জরিপের ফলের হুবহু প্রতিফলন নির্বাচনের ফলাফলে থাকবে, তেমনটি বলা সম্ভব নয়।

মন্তব্য পড়ুন 0