default-image

ক্ষমতা থেকে চলে গেলেও মার্কিন রাজনীতির মঞ্চে এখনো আলোচিত সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ক্ষমতার শেষদিকে নানা বিতর্কিত মন্তব্যের কারণে ফেসবুক, টুইটারসহ নানা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাঁর অ্যাকাউন্ট স্থগিত করা হয়েছিল। ফলে ক্ষমতা ছাড়ার পর থেকে সামাজিকযোগাযোগ মাধ্যমে বেশ নীরব ছিলেন তিনি। তবে তিনি আবার ফিরে আসছেন সামাজিকযোগাযোগ মাধ্যমে। তবে উদারপন্থী কোনো মাধ্যমে নয়। রক্ষণশীলদের যোগাযোগমাধ্যম হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে এর পরিচিতি বেশি।

ক্ষমতার শেষদিকে সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় মাধ্যম ফেসবুক, টুইটারে বক্তব্য, মন্তব্য প্রচার করে মার্কিন রাজনীতিতে অস্থিরতার সৃষ্টি করেছিলেন ট্রাম্প। এ অবস্থায় তাঁর বিতর্কিত বক্তব্য প্রচারে মার্কিন গণমাধ্যম বেশ সতর্ক হয়ে উঠে। রক্ষণশীল সংবাদমাধ্যমগুলোও বেঁকে বসে। ‘ফেক মিডিয়া’ বলে যাদের আক্রমণ করতেন ট্রাম্প, বেশ মূল্য দিয়ে তাদের ক্ষমতাও টের পেয়েছেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

হতাশায় ভুগতে থাকা ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রযুক্তির এসব বড় বড় মাধ্যমের সমালোচনা করতেও পিছপা হননি। আইনের পরিবর্তন করে ক্ষমতার শেষ মুহূর্তে এসে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করার ব্যর্থ চেষ্টা করেছেন। গত ২০ জানুয়ারি ক্ষমতা থেকে বিদায় নেওয়ার পর তিনি এক ধরনের নীরবতাই পালন করছেন। সামাজিক যোগাযোগের সব অ্যাকাউন্ট স্থগিত থাকায় তাঁর কোনো বক্তব্য জানারও উপায় নেই।

ক্ষমতার চার বছরে দিন–রাত এসব যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয় থাকতেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। নিজে একমাত্র ইংরেজি ছাড়া অন্য কোনো ভাষা না জানলেও, ভুল ইংরেজিতে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে বহু পোস্ট দিয়েছেন তিনি। মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে তাঁর এমন কর্মকাণ্ড নিয়ে সমালোচনাও কম হয়নি।

বিজ্ঞাপন
default-image
যুক্তরাষ্ট্রের রক্ষণশীলদের কাছে বেশ জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম গ্যাব। বিশেষ করে শ্বেতাঙ্গ উগ্রবাদীরা তাদের বিশ্বাস প্রচার ও নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ রাখার জন্য এ মাধ্যমটি ব্যাপক হারে ব্যবহার করছে

ক্ষমতা থেকে সরে যাওয়ার পর ‘গ্যাব’ (Gab.com) নামের ডান রক্ষণশীলদের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রথমবারের মতো একটি পোস্ট দিয়েছেন ট্রাম্প। অভিশংসন আদালতের মুখোমুখি হওয়া ট্রাম্পকে সিনেটে উপস্থিত হয়ে জবানবন্দি দেওয়ার জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছিল। অভিশংসন ব্যবস্থাপকদের দলনেতা কংগ্রেসম্যান জ্যামি রাস্কিন সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল হিলে উগ্রপন্থীদের হামলা ও তাঁর আচরণ নিয়ে জবানবন্দি দেওয়ার জন্য চিঠি দেন।

সিনেটে এমন জবানবন্দি দেবেন না বলে ট্রাম্পের পক্ষ থেকে জানিয়ে দ্রুত সিনেটে চিঠি দেওয়া হয়। ৪ ফেব্রুয়ারি সেই চিঠির একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম গ্যাবে ট্রাম্প তাঁর নিজের অ্যাকাউন্টে পোস্ট করেন। ক্ষমতা থেকে যাওয়ার পর এটিই তাঁর প্রথম সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেওয়া পোস্ট।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ক্ষমতা থেকে চলে যাওয়ার পর ডোনাল্ড ট্রাম্প এখন একজন সাধারণ নাগরিক। সংবিধান অনুযায়ী ক্ষমতা থেকে চলে যাওয়ার পর সাবেক প্রেসিডেন্টকে অভিশংসিত করার কোনো নিয়মের কথা সংবিধানে নেই।

যুক্তরাষ্ট্রের রক্ষণশীলদের কাছে বেশ জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম গ্যাব। বিশেষ করে শ্বেতাঙ্গ উগ্রবাদীরা তাদের বিশ্বাস প্রচার ও নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ রাখার জন্য এ মাধ্যমটি ব্যাপক হারে ব্যবহার করছে। তাদের ৩৪ লাখ ব্যবহারকারী রয়েছে বলে জানা যায়। গ্যাবের অ্যাকাউন্টে সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ১৪ লাখ অনুসারী রয়েছেন যা টুইটার, ফেসবুকে বা ইনস্টাগ্রামে তাঁর অনুসারীর একটি ক্ষুদ্র অংশমাত্র।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন