default-image

করোনাভাইরাস নয়, এখন প্রতিনিয়ত ঘটে চলা সহিংস ঘটনার আতঙ্কে রয়েছে নিউইয়র্কবাসী। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির জন্য নাগরিকদের অর্থনৈতিক দুরবস্থাকে দায়ী করেছেন ডেমোক্র্যাট কংগ্রেসওমেন আলেকজান্দ্রিয়া ওকাসিও-কর্তেজ। নিউইয়র্কের লোকজন সন্তানদের পাতে খাবার তুলে দেওয়ার জন্য চুরি করতে বাধ্য হচ্ছেন বলে গত সপ্তাহান্তে এক ভার্চ্যুয়াল টাউন হল সভায় তিনি এমন মন্তব্য করেছেন।

আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির সঙ্গে দেশের চরম বেকারত্বের সম্পর্ক আছে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে ওকাসিও বলেন, সত্য ঘটনা হলো, মানুষ এখন চরমভাবে অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের মুখে। এমন অবস্থা আমরা মহামন্দার সময় ছাড়া আর কখনো দেখিনি। এমনও হতে পারে, লোকজন বাসা ভাড়া দিতে পারছেন না। কখনো লোকজন ঘর ভাড়া না দিয়ে অর্থ হাতে রাখছেন, যাতে সন্তানদের পাতে রুটি দিতে পারেন। অনেক মানুষকে বেছে নিতে হচ্ছে সে ক্ষুধার্ত থাকবে; না দোকান থেকে রুটি চুরি করে সন্তানকে খাওয়াবে।

আমেরিকাজুড়ে সম্প্রতি শুরু হওয়া ‘ডিফান্ড পুলিশ’-এর জোরালো সমর্থক নিউইয়র্ক থেকে নির্বাচিত ৩০ বছর বয়সী কংগ্রেসওমেন ওকাসিও পুলিশ সংস্কার নিয়ে সব সময় উচ্চকণ্ঠ। আমেরিকার ধনী-দরিদ্রের সাম্যের কথা বলে আসছেন তিনি। নিউইয়র্ক নগরীর মেয়র বিল ডি ব্লাজিও পুলিশের বাজেট থেকে এক বিলিয়ন ডলার কর্তনের পরও সমালোচনা করেছেন ওকাসিও। তিনি বলেছেন, পুরো পুলিশ তহবিল কর্তন না করে বাজেটের খেল দেখিয়েছেন নিউইয়র্ক নগরীর মেয়র।

এনওইয়াইপিডি তাদের সর্বশেষ প্রকাশিত তথ্যে জানিয়েছে, গত সাত দিনে নগরীতে ৬৮টি গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। এতে এক ডজন মানুষের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে ৮২ জন। ৫ থেকে ১১ জুলাই পর্যন্ত ৭ দিনের গোলাগুলি আর সহিংসতাই শুধু নয়, এর বাইরে দোকানে চুরি-ডাকাতি হচ্ছে। নগরীর বহু এলাকায় মানুষ বাইরে হাঁটাচলা করতে ভয় পাচ্ছে। নিউইয়র্ক নগরী এখন কোভিড-১৯ নয়, বরং সহিংসতার জন্য আতঙ্কের নগরীতে পরিণত হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন