সব অভিবাসী অন্তর্ভুক্ত হবে আদমশুমারিতে

বিজ্ঞাপন
default-image

যুক্তরাষ্ট্রের কাগজপত্রহীন অভিবাসীরা আদমশুমারিতে অন্তর্ভুক্ত হতে পারবে বলে রায় দিয়েছেন দেশটির ফেডারেল আদালত।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রে নথিপত্রহীন অভিবাসীদের আদমশুমারি থেকে বাদ দিতে সেনসাস ব্যুরোকে নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ১০ সেপ্টেম্বর ফেডারেল আদালত ট্রাম্পের ওই আদেশের বিরুদ্ধে এই রায় দিয়েছেন। এই রায়ের ফলে কাগজপত্রহীন অভিবাসীদের ২০২০ সালের সেনসাসে অন্তর্ভুক্ত আর কোনো বাধা নেই।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
তিন বিচারকের প্যানেল রুল জারি করে বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জুলাই মাসে সেনসাস বোর্ডকে দেওয়া নির্দেশের মাধ্যমে ফেডারেল আইন ভঙ্গ হয়েছে

যুক্তরাষ্ট্রে আদমশুমারি রাজনৈতিকভাবে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। দেশটির কংগ্রেসের আসন বরাদ্দ হয়ে থাকে আদমশুমারির ভিত্তিতে। ২০২০ সালের আদমশুমারি থেকে নথিপত্রহীন অভিবাসীদের বাদ দিতে চেয়েছিলেন ট্রাম্প।

১০ সেপ্টেম্বর আদালতে তিন বিচারকের প্যানেল রুল জারি করে বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জুলাই মাসে সেনসাস বোর্ডকে দেওয়া নির্দেশের মাধ্যমে ফেডারেল আইন ভঙ্গ হয়েছে।

ফেডারেল আইনে আদমশুমারি ও এর ভিত্তিতে কংগ্রেসের আসন বণ্টনের বিষয়টি স্পষ্ট বর্ণিত রয়েছে। তাই ট্রাম্পের ওই নির্দেশের ওপর স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করেন আদালত। তবে প্রেসিডেন্টের এমন নির্দেশে সংবিধান লঙ্ঘন করা হয় কিনা, তা নিয়ে আদালত কোনো সিদ্ধান্ত দেননি।

বিচারকেরা বলেন, আদালত এ মর্মে ঘোষণা করে যে, ট্রাম্পের এই পদক্ষেপ সংবিধানে বর্ণিত প্রেসিডেন্টের ক্ষমতার অবৈধ ব্যবহার।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
করোনাভাইরাস প্রতিরোধে লকডাউনের কারণে আদমশুমারি এক মাস বর্ধিত হয়েছিল। ট্রাম্প প্রশাসন তড়িঘড়ি করে নির্ধারিত সময়ের এক মাস আগে গণনা বন্ধ করে দিতে চেয়েছিল

আদালতের জারি করা এই নিষেধাজ্ঞা ট্রাম্প প্রশাসনের আদমশুমারি নীতির দ্বিতীয় পরাজয়। এর আগে চলতি মাসেই এ সংক্রান্ত এক পরাজয়ের গ্লানি রয়েছে প্রশাসনের। লেবার ডের সপ্তাহান্তে পুরো আদমশুমারি প্রক্রিয়াকে তাৎক্ষণিকভাবে বন্ধ করে দেওয়ার প্রয়াস চালিয়েছিলেন ট্রাম্প প্রশাসন। ক্যালিফোর্নিয়ায় একজন ফেডারেল বিচারক সেই প্রচেষ্টাকেও প্রতিহত করেছেন।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে লকডাউনের কারণে আদমশুমারি এক মাস বর্ধিত হয়েছিল। ট্রাম্প প্রশাসন তড়িঘড়ি করে নির্ধারিত সময়ের এক মাস আগে গণনা বন্ধ করে দিতে চেয়েছিল। ২০২০ সালের সেনসাসে কাদের গণনা করা হবে, তা প্রেসিডেন্টের জুলাই মাসের প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ ছিল না।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বাণিজ্যমন্ত্রী উইলবার রোসকে এই মর্মে নির্দেশ পাঠিয়েছেন যে, তাঁকে যেন দুটি গণনা রিপোর্ট পেশ করা হয়। একটি হবে সমগ্র জনসংখ্যার এবং অন্যটি নথিপত্রহীন অভিবাসীদের বাদ দিয়ে। যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্বের বিষয়ে প্রশ্নের বিধান যুক্ত করারও চেষ্টা করেছিল প্রশাসন। আদালত সেটিও নাকচ করে দেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আরও একবার আদমশুমারির প্রক্রিয়াকে অভিবাসী সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহারের ব্যর্থ চেষ্টা চালালেন। সব মাথা গণনা হবে, এটাই নিয়ম এবং এটাই ফেডারেল কোর্ট এই আদেশ দিয়ে প্রতিষ্ঠা করলেন
মামলা পরিচালনাকারী অ্যাটর্নি ডেল হো

ট্রাম্প প্রশাসন সেনসাস ব্যুরোর প্রতি অন্যান্য সরকারি সংস্থার তথ্য ভান্ডার থেকে নাগরিকদের তালিকা সংগ্রহের নির্দেশ দেয়। ট্রাম্পের জুলাই মাসের নির্দেশে সেই তালিকা আদমশুমারির নথির সঙ্গে এক করে ফেলার ইঙ্গিত রয়েছে। সরকারের এমন বিভাজন প্রক্রিয়া প্রচেষ্টার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে নানা পক্ষ কয়েক দফায় মামলা করেছে। কারণ প্রশাসনের উদ্দেশ্য সফল হলে, বড় নগরগুলোর নানা কমিউনিটি রাজনৈতিকভাবে শক্তিহীন হয়ে পড়বে। অভিবাসী প্রধান অঞ্চলগুলো সরকারি তহবিলের ন্যায্য বরাদ্দ থেকেও বঞ্চিত হবে।

একটি বেসরকারি গ্রুপের পক্ষে মামলা পরিচালনা করছেন অ্যাটর্নি ডেল হো। তিনি ট্রাম্পের বিরুদ্ধে আদালতের এই স্থায়ী নিষেধাজ্ঞাকে ভোটাধিকার এবং অভিবাসী অধিকারের পক্ষে একটি বড় জয় মনে করেন। তিনি বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আরও একবার আদমশুমারির প্রক্রিয়াকে অভিবাসী সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহারের ব্যর্থ চেষ্টা চালালেন। সব মাথা গণনা হবে, এটাই নিয়ম এবং এটাই ফেডারেল কোর্ট এই আদেশ দিয়ে প্রতিষ্ঠা করলেন।

হাওয়াই অঙ্গরাজ্যের ডেমোক্রেটিক সিনেটর ব্রায়ান স্কাটজ আদালতের নির্দেশকে ‘একটি চমৎকার সংবাদ’ বলে আখ্যায়িত করেছেন। তিনি বলেন, প্রশাসন নগ্ন ও নির্লজ্জভাবে সেনসাস ব্যুরোকে নিজেদের রাজনৈতিক হীন স্বার্থে ব্যবহার করার প্রয়াস চালিয়েছিল।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন