default-image

যুক্তরাষ্ট্রে মিশিগান অঙ্গরাজ্যের হামট্রামাক শহরের মেয়র ও কাউন্সিল সদস্য প্রার্থী তালিকা করা হয়েছে। গণসংযোগ ও অন্যান্য নির্বাচনী কর্মযজ্ঞ ইতিমধ্যেই আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করে দিয়েছেন প্রার্থীরা। আগামী ২০২১ সালের ৩ আগস্ট ভোট গ্রহণকে সামনে রেখে ভোটারদের মন জয় করতে নেমে পড়তে দেখা যাচ্ছে প্রার্থী ও তাঁদের কর্মী-সমর্থকদের। নির্বাচনের সবার সমর্থন ও সহযোগিতা কামনা করেছেন প্রার্থী সাদ আলমাসমারী।

এখন পর্যন্ত মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নাম লিখিয়েছেন চারজন প্রার্থী। তাঁরা হলেন—সাদ আলমাসমারী, বর্তমান মেয়র কারেন মেজেস্কি, আমির মাহমুদ এবং এ এস এম রাহমান। যুক্তরাষ্ট্রের ঐতিহ্য আর শ্রেষ্ঠত্বের প্রতীক মিশিগান রাজ্যের হ্যামট্রামাক শহর এখন অভিবাসীদের দখলে। বাংলাদেশি ও ইয়েমেনি অভিবাসীদের পদচারণায় এখন সরগরম থাকে নিত্যদিন। সবার চোখ এখন হ্যামট্রামাক শহরের মেয়র নির্বাচনের দিকে।

বর্তমান মেয়র কারেন মেজেস্কি পোলিশ বংশোদ্ভূত। তবে মেয়র না হলেও সাধারণ মানুষের যেকোনো প্রয়োজনে সাহায্যে এগিয়ে আসেন ইয়েমেনি বংশোদ্ভূত সাদ আলমাসমারী। বাংলাদেশি কমিউনিটির সঙ্গে তাঁর রয়েছে নিবিড় সম্পর্ক। পাঁচ বছর ধরে হ্যামট্রামাক শহরের কমিশনারের দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। এবার তিনি মেয়র পদে লড়তে চান। তিনি আশাবাদী, মানুষ শহরের মেয়র পদে তাঁকেই বেছে নেবে।

সাদ আলমাসমারী প্রথম আলো উত্তর আমেরিকাকে বলেন, তিনি ২০২১ সালের ৩ আগস্ট অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে হ্যামট্রামাকের মেয়র পদে প্রার্থী হচ্ছেন। মেয়র নির্বাচিত হলে বছরে ৩৬৫ দিন, সপ্তাহে ৭ দিন, ২৪ ঘণ্টা কাজ করবেন। নাগরিকদের সেবা দিতে তাঁর দরজা ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে।

আলমাসমারী বলেন, ‘হামট্রামাক আমাদের প্রাণের শহর। আমাদের হামট্রামাক আমরাই গড়ব। উন্নত হামট্রামাক গড়তে আমাকে ভোট দিয়ে জয়ী করতে হবে। এর মধ্য দিয়ে নবযাত্রা সূচিত হবে।’

বিজ্ঞাপন

আলমাসমারী বিশ্বাস করেন, শহরের মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালনে তাঁর সময় এসেছে। তিনি বলেন, ‘আমি যদি মেয়র হিসেবে জনগণের ভোট পাই, তবে আমি এই শহরকে সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন শহর হিসেবে গড়ে তুলব। শিশু, তরুণ, বৃদ্ধ সবাইকে সমান গুরুত্ব দিয়েই কাজ করব। পাঁচ বছর ধরে হামট্রামাক কাউন্সিল সদস্য হিসেবে আমি এই শহরের সমস্যা নিজ চোখে দেখছি, বুঝতেও পেরেছি এবং শহরের পরিস্থিতিও মূল্যায়ন করেছি।’

তিনি আরও বলেন, মেয়র হলে শহরের বাজেট, প্রয়োজনীয় ও অপ্রয়োজনীয় ব্যয়ের মূল্যায়ন করব। আমরা বাজেটকে শহরবাসী ও কর্মচারীদের পরিষেবা নিশ্চিতে ব্যয় করতে পারব। কনান্ট রোডকে আরও উন্নত করার চেষ্টা করব। অতীতে দেখেছি অনেকে অনেক প্রতিজ্ঞা করেছেন, কিন্তু সেটা আর বাস্তবায়ন করেননি। বছরের পর বছর মেয়র আসেন-যান কিন্তু প্রতিকার নেই। মেয়র হলে উন্নত রাস্তা নির্মাণ, রাস্তা পরিষ্কার এবং আরও অনেক পরিষেবা সরবরাহ করব।

জাতি, ধর্ম, গায়ের রং নির্বিশেষে পুরো জনসমাজের প্রতিনিধিত্ব করতে আপ্রাণ চেষ্টা করবেন বলে জানালেন এই ইয়েমেনি মার্কিন। তিনি বলেন, যদিও মেয়রের ক্ষমতা একটা নির্দিষ্ট কর্ম পরিধির মধ্যে সীমাবদ্ধ, তবে জনগণের ভোটে যে মেয়র ক্ষমতায় আসেন, তিনি ইচ্ছা করলে অনেক কিছুই করতে পারেন। জনসমর্থনই তাঁর বড় হাতিয়ার।

হ্যামট্রামাক শহরে বাংলাদেশিরা ঐতিহ্যে ও সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য নিয়ে বসবাস করছেন। পরিশ্রমী ও অগ্রসর অভিবাসী হিসেবে বাংলাদেশিরা এর মধ্যেই নিজেদের প্রমাণ করেছেন উল্লেখ করে আলমাসমারী বলেন, নির্বাচনে জয়ের জন্য তিনি সব মহলের সমর্থন ও সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন