default-image

যুক্তরাষ্ট্রের অ্যালাবামা ও ফ্লোরিডার উপকূলে আঘাত হানা সাইক্লোন শ্যালির কারণে ফ্লোরিডার পেন্সাকোলা শহরে বসবাসরত বাংলাদেশিদের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

সাইক্লোনের আঘাতে অনেকের বাড়িঘরের ওপর গাছপালা ভেঙে পড়েছে। কারও বাড়ি ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের ছাদ উড়ে গেছে, ঘরে পানি ঢুকে পড়েছে এবং বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এতে ব্যবসা–বাণিজ্যসহ জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

সাইক্লোন শ্যালিতে এ পর্যন্ত একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে, নিখোঁজ রয়েছে আরও একজন। ছয় লাখের বেশি মানুষ এখনো বিদ্যুৎহীন। শ্যালির আঘাতে একটি সেতুর স্পান উড়ে গেছে। এতে পেন্সাকোলা ও গালফ ব্রিজ শহরের মধ্যে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকায় অনেক বাংলাদেশির দোকান লুটের ঘটনা ঘটেছে। বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকায় বাংলাদেশি আমেরিকানদের অনেকে বাইরে রান্নাবান্না করে খাচ্ছেন।

বিজ্ঞাপন

ঘূর্ণিঝড় শ্যালি মেক্সিকো উপসাগরের উপকূলবর্তী রাজ্য অ্যালাবামা, ফ্লোরিডা, মিসিসিপি ও লুইজিয়ানায় আঘাত হানলেও সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ফ্লোরিডার ‘প্যানহ্যান্ডল’ নামে পরিচিত শহর পেন্সাকোলায় বসবাসরত বাংলাদেশি মার্কিনরা। কারণ, আবহাওয়ার পূর্বাভাস অনুযায়ী অ্যালাবামার মবিল শহরের ওপর দিয়ে মূলত এই ঘূর্ণিঝড় বয়ে যাওয়ার কথা থাকায় পেন্সাকোলার মানুষ আগে থেকে তেমন প্রস্তুতি নেয়নি।

পেন্সাকোলায় বসবাসরত বাংলাদেশি ব্যবসায়ী রাকিব ইসলাম বলেন, ‘অপ্রত্যাশিতভাবে এই ঝড় পেন্সাকোলার ওপর দিয়ে বয়ে গেছে। যার ফলে আমরা প্রস্তুত ছিলাম না। ঝড়ের ফলে আমার বাসার ছাদ উড়ে গেছে, দুটি রুমে পানি ঢুকেছে।’

ঘণ্টায় ১০৫ মাইল বেগে বয়ে যাওয়া ক্যাটাগরি ২ টাইপের এই ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে অ্যালাবামার উপকূলবর্তী শহর মবিল, পর্যটন নগর গালফ শোর ও অরেঞ্জ বিচ। পেন্সাকলা শহরে বসবাসরত আরেক বাংলাদেশি ব্যবসায়ী আজাদ রাহমান বলেন, ‘বাড়িঘর ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের ক্ষতি হলেও আমরা সবাই যে সুস্থ ও ভালো আছি, সে জন্য শুকরিয়া আদায় করছি।’

মন্তব্য পড়ুন 0