default-image

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হেরে হোয়াইট হাউস ছাড়ার পর প্রথমবারের মতো সুখবর পেল সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের পরিবার। চলতি বছর নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন পেয়েছেন হোয়াইট হাউসের সাবেক জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা ও ট্রাম্পের জামাই জ্যারেড কুশনার।

একই সঙ্গে আরও মনোনয়ন পেয়েছেন জ্যারেড কুশনারের ডেপুটি ও মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক দূত আভি বারকোউইটজ। ইসরায়েলের সঙ্গে আরব রাষ্ট্রগুলোর সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে একটি চুক্তি সম্পাদনে বিশেষ ভূমিকা রাখায় তাঁদের এই মনোনয়ন দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন
default-image

শান্তিতে নোবেল পুরস্কারের জন্য তাঁদের মনোনয়ন দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি অ্যালান ডারশোউইটজ। হার্ভার্ড ল’ স্কুলের একজন ইমেরিটাস অধ্যাপক হিসেবে তাঁর এই মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে। ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যখন প্রথম দফা অভিশংসন প্রস্তাব ওঠে, তখন ট্রাম্পের পক্ষ নিয়েছিলেন অ্যালান ডারশোউইটজ।

ট্রাম্পের মেয়ে ইভানকা ট্রাম্পের স্বামী জ্যারেড কুশনার এক বিবৃতিতে বলেছেন, নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন পাওয়ায় তিনি সম্মানিত হয়েছেন।

২০১৮ ও ২০২০ সালে নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন পেয়েছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। নোবেল শান্তি পুরস্কার ডোনাল্ড ট্রাম্পের এক ভীষণ আরাধ্য বিষয় ছিল। এ ক্ষেত্রে তিনি বরাবরই বারাক ওবামাকে প্রতিদ্বন্দ্বী মনে করতেন। বারাক ওবামার শান্তিতে নোবেল পাওয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বহুবার। ক্ষমতায় আসার পর থেকেই বলা যায় আন্তর্জাতিক পরিসরে নিজের ভাবমূর্তি বদলে দিতে এই পুরস্কারকেই পাখির চোখ করেন তিনি। এ ক্ষেত্রে উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে শান্তি চুক্তি করাটাকেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছিলেন। কিন্তু সেই চুক্তি আর হয়নি। ট্রাম্পের নোবেল পাওয়াও আর হয়নি।

২০২০ সালে নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য সংস্থাসহ ৩১৮ জন মনোনয়ন পেয়েছিলেন। আর ওই বছর শান্তিতে নোবেল পেয়েছে জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি (ডব্লিউএফপি)।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন