default-image

যুক্তরাষ্ট্রে চলমান আদমশুমারি শেষ হবে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর। এ অবস্থায় যারা এখনো আদমশুমারিতে অংশ নেননি, তাদের প্রতি শুমারিতে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

অন্য সব দেশের মতোই যুক্তরাষ্ট্রেও আদমশুমারি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই জনগণনার ওপর নির্ভর করেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যসেবা, যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ নানা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের পরিকল্পনা করা হয়। যাবতীয় আর্থিক পরিকল্পনার কেন্দ্রে থাকে এই জনগণনা। এ জন্য বাংলাদেশি কমিউনিটিসহ সব কমিউনিটির সদস্যদের এ আদমশুমারিতে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

যুক্তরাষ্ট্রে আদমশুমারির নেতৃত্ব দেয় ইউএস সেনসাস ব্যুরো। এতে স্থানীয় নাগরিকদের পাশাপাশি বৈধ ও অবৈধ অভিবাসী—সবাইকে গণনার আওতায় নিয়ে আসা হয়। প্রতি ১০ বছর পরপর এই আদমশুমারি করা হয়। ২০১০ সালের পর চলতি বছরের এপ্রিলে এর কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। এর আগে কয়েক মাস ধরে চলেছে আদমশুমারি কার্যক্রম পরিচালনার জন্য কর্মী নিয়োগ।

বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্রের আইন অনুযায়ী, দেশটিতে বসবাসকারী সবাইকেই এই জনগণনায় অংশ নিতে হবে। অনেকে বৈধ কাগজপত্র না থাকায় আদমশুমারিতে অংশ নিতে চান না। কিন্তু আদমশুমারিতে অংশ না নিলেই বরং ঝক্কিতে পড়তে হতে পারে। তাই বৈধ-অবৈধ অভিবাসী বা শরণার্থী পরিচয় যেমনই হোক সবাইকে এই জনগণনায় অংশ নিতে হবে। আর মাত্র অল্প কিছু দিন রয়েছে। এ অবস্থায় জনগণনায় অংশ নেওয়া কেন জরুরি এবং এ সম্পর্কিত অতি পরিচিত কিছু প্রশ্নের উত্তর জেনে নেওয়া যাক—

আদমশুমারিতে অংশ নেওয়া কেন গুরুত্বপূর্ণ?

আদমশুমারির মাধ্যমে সংগৃহীত তথ্য একটি সম্প্রদায়ের প্রয়োজনকে প্রকাশ করে। এর মাধ্যমে কোনো একটি অঞ্চলের জনঘনত্বই শুধু নয়, কোনো একটি অঞ্চলে নতুন স্কুল, হাসপাতাল, রাস্তাঘাট, গ্রন্থাগার, আবাসন ইত্যাদি প্রয়োজন রয়েছে কিনা এবং থাকলে তার জন্য কত অর্থায়ন প্রয়োজন—এসব তথ্য উঠে আসে। এই জনগণনার ওপর ভিত্তি করেই যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি অঙ্গরাজ্যের কংগ্রেস আসনগুলোর পুনর্বিন্যাস হয়। তাই রাজনৈতিক বিবেচনাতেও এটি ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ।

কীভাবে অংশ নিতে হবে?

২০২০ সালের আদমশুমারির তথ্য পূরণের জন্য চারটি বিকল্প রয়েছে—অনলাইন, কাগজ, ফোন ও একটি সেনসাস কাউন্টার। বর্তমান বাস্তবতায় অনলাইনে অংশ নেওয়াই উত্তম। এ ক্ষেত্রে শুরুতেই ই-মেইলের মাধ্যমে পাওয়া কোড ব্যবহার করে অনলাইনে সেনসাস ফরম পূরণ করতে হবে। এ ছাড়া গত মে মাসেই সবার ঘরে ঘরে একটি প্রশ্নপত্র পাঠানো হয়েছিল ডাকযোগে। ওই প্রশ্নপত্র পূরণ করে রাখুন। সেনসাস কর্মীরা ঘরে ঘরে গিয়ে এই ফরম সংগ্রহ করবেন।

বিজ্ঞাপন
আদমশুমারিতে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি অভিবাসী বা শরণার্থী কিনা, বৈধ কাগজ রয়েছে কিনা, সামাজিক নিরাপত্তা নম্বর, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বর, রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা, ধর্মীয় পরিচয় ইত্যাদি সম্পর্কে জানতে চাওয়া যাবে না

আদমশুমারির প্রশ্নপত্র কি অন্য ভাষায় পাওয়া যাবে?

হ্যাঁ। বাংলাসহ মোট ৫৯টি ভাষায় এই প্রশ্নপত্র পাওয়া যাচ্ছে। পুরো তালিকাটি পেতে যেতে হবে এই লিংকে—https://2020census.gov/en/languages

কোন ধরনের প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করবে?

প্রতিটি পরিবার শুধুমাত্র একটি প্রশ্নপত্র পূরণ করবে। পরিবারের প্রত্যেক সদস্যের নাম, লিঙ্গ, জন্ম তারিখ ও জাতিগত পরিচয় জানাতে হবে। মনে রাখতে হবে, সবাই অংশ নেবে এ জনগণনায়। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি অভিবাসী বা শরণার্থী কিনা, বৈধ কাগজ রয়েছে কিনা, সামাজিক নিরাপত্তা নম্বর, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বর, রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা, ধর্মীয় পরিচয় ইত্যাদি সম্পর্কে জানতে চাওয়া যাবে না।

তথ্যের গোপনীয়তা থাকবে?

হ্যাঁ, আইন অনুযায়ী, আপনার দেওয়া সব তথ্য সংরক্ষিত থাকবে, যা কোনোভাবেই আপনার বিরুদ্ধে ব্যবহার হবে না এবং অন্য কোনো সংস্থাকে জানানো হবে না। এই আইন লঙ্ঘন করলে জেল জরিমানার মুখোমুখি হতে হবে সংশ্লিষ্টদের।

সব মিলিয়ে এই আদমশুমারিতে অংশ নেওয়াটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। জাতিগত, ধর্মীয় ইত্যাদি পরিচয় যা-ই হোক না কেন এতে অংশ নিন। জনগণনায় অংশ নিতে my2020census.gov ওয়েবসাইট ভিজিট করুন। মাত্র ১০ মিনিট সময় লাগবে। কিন্তু আপনি ও আপনার পরিবার যে এলাকায় বসবাস করেন, সেখানকার আগামী ১০ বছরের উন্নয়ন নির্ভর করছে এর ওপর।

মন্তব্য পড়ুন 0