default-image

করোনাভাইরাসের এই মহামারির সময়েও যুক্তরাষ্ট্রে অবৈধ অভিবাসীদের ব্যাপক ধরপাকড় চলছে। গত এক মাসে প্রায় দুই হাজার নথিপত্রহীন অভিবাসীকে গ্রেপ্তার করেছে মার্কিন অভিবাসন ও শুল্ক বাহিনী (আইস)।

অভিবাসন বিভাগ থেকে জানানো হয়েছে, এসব নথিপত্রহীন লোকজন নানা অপরাধের সঙ্গে জড়িত। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তাঁর অভিবাসনবিরোধী সমর্থকদের চাঙা করতেই এমন গ্রেপ্তার অভিযান চালানো হচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে।

২ সেপ্টেম্বর আইস জানিয়েছে, গত জুলাই ও আগস্টে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত ২০টি দেশের দুই হাজারেরও বেশি নথিপত্রহীন অভিবাসীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতদের অধিকাংশই কোনো না কোনো অপরাধে অভিযুক্ত।

বিজ্ঞাপন
গত জুলাই ও আগস্টে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত ২০টি দেশের দুই হাজারেরও বেশি নথিপত্রহীন অভিবাসীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতদের অধিকাংশই কোনো না কোনো অপরাধে অভিযুক্ত

সংস্থাটি আরও বলছে, গত ১৩ জুলাই থেকে ২০ আগস্ট পর্যন্ত যারা গ্রেপ্তার হয়েছেন, তাঁদের মধ্যে ৮৫ শতাংশ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে অপহরণ বা ফৌজদারি দণ্ড ছিল। এ ছাড়া তাঁদের বিরুদ্ধে হত্যা, পারিবারিক সহিংসতা, চাঁদাবাজি, ডাকাতি এবং এমনকি কিশোরী ধর্ষণেরও অভিযোগ রয়েছে। এঁদের অধিকাংশ যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে বাস করতেন, যেখানে আইসের ধরপাকড়ে বিধিনিষেধ রয়েছে।

আইসের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক টনি ফ্যাম এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘এই অভিযান অব্যাহত থাকবে। কিন্তু অভিযান পরিচালনা করা অনেক কঠিন। তবে এসব অপরাধীদের গ্রেপ্তার করে আমাদের কমিউনিটিকে সুরক্ষা করতে পেরেছি।’

লস অ্যাঞ্জেলসের প্রায় ২৫ হাজারের বেশি অভিবাসীকে আইসের কাছে হস্তান্তর করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে কাউন্টি শেরিফ ডিপার্টমেন্ট

এদিকে ক্যালিফোর্নিয়া, নিউইয়র্ক, লস অ্যাঞ্জেলসসহ অনেক শহরে কাগজপত্রবিহীন অভিবাসীরা অপরাধ করে পার পেয়ে যাচ্ছেন। যদিও অপরাধীরা গ্রেপ্তার হওয়ার পর জামিনে বের হয়ে আবারও ধর্ষণ ও ডাকাত গ্যাংয়ের সঙ্গে জড়িত হয়ে আরও বড় ধরনের অপরাধ করছেন।

নিউইয়র্কে ২১ বছর বয়সী ডিনেরি স্টিভেন নামের এক অবৈধ অভিবাসী তরুণ বন্দুক সহিংসতায় জড়িত থাকার অপরাধে চলতি বছরের শুরুর দিকে গ্রেপ্তার হন। পরবর্তীতে ওই যুবক জামিনে বের হন। গত ১৪ আগস্ট গোলাগুলির ঘটনায় জড়িত অভিযোগে আবারও তিনি গ্রেপ্তার হয়েছেন বলে বিবৃতিতে জানিয়েছে আইস।

ফক্স নিউজের তথ্য অনুযায়ী, লস অ্যাঞ্জেলসের প্রায় ২৫ হাজারের বেশি অভিবাসীকে আইসের কাছে হস্তান্তর করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে কাউন্টি শেরিফ ডিপার্টমেন্ট।

বিজ্ঞাপন
চলতি বছর ৮৯ হাজার ৩৯৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের ২৪টি শহরে গ্রেপ্তার হওয়া অপরাধীদের মধ্যে মেক্সিকো, হন্ডুরাস, এল সালভাদরের অভিবাসী রয়েছেন। তাঁরা ধর্ষণ, স্ত্রী ও শিশু নির্যাতন, পারিবারিক সহিংসতা এবং মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

আইসের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছর ৮৯ হাজার ৩৯৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ২০১৯ সালে যা ছিল এক লাখ ২১ হাজার ৮৬ জন। যার মধ্যে এক হাজার ৯০০ জনের বেশি হত্যা, এক হাজার ৮০০ জন অপহরণ, ১২ হাজার জন ধর্ষণ ও যৌন অপরাধ, ৪৫ হাজার জন সহিংস ঘটনায় জড়িত। আইস বলছে, করোনাভাইরাসের কারণে এই অভিযান ব্যাহত হয়েছে।

অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে এই অভিযান অব্যাহত থাকবে। এই দেশ অবৈধ অভিবাসীদের জন্য নয়
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড গত সপ্তাহে বলেছেন, ‘অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে এই অভিযান অব্যাহত থাকবে। এই দেশ অবৈধ অভিবাসীদের জন্য নয়। আমাদের শক্তিশালী সীমানা থাকবে এবং আমি তা বহু বছর ধরে বলেছি।’

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন