default-image

হলিউড অভিনেতা ডোয়াইন জনসন। কুস্তির রিংয়ে তিনি ‘দ্য রক’ নামে পরিচিত। রেসলিং থেকে হলিউডি ছবিতে পা রেখে পেয়েছেন দারুন জনপ্রিয়তা। এবার পা রাখতে চান মার্কিন রাজনীতিতে। ইতিমধ্যে রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ার আভাসও দিয়েছেন। মনে হচ্ছে, রাজনীতিতেও ভালোই জনসমর্থন পাবেন এই অভিনেতা। অন্তত জরিপের ফল সেটিই বলছে।

ডোয়াইন জনসন সম্প্রতি ঘোষণা দিয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্রের আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়াই করতে চান তিনি। তাঁর ওই ঘোষণার পর শুরু হয় নানা আলোচনা। তাঁর জনপ্রিয়তা যাচাইয়ে একটি প্রতিষ্ঠান জরিপও চালিয়েছে ইতিমধ্যে।

নিউইয়র্ক ডেইলি নিউজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মার্কিন জরিপকারী প্রতিষ্ঠান পিপস্লে ডোয়াইন জনসনের মার্কিন প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করা নিয়ে একটি জরিপ চালিয়েছে। ওই জরিপে ৩০ হাজার মার্কিন অংশ নিয়েছেন। তাঁদের মধ্যে প্রায় ৪৬ শতাংশ ডোয়াইন জনসনের প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচন করার পক্ষে মত দিয়েছেন।

জরিপের ফল দেখে ৯ এপ্রিল এক টুইট বার্তায় হলিউড তারকা জনসন বলেন, তাঁর ক্লাবে ট্রাকচালক থেকে শুরু করে মদ্যপান করা মানুষও আছেন। তারপরও যদি কখনো জনগণের সেবা করার সুযোগ আসে, তবে সেটা তাঁর জন্য অনেক সম্মানের হবে।

বিজ্ঞাপন

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এর আগে ২০১৭ সালে এক সাক্ষাৎকারে হলিউড অভিনেতা রেসলার ডোয়াইন জনসন বলেছিলেন, ‘আমাকে প্রায়ই প্রশ্ন করা হয়—ভবিষ্যতে আমি কী করব। এ প্রশ্নের জবাব নিয়ে অনেক ভেবেছি। একসময় আমার মনে হয়েছে, নিজেকে রাজনীতির ময়দানেই দেখতে পছন্দ করব। হয়তো মার্কিন প্রেসিডেন্ট পদের জন্য লড়াই করব।’ তিনি ২০২০ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়তে চেয়েছিলেন। তবে এবার তিনি বিষয়টি খুবই গুরুত্ব দিয়ে ভাবছেন বলে জানিয়েছেন।

গত ফেব্রুয়ারি মাসে আরেক সাক্ষাৎকারে ডোয়াইন বলেছেন, ‘যদি জনগণ চায়, তাহলে আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়াই করব। আমি অপেক্ষা করছি, সবার কথা শুনছি।’

হলিউডের সবচেয়ে বেশি পারিশ্রমিক নেওয়া তারকা ৪৮ বছর বয়সী ডোয়াইন ‘দ্য রক’ জনসনের ইনস্টাগ্রামে ফলোয়ারের সংখ্যা ২০০ মিলিয়ন।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন