default-image

যুক্তরাষ্ট্রের আসছে মধ্যবর্তী নির্বাচনে রিপাবলিকান দলের চারজন সিনেটর তাঁদের পদে আর প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছেন। এসব নির্বাচনী এলাকায় নতুন রিপাবলিকান প্রার্থীদের নাটকীয় কোনো উত্থান না ঘটলে ডেমোক্রেটিক দলের সিনেটে নতুন করে আসন লাভের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

রিপাবলিকান দলের ওই চার সিনেটর হলেন—অ্যালাবামার রিচার্ড শেলবি, নর্থ ক্যারোলাইনার রিচার্ড বার, পেনসিলভানিয়ার পেট টমি ও ওহাইওর রব পোর্টম্যান।

অ্যালাবামার সিনেটর রিচার্ড শেলবি ২০২২ সালে অবসরে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি ৪২ বছর কংগ্রেসে আইনপ্রণেতা হিসেবে কাজ করেছেন। শেলবি প্রথম ১৯৮৬ সালে সিনেটে একজন ডেমোক্র্যাট হিসেবে নির্বাচিত হন। পরে ১৯৯৪ সালে তিনি দল পরিবর্তন করে রিপাবলিকান পার্টিতে যোগ দেন। তাঁর বয়স এখন ৮৬ বছর।

২০০৫ সাল থেকে নর্থ ক্যারোলাইনার সিনেটর রিচার্ড বার, ২০১১ সাল থেকে পেনসিলভানিয়ার সিনেটর পেট টমি ও একই সময় থেকে ওহাইওর সিনেটর রব পোর্টম্যান মধ্যবর্তী নির্বাচনে আর প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন না বলে আগেই জানিয়েছিলেন।

বিজ্ঞাপন
যুক্তরাষ্ট্রের দ্রুত পরিবর্তনশীল রাজনৈতিক বাস্তবতায় কিছু ডেমোক্রেটিক সিনেটরকেও মধ্যবর্তী নির্বাচনে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে

যুক্তরাষ্ট্রের উচ্চকক্ষ ১০০ আসনসংখ্যার সিনেটে এখন ডেমোক্রেটিক ও রিপাবলিকান পার্টির আসন সমান ৫০-৫০। তবে ভাইস প্রেসিডেন্টের টাই ব্রেকিং ভোটের ক্ষমতাবলে ডেমোক্রেটিক দল সংখ্যা গরিষ্ঠ।

যুক্তরাষ্ট্রের দ্রুত পরিবর্তনশীল রাজনৈতিক বাস্তবতায় কিছু ডেমোক্রেটিক সিনেটরকেও মধ্যবর্তী নির্বাচনে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে। ক্ষমতায় আসার পর পরই ডেমোক্রেটিক দলের মধ্যে ঐক্য দেখা গেলেও দলটির মধ্যে বনেদি ডেমোক্র্যাট ও উদারনৈতিক ডেমোক্র্যাটদের মধ্যে বিরোধ স্পষ্ট।

স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি ও সিনেটর চার্লস শুমার বনেদি ডেমোক্র্যাটদের প্রতিনিধি। আর প্রবীণ সিনেটর বার্নি স্যান্ডার্স অতি উদারনৈতিকদের প্রিয় নেতা। কংগ্রেসওমেন আলেকজান্দ্রিয়া ওকাসিও-কর্তেজ ও ইলহান ওমরসহ অতি উদারনৈতিকদের পক্ষে যুব-তরুণদের রয়েছে ব্যাপক সমর্থন। শিগগির নানা কারণে ডেমোক্রেটিক দলের এ বিরোধ চাঙা হয়ে উঠবে এবং এর প্রভাব আগামী মধ্যবর্তী নির্বাচনে পড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

রিপাবলিকান দল এখনো সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রভাব থেকে বেরিয়ে আসতে পারেনি। এ দলের রক্ষণশীল অংশে ট্রাম্পই এখনো শীর্ষ নেতা। রক্ষণশীল শ্বেতাঙ্গ যুব তরুণের কাছেও ট্রাম্পের সমর্থন এখনো ধরা ছোঁয়ার বাইরে। মধ্যপন্থী রিপাবলিকানরা গত চার বছর থেকেই কোণঠাসা। এসব নিয়েই যুক্তরাষ্ট্রের আগামী মধ্যবর্তী নির্বাচনের নানা আলোচনা ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে। রিপাবলিকান দলের পক্ষ থেকে কংগ্রেস ও সিনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিশ্চিত করার আগাম ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। ডোনাল্ড ট্রাম্পও ঘোষণা দিয়েছেন, তিনি রিপাবলিকান দলকে সহযোগিতা করতে প্রস্তুত।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন