default-image

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সংবিধানে প্রদত্ত মত প্রকাশের স্বাধীনতার অধিকারকেই ব্যবহার করেছেন। ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল হিলে হামলার জন্য তাঁর দেওয়া বক্তব্য ধ্বংসাত্মক কাজের জন্য দায়ী নয় বলে অভিশংসন আদালতের কার্যক্রম শুরুর আগেই ট্রাম্পের আইনজীবীরা এমন বক্তব্য সিনেটে উপস্থাপন করেছেন।

ট্রাম্পের আইনজীবীরা বলেছেন, ট্রাম্প বিশ্বাস করেছেন, তিনি নির্বাচনে পরাজিত হননি। জালিয়াতি করে তাঁকে নির্বাচনে হারানো হয়েছে। মার্কিন সংবিধানের প্রথম সংশোধনীতে থাকা নাগরিকদের মত প্রকাশের নিশ্চিত স্বাধীনতাকেই ব্যবহার করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

ক্যাপিটল হিলে হামলা ও তাণ্ডবের জের ধরে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে পরের সপ্তাহেই দ্বিতীয় দফা অভিশংসন প্রস্তাব গ্রহণ করে প্রতিনিধি পরিষদ। ডেমোক্রেটিক দলের সব আইনপ্রণেতাসহ ১০ জন রিপাবলিকান এ অভিশংসন প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেন।

অভিশংসন দণ্ড কার্যকর করার জন্য সাংবিধানিক প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে প্রস্তাবটি মার্কিন সিনেটে উপস্থাপন করা হয়েছে। সিনেটের সবচেয়ে প্রবীণ সদস্য সিনেটর প্যাট্রিক লেহি অভিশংসন আদালতে সভাপতিত্ব করবেন এবং দণ্ড কার্যকর করার জন্য আগামী সপ্তাহেই আদালতের কার্যক্রম শুরু হওয়ার কথা।

বিজ্ঞাপন
ট্রাম্প তাঁর কৃতকর্মের ফলাফল ভোগ না করলে খারাপ নজির সৃষ্টি হবে
স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি

সিনেটে ট্রাম্পের অভিশংসন দণ্ড কার্যক্রম পরিচালনার বিপক্ষে ৪৫ জন রিপাবলিকান ভোট প্রদান করেছেন। দণ্ড নিশ্চিত করার জন্য সব ডেমোক্র্যাটসহ ১৭ জন রিপাবলিকান সিনেটরের সমর্থন প্রয়োজন হবে। এখন পর্যন্ত পাঁচজন রিপাবলিকান সিনেটর ট্রাম্পের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।

গত ২০ জানুয়ারি ক্ষমতা থেকে চলে যাওয়ার পর ট্রাম্পকে আর অভিশংসন করা যায় কিনা, এ নিয়ে সাংবিধানিক প্রশ্ন উঠেছে। সিনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা চার্লস শুমার ১৮৭৬ সালের কংগ্রেসের একটি ব্যাখ্যার উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেছেন, ক্ষমতা থেকে চলে যাওয়ার পরও ফেডারেল সরকারের দায়িত্বে থাকা লোকজনের দায়মুক্ত হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। ট্রাম্প তাঁর কৃতকর্মের ফলাফল ভোগ না করলে খারাপ নজির সৃষ্টি হবে বলে বলেছেন স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে অভিশংসন আদালত মোকাবিলার জন্য আইনজীবী সংগ্রহে হিমশিম খেতে হয়েছে। শুরুতে আইনজীবী হিসেবে যাদের নাম এসেছে, তাঁরা একপর্যায়ে এ মামলা থেকে নিজেদের সরিয়ে নেন। সিএনএনসহ একাধিক সংবাদমাধ্যম তাদের প্রতিবেদনে বলেছে, ট্রাম্প অভিশংসন আদালত মোকাবিলার জন্য আইনজীবীদের নিজের মতো করে যুক্তি দেখানোর চাপ দিচ্ছিলেন।

সাংবিধানিক ফাঁক ফোকর নয়, আইনজীবীরা যেন নির্বাচনে কারচুপি ও জালিয়াতি নিয়েই যুক্তি উপস্থাপন করেন—এমন চাপ দেওয়ায় আইনজীবীদের বিষয়টা পছন্দ হয়নি এবং পারস্পরিক আলোচনার মাধ্যমেই তাঁরা নিজেদের এ মামলা থেকে সরিয়ে নেন। সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এখনো নির্বাচনে তাঁর হার মেনে নেননি। তাঁর সমর্থকেরাও মনে করেন, জালিয়াতি করে ট্রাম্পের জয় চুরি করা হয়েছে।

ট্রাম্পের আইনজীবীরা সিনেটে জানিয়েছেন, ৬ জানুয়ারির ঘটনার আগে ট্রাম্পের বক্তব্য সহিংসতার জন্য দায়ী কিনা তা সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণের জন্য প্রতুল প্রমাণাদি নেই। কোনো ধ্বংসাত্মক কাজ করার জন্য ট্রাম্প তাঁর সমর্থকদের নির্দেশনা প্রদান করেননি

ডেভিড শোয়েন ও ব্রুস এল ক্যাস্টর জুনিয়র নামের দুই বিখ্যাত আইনজীবীকে সর্বশেষ নিয়োগ করা হয় ট্রাম্পের অভিশংসন মামলা মোকাবিলার জন্য।

ডেভিড শোয়েন ও ব্রুস ক্যাস্টর এক বিবৃতিতে বলেছেন, ৪৫তম মার্কিন প্রেসিডেন্টকে প্রতিনিধিত্ব করতে পেরে তাঁরা সম্মানিত বোধ করছেন। যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান রক্ষায় কাজ করা অত্যন্ত মর্যাদার বিষয়।

ট্রাম্পের আইনজীবীরা ২ ফেব্রুয়ারি সিনেটে তাঁদের প্রাথমিক জবাব জমা দিয়েছেন। নিউইয়র্ক টাইমসসহ প্রপাবলিকা নামের সংবাদমাধ্যম ট্রাম্পের আইনজীবীর সিনেট আদালতে জমা দেওয়া জবাব প্রথম প্রকাশ করেছে।

আদালতে জমা দেওয়া আইনজীবীদের নথি থেকে জানা গেছে, তাঁরা বলেছেন, ৬ জানুয়ারির ঘটনার আগে ট্রাম্পের বক্তব্য সহিংসতার জন্য দায়ী কিনা তা সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণের জন্য প্রতুল প্রমাণাদি নেই। কোনো ধ্বংসাত্মক কাজ করার জন্য ট্রাম্প তাঁর সমর্থকদের নির্দেশনা প্রদান করেননি।

ট্রাম্প বলেছিলেন, ‘যদি আপনারা মরিয়া হয়ে লড়াই না করেন, তাহলে দেশটি আর আমাদের থাকবে না’—এ বক্তব্য উল্লেখ করে আইনজীবীরা বলেছেন, এমন বক্তব্য প্রদানের স্বাধীনতা মার্কিন সংবিধানের প্রথম সংশোধনীতেই নিশ্চিত করা আছে। তাই ট্রাম্প এই বক্তব্য দিয়ে কোনো অপরাধ করেননি। ট্রাম্পের এ বক্তব্য সহিংসতার জন্য নয়, সার্বিকভাবে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনের নিরাপত্তার জন্য আহ্বান ছিল বলে তাঁরা যুক্তি দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
অভিশংসন ব্যবস্থাপকদের নথিতে বলা হয়েছে, ট্রাম্পের আচরণকে দ্ব্যর্থহীন এবং পরিষ্কার করে অগ্রহণযোগ্য ঘোষণা করতে হবে

ট্রাম্পের আইনজীবীরা আরও বলেছেন, ক্ষমতা থেকে চলে যাওয়ার পর কোনো প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে অভিশংসন দণ্ড কার্যকরের কথা সংবিধানে উল্লেখ নেই এবং যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এমন কোনো নজিরও নেই।

প্রতিনিধি পরিষদের নয়জন আইনপ্রণেতা সিনেটে অভিশংসন আদালতে প্রসিকিউটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। অভিশংসন ব্যবস্থাপক হিসেবে এসব আইনপ্রণেতাদের কংগ্রেস থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।

৯ ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে অভিশংসন আদালতে উপস্থাপনের আগে অভিশংসন ব্যবস্থাপকেরাও তাঁদের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছেন। ২ ফেব্রুয়ারি অভিশংসন ব্যবস্থাপকেরা ট্রাম্পের অভিশংসন আদালতে উপস্থাপনের জন্য নিজেদের প্রস্তুতির কথাও জানিয়েছেন।

নথিতে বলা হয়েছে, সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আচরণকে দ্ব্যর্থহীন এবং পরিষ্কার করে অগ্রহণযোগ্য ঘোষণা করতে হবে। বিষয়টি কোনো দলীয় বিতর্ক নয় উল্লেখ করে বলা হয়েছে, ট্রাম্প সব রাজনৈতিক বিতর্কের মৌলিক ভিত্তিকে সরাসরি হুমকিতে ফেলেছেন।

অভিশংসন ব্যবস্থাপকের প্রস্তুত করা দলিলে বলা হয়েছে, ট্রাম্পের বক্তৃতা ও উসকানি সাংবিধানিক প্রক্রিয়া এবং আমাদের আরাধ্য মৌলিক স্বাধীনতাকে হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন