বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্রের কোনো সড়কে এমন নামফলক টাঙানো ও জনগণের প্রতিক্রিয়ার কারণে দ্রুততার সঙ্গে তা সরিয়ে ফেলার ঘটনা সচরাচর ঘটে না। এ নিয়ে উৎফুল্ল যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত আওয়ামী লীগের লোকজন। যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির পক্ষ থেকে বিষয়টি নিয়ে খোঁজ-খবর করা হচ্ছে এবং করণীয় নির্ধারণ করা হবে বলা জানানো হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আবদুস সামাদ আজাদ এ নিয়ে উষ্ণ অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন। বিবৃতিতে তাঁরা বলেছেন, মেরিল্যান্ডের বাল্টিমোর সিটিতে গত তিন মাস আগে একটি স্ট্রিটের ভগ্নাংশের নামকরণ করা হয় জিয়াউর রহমানের নামে। স্বৈরাচার জিয়াউর রহমানের নামে এই নামকরণের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসকারী আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা ঘৃণা প্রকাশ করে আসছে। ফলশ্রুতিতে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শামীম চৌধুরী এই নামকরণ অপসারণের প্রক্রিয়া শুরু করেন এবং তা অপসারিত হয়।

এই প্রক্রিয়ায় আরও জড়িত ছিলেন বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের যুক্তরাষ্ট্র সভাপতি খোন্দকার মনসুর, মেরিল্যান্ড স্টেট আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক তাপস মজুমদার।

এ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সিটি মেয়রসহ সংশ্লিষ্ট সবার কাছে বিষয়টি নিয়ে খোঁজখবর করা হচ্ছে।

‘জিয়াউর রহমান ওয়ে’ নামফলকের অন্যতম উদ্যোক্তা মেরিল্যান্ড স্টেট বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির অন্যতম সদস্য মোহাম্মদ কাজল জানিয়েছেন, সিটি ট্রান্সপোর্টেশন ডিভিশনের একজন কর্মকর্তা তাঁকে বলেছেন, একটি মহল জিয়াউর রহমান সম্পর্কে নানা তথ্য দিয়েছেন এবং তাঁরা বলেছেন, এই নামফলক না সরালে কমিউনিটিতে বড় ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতির অবতারণা হতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন