প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও তাঁর উদারনৈতিক কর্মসূচির বিরুদ্ধে সরাসরি আন্দোলনে নেমে পড়েছে রিপাবলিকানদের রক্ষণশীল অংশ। তাঁর ক্ষমতা গ্রহণের ১০০ দিনের মধ্যেই রক্ষণশীলদের পক্ষ থেকে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও তাদের পক্ষে প্রকাশ্যে অবস্থান নিয়েছেন। সিটিজেন ইউনাইটেড নামের একটি সংগঠনের ব্যানারে রক্ষণশীলরা মাঠ গরম করার চেষ্টা করছে।

২৫ ফেব্রুয়ারি (গতকাল বৃহস্পতিবার) ফ্লোরিডার অরল্যান্ডোতে শুরু হয়েছে রক্ষণশীলদের চার দিনব্যাপী গুরুত্বপূর্ণ সম্মেলন। গত নির্বাচনে ট্রাম্পের পরাজয়ের মধ্য দিয়ে কোণঠাসা হয়ে পড়া রক্ষণশীলদের প্ল্যাটফর্ম ‘কনজারভেটিভ অ্যাকশন পলিটিক্যাল কনফারেন্স’-এর ব্যানারে পুরো যুক্তরাষ্ট্র থেকে রক্ষণশীলদের সমাবেশ ঘটছে। এই সম্মেলনে সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বক্তৃতা দেবেন শেষ দিন আগামী রোববার সন্ধ্যায়।

২৫ ফেব্রুয়ারি সকালেই রক্ষণশীলদের পক্ষ থেকে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নানা কর্মসূচিকে যুক্তরাষ্ট্রের মূল চেতনার বিরোধী বলা অভিযোগ তোলা হয়েছে। বাইডেনের এসব উদারনৈতিক কর্মসূচিকে রুখে দাঁড়ানোর জন্য ‘ফাইট ব্যাক অ্যাগেইনস্ট এজেন্ডা, ডিফেন্ড ট্রাম্পস রেকর্ড’ তারা প্রচারও শুরু করেছে।

বিজ্ঞাপন

রক্ষণশীলদের সম্মেলনের অন্যতম সহযোগী সংগঠন সিটিজেন ইউনাইটেডের প্রেসিডেন্ট ডেভিড বসি বলেন, ‘স্টপবাইডেনএজেন্ডা ডট কম’ নামের ওয়েবসাইট এর মধ্যেই চালু করে দেওয়া হয়েছে। ডেভিড বসি ফক্স নিউজকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘আমেরিকা ফার্স্ট’ নামে ট্রাম্পের কর্মসূচি থেকে সরে আসার কোনো রায় জনগণ বাইডেনকে দেয়নি। এর মধ্যেই অভিবাসন থেকে শুরু করে নানা ক্ষেত্রে যেসব পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, তাতে মার্কিন জনগণের কোনো অগ্রাধিকার নেই বলে ডেভিড বলেন।

‘স্টপবাইডেনএজেন্ডা ডট কম’-এর প্রচারণায় বলা হয়েছে, নির্বাচনে জালিয়াতি বন্ধ করতে হবে। ফ্লোরিডার অরল্যান্ডোতে জড়ো হওয়া অধিকাংশ রক্ষণশীলের ধারণা ও বিশ্বাস, গত নির্বাচনে কারচুপি হয়েছে। তাঁরা বলছেন, নির্বাচনের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের জনগণের আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে।

জো বাইডেন অভিবাসন নিয়ে সাধারণ ক্ষমা অ্যামনেস্টি দিয়ে দিচ্ছেন উল্লেখ করে ‘স্টপবাইডেনএজেন্ডা ডট কম’-এ বলা হয়েছে, এর বিরুদ্ধে সবাইকে রুখে দাঁড়াতে হবে। এই ওয়েবসাইটে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ছেলে হান্টার বাইডেনের করবিবরণী ও অন্যান্য ব্যবসা-বাণিজ্যের বিষয়ে তদন্ত করার জন্য স্পেশাল কাউন্সেলর নিয়োগের দাবি জানানো হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের উদারনৈতিক গণমাধ্যম জো বাইডেনের বিপক্ষে নীরব ভূমিকা পালন করছে বলে ‘স্টপবাইডেনএজেন্ডা ডট কম’-এ অভিযোগ তোলা হয়েছে। রক্ষণশীলরা দেশের স্বার্থে নিজেদের প্রচারণা নিজেরাই চালিয়ে যাবে বলে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পরিচিত সব চরম রক্ষণশীল রাজনীতিবিদদের সমাবেশ ঘটেছে ফ্লোরিডার রক্ষণশীলদের সম্মেলনে। সিনেটর টেড ক্রুজ, সিনেটর টম কটন, সিনেটর হোসে হাওলি, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও, টেক্সাসের অ্যাটর্নি জেনারেল কেন প্যাক্সটন, গভর্নর ক্রিস্টি নোয়েমসহ রক্ষণশীল তারকাদের বেশির ভাগই ফ্লোরিডার সমাবেশে যোগ দিচ্ছেন। গতকাল সমাবেশে প্রেসিডেন্ট বাইডেন ও উদার নৈতিকতার বিপক্ষে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে আন্দোলন গড়ে তোলার প্রত্যয় ঘোষণা করা হয়েছে। তাদের প্রচারণার জন্য টিভি ও রেডিও বিজ্ঞাপনে বিপুল বাজেট করা হবে। এসব প্রচারণার জন্য অর্থ সংগ্রহ শুরু হয়ে গেছে।

বিজ্ঞাপন

ফ্লোরিডার অরল্যান্ডোতে রক্ষণশীলদের সমাবেশের মধ্য দিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতা থেকে বিদায় নেওয়ার পর প্রথম প্রকাশ্যে আসছেন। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে কোনো সাবেক প্রেসিডেন্ট এমন করে দ্রুত রাজনৈতিক মঞ্চে ফিরে আসার নজির নেই। ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তাঁর সমর্থনে রক্ষণশীল লোকজন যে ঐক্যবদ্ধ, তা প্রমাণ করার চেষ্টা চলছে।

ট্রাম্পের বিরোধিতা করা রিপাবলিকান নেতাদের ফ্লোরিডায় আয়োজিত রক্ষণশীলদের এই সমাবেশে আমন্ত্রণই জানানো হয়নি। ২০২২ সালের মধ্যবর্তী নির্বাচনে রিপাবলিকানদের জয়ের জন্য কার্যত মাঠ গরম করার চেষ্টা চলছে। প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ক্ষমতা গ্রহণের দুই মাসের ১০০ দিনের মধ্যেই তীব্র রাজনৈতিক বিরোধিতা শুরু হয়ে গেছে। এই বিরোধিতা দ্রুতই আরও তীব্র হয়ে উঠবে বলে মনে করা হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন