default-image

যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিতে দ্রুত চাঞ্চল্য ফিরে আসছে। আশা করা হচ্ছে, আগের চেয়ে ভিন্ন এক অর্থনীতির দেশ হয়ে উঠবে এই দেশ। চলতি বছরের শেষ দিকে ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। কোভিড-১৯ মহামারির কারণে নাগরিকদের আর্থিক সহযোগিতা না করা হলে অর্থনৈতিক পরিস্থিতি এখনকার অবস্থা থেকে আরও নাজুক হতো। কংগ্রেস নাগরিকদের প্রয়োজনে সরকারি সহযোগিতার হাত প্রসারিত করে ঐতিহাসিক কাজ করেছে।

মার্কিন ফেডারেল রিজার্ভ চেয়ারম্যান জেরোম পাওয়েল এসব কথা বলেছেন। ১১ এপ্রিল সিবিএস নিউজের সিক্সটি মিনিটস অনুষ্ঠানে এক সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, কংগ্রেস আইন করে লোকজকে ঘরে রাখতে সক্ষম হয়েছে। জনগণকে সচ্ছল রেখে মহামারি মোকাবিলা করেছে। এ কাজকে দেশের অর্থনীতির জন্য আইনপ্রণেতাদের বীরত্বের কাজ বলে তিনি উল্লেখ করেন।

অবশ্য ফেড চেয়ারম্যান জেরোম পাওয়েল স্বীকার করেন, এখনো মানুষের অর্থনৈতিক সমস্যা রয়েছে। সমস্যায় পড়া মানুষকে সরকার এখনো সহযোগিতা করে যাচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। ব্যাপক বাজেট ঘাটতি ও সরকারি ব্যয় বৃদ্ধির ফলে মুদ্রাস্ফীতির কোনো আশঙ্কা নেই বলে জেরোম পাওয়েল সাক্ষাৎকারে বলেন। ফেডারেল ব্যাংক এখনই সুদের হার বাড়াচ্ছে না বলে তিনি জানিয়ে দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

দেশের অর্থনীতির নানা বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে জেরোম পাওয়েল বলেন, ফেডারেল সরকার ডিজিটাল মুদ্রা চালুর বিষয়ে এখনো পরীক্ষা–নিরীক্ষা করছে। এখনো এ নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি উল্লেখ করে তিনি বলেন, কংগ্রেসের অনুমোদন ছাড়া কেন্দ্রীয় ব্যাংক ডিজিটাল কারেন্সি চালু করবে না।

গত মাসে যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ১০ লাখ নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। বেকারত্বের হার এখন ছয় শতাংশের কাছাকাছি। ফেড চেয়ারম্যান জেরোম পাওয়েল বলেন, সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হচ্ছে। যদিও মহামারির পূর্বাবস্থায় শ্রমবাজার এখনো ফিরে যায়নি। ২০২০ সালে মহামারি শুরুর আগের প্রায় ৮৪ লাখ কর্মজীবী এখনো কর্মহীন।

কোভিড-১৯ সংক্রমণের কারণে এখনো অর্থনীতি নানা ঝুঁকির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে বলে ফেড চেয়ারম্যান উল্লেখ করেন। সংক্রমণকে পুরো নিয়ন্ত্রণ না করে সবকিছু উন্মুক্ত করে দিলে বিপর্যয় হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন