default-image

নির্বাচনের আগে কোনো আর্থিক প্রণোদনা দেওয়া হবে না বলে গোঁ ধরেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এমনকি এ সম্পর্কিত আলোচনা বন্ধ করে দেওয়ার কথাও তিনি বলেছিলেন। তারপর আবার রাতারাতি ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে প্রণোদনা দেওয়ার কথা জানিয়েছিলেন। পরে নির্বাচনের আগেই ১ দশমিক ৮০ ট্রিলিয়ন ডলারের আর্থিক প্রণোদনার প্রস্তাব দেন ট্রাম্প। এখন এই প্রস্তাবের বিপরীতে অবস্থান নিয়েছেন আইনসভার নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি ও সিনেটে রিপাবলিকান দলের নেতারা।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত শুক্রবার ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রস্তাবিত প্রণোদনা প্যাকেজকে ন্যান্সি পেলোসি ‘অপর্যাপ্ত’ আখ্যা দেন। তিনি বলেন, এটা অনেকটা দুই পা পিছিয়ে এক পা এগোনোর মতো ব্যাপার। আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু নিয়ে কাজ করার আছে।

প্রতিনিধি পরিষদের ডেমোক্র্যাটদের উদ্দেশে এ সম্পর্কিত এক চিঠিতে পেলোসি লেখেন, ‘এই মুহূর্তে অনেক বিষয়েই আমাদের দ্বিমত রয়েছে। সার্বিক আর্থিক সহায়তার বিষয়ে চলমান আলোচনার বেশ কিছু বিষয়ে প্রশাসনের কাছ থেকে সুস্পষ্ট বক্তব্যের অপেক্ষায় আছে ডেমোক্র্যাটরা।’

পেলোসি ট্রাম্প প্রস্তাবিত প্রণোদনা প্যাকেজকে ‘অপর্যাপ্ত’ বিবেচনায় বিরোধিতা করছেন। যদিও এটিই এখন পর্যন্ত ট্রাম্প প্রশাসনের ঘোষিত করোনাকালীন সবচেয়ে বড় প্রণোদনা প্যাকেজ। আর এটিই প্রতিনিধি পরিষদ ও সিনেটের রিপাবলিকান নেতাদের বিরোধিতার কারণ। তাঁরা সুস্পষ্টভাবে জানিয়েছেন, এত বড় তহবিলের বিষয়ে তাঁরা রাজি নন। সিনেটের সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা মিচ ম্যাককোনেল ও প্রতিনিধি পরিষদের সংখ্যালঘু দলের নেতা কেভিন ম্যাককার্থি বিষয়টি নিয়ে এরই মধ্যে হোয়াইট হাউসের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন।

বিজ্ঞাপন
এটা হবে সিনেট রিপাবলিকানদের জন্য মৃত্যুর শামিল, যা নির্বাচনের মাত্র তিন সপ্তাহ আগে পুরো দলীয় ভিতকেই দুর্বল করে দেবে
মার্শা ব্ল্যাকবার্ন, টেনেসির রিপাবলিকান সিনেটর

গতকাল শনিবার অর্থমন্ত্রী স্টিভ মানচিন ও হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফ মার্ক মিডোসের সঙ্গে এক কনফারেন্স কলে সিনেটের রিপাবলিকান নেতারা হোয়াইট হাউস থেকে প্রস্তাবিত ১ দশমিক ৮০ ট্রিলিয়ন ডলারের প্রণোদনা প্যাকেজের বিরোধিতা করেন বলে বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে সিএনএন। এই বিরোধিতার কারণ হিসেবে তাঁরা স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন। এ অবস্থায় পেলোসির সঙ্গে প্রস্তাবটি নিয়ে আলোচনা চলমান থাকলেও এটা নিশ্চিত হয়ে গেছে, সিনেটে এই প্রস্তাব পাস হওয়ার কোনো সুযোগ আর নেই।

দুটি সূত্রের বরাত দিয়ে সিএনএন জানায়, ওই দিনের কনফারেন্স কলে ফ্লোরিডার সিনেটর রিক স্কট স্টিভ মানচিন ও মার্ক মিডোসকে সরাসরি বলেন, ‘আমি বুঝতে পারছি না, হোয়াইট হাউস কেন নিজের পথ থেকে বিচ্যুত হচ্ছে।’ আর টেনেসির সিনেটর মার্শা ব্ল্যাকবার্ন বলেন, ‘এটা হবে সিনেট রিপাবলিকানদের জন্য মৃত্যুর শামিল, যা নির্বাচনের মাত্র তিন সপ্তাহ আগে পুরো দলীয় ভিতকেই দুর্বল করে দেবে।’

আর সিনেটের রিপাবলিকান নেতাদের মধ্যে শ্রদ্ধেয় হিসেবে পরিচিত লামার আলেক্সান্ডার সরাসরি বলেন, ‘হোয়াইট হাউস প্রস্তাবিত তহবিল সরবরাহের কোনো ইচ্ছাই নেই সিনেটের।’

আর এই প্রণোদনা প্যাকেজ নিয়ে কোনো সমঝোতায় পৌঁছাতে গেলে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি নিয়োগের বিষয়টি পিছিয়ে পড়তে পারে বলে মত দেন ইউটাহর সিনেটর মাইক লি। তাঁর মতে, এই মুহূর্তে এ বিষয়টিতেই সর্বোচ্চ মনোযোগ দেওয়া উচিত।

রিপাবলিকান নেতাদের সঙ্গে কনফারেন্স কলে মানচিন ও মিডোস বলেন, তাঁরা নেতাদের এসব মত প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে অবহিত করবেন। তবে এই মত যে তেমন একটা ধর্তব্যে নেওয়া হবে না, সে কথা তাঁরাও বলেছেন। এমন মত জানানোর পর ট্রাম্পের প্রতিক্রিয়া কেমন হতে পারে, তা নিয়ে মিডোস তো সরাসরি বলেই দিয়েছেন, ‘আপনাদের হয়তো আমার শেষকৃত্যে আসতে হতে পারে।’ অবশ্য এমন মন্তব্যের পরও রিপাবলিকান নেতারা নিজেদের অবস্থান বদলাননি।

দুটি সূত্রের বরাত দিয়ে সিএনএন জানায়, ওই কনফারেন্স কলে রিপাবলিকান নেতারা বিশেষভাবে ফেডারেল রিজার্ভের চেয়ারম্যান জেরোম পাওয়েলের বিষয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানান। জেরোম পাওয়েল আর্থিক সহায়তার বিল দ্রুত পাস করার ওপর জোর দিচ্ছেন। আর এই বিষয়ে নিজের অভিমতটি তিনি প্রকাশ্যে প্রচার করছেন। এতেই চটেছেন রিপাবলিকান নেতারা।

গত মঙ্গলবার প্রণোদনা সম্পর্কিত আলোচনা বন্ধের ডাক দেওয়ার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, তিনি নির্বাচনের আগেই প্রণোদনা প্যাকেজ অনুমোদন দিতে আগ্রহী। প্রতিনিধি পরিষদের ডেমোক্র্যাট নেতৃবৃন্দ ২ লাখ ২০ হাজার ডলারের প্রণোদনা প্যাকেজের প্রস্তাব করেছেন। এর বিপরীতে গত সপ্তাহে ১ দশমিক ৬০ ট্রিলিয়ন ডলারের প্যাকেজ নিয়ে আলোচনা চলছিল, যা খারিজ করেন ট্রাম্প। পরে নিজেই আবার ১ দশমিক ৮০ ট্রিলিয়ন ডলারের প্রস্তাব উত্থাপন করেন। কিন্তু রিপাবলিকান নেতারা ১ লাখ কোটি ডলারের বেশি প্রণোদনা তহবিলের অনুমোদন দিতে আগ্রহী নন। তাঁরা এমনকি ৫০ হাজার কোটি ডলারের বেশি তহবিল ঘোষণার পক্ষে নন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0