default-image

যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের নতুন প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় ১ হাজার ৪০০ ডলার করে সহযোগিতার চেক অর্থ পেতে শুরু করেছে নাগরিকেরা। ইতিমধ্যে বেশির ভাগ নাগরিকের ব্যাংক হিসাবে এই অর্থ পৌঁছে গেছে। বিশেষ করে যারা গত বছর ট্যাক্স ফাইল করার সময় ব্যাংকের তথ্যে দিয়েছেন, তাদের হিসাবে অর্থ এসে গেছে।

নতুন প্রণোদনার এই চেক পেয়ে কিছুটা স্বস্তি অনুভব করছেন নাগরিকেরা। খুশিও তারা। বাংলাদেশি মার্কিন কমিউনিটিতেও লেগেছে খুশির ছোঁয়া। অনেককেই এই ডলার দিয়ে বকেয়া ভাড়া পরিশোধ, শপিং ও পরিবারের নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী কিনতে দেওয়া গেছে।

একই পরিবারের যদি কয়েকজন সদস্য থাকেন, সবাই ১ হাজার ৪০০ ডলার করে সহযোগিতার এই অর্থ পেয়েছেন। আর যাদের আইআরএসের কাছে ব্যাংকের তথ্যে নেই, তাদের নামে বাসার ঠিকানায় চেক পাঠানো হচ্ছে।

১৭ মার্চ নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটস, জ্যামাইকা ও ব্রুকলিনে বাঙালি অধ্যুষিত এলাকার সুপার মার্কেটগুলোতে অন্যান্য দিনের তুলনায় দ্বিগুণ সংখ্যক মানুষকে শপিং করতে দেখা গেছে। সবার মধ্যে উৎফুল্ল ভাব দেখা গেছে।

বিজ্ঞাপন

জ্যাকসন হাইটসে সোনা কিনতে আসা ইয়াসমিন আক্তার বলেন, ‘আমাদের পরিবারে পাঁচ সদস্য আছে। সবাই প্রণোদনার ডলার পেয়েছে। তাই, সোনা কিনতে আসলাম। পরিবারের সবাই ডলার পেয়ে আনন্দিত। যে, যার মতো করে খরচ করছে।’

আসাদুজ্জামান বলেন, আমার দুই মাসের ঘর ভাড়া বকেয়া ছিল। প্রণোদনার অর্থ পেয়ে আগে সেটি পরিশোধ করেছি। ঘরের জন্য নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী ক্রয় করেছি। আগামী দুই মাস মাছ মাংস কিনতে হবে না।

ব্রুকলিনের ফরিদা রহমান বলেন, ‘আমাদের পরিবারের সদস্য আটজন। সবাই ডলার পেয়েছে। আমাদের সবার কাছে আগে কিছু ডলার জমা ছিল। এই ডলারসহ সব মিলিয়ে একটি বাড়ি কেনার ইচ্ছা আছে।’

এককালীন প্রণোদনা ছাড়াও যাদের চাকরি নেই, তাদের জন্য রয়েছে ফেডারেল সরকারের পক্ষ থেকে সাপ্তাহিক ৩০০ ডলার এবং বার্ষিক আয়ের ওপরে বেকার ভাতা। বেকার ভাতা কার্যক্রম আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন