default-image

যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন পরবর্তী পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে নির্বাচন প্রক্রিয়াকে সম্মান করা এবং ক্ষমতার সাবলীল হস্তান্তরকে উৎসাহিত করার আহ্বান জানিয়েছেন সাবেক ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামা।

১৬ নভেম্বর ইনস্টাগ্রামে এ সংক্রান্ত একটি পোস্ট দিয়ে মিশেল ওবামা দেশের জনগণের প্রতি, বিশেষ করে দেশের নেতৃত্বের প্রতি এই আহ্বান জানিয়েছেন।

২০১৬ সালের ক্ষমতার পরিবর্তনের সময়ের কথা উল্লেখ করে মিশেল ওবামা বলেছেন, প্রেসিডেন্ট পদটি কোনো ব্যক্তি বা দলের নয়। এ নিয়ে খেলা করার কোনো অবকাশ নেই। প্রেসিডেন্ট পদকে দল বা ব্যক্তির মনে করা বিপদ ডেকে আনতে পারে। ষড়যন্ত্র তত্ত্ব হোক আর ব্যক্তিগত অর্জনের জন্য হোক—এমন মনে করে দেশকে হুমকির মধ্যে ফেলে দেওয়া হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

৩ নভেম্বর মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এখনো পরাজয় মেনে নেওয়ার কোনো ইঙ্গিত দেননি। নির্বাচনে কারচুপি-জালিয়াতি হয়েছে অভিযোগ করে তিনি বিজয়ী প্রার্থীকে এখনো অভিনন্দন জানাননি। এ নিয়ে ট্রাম্প বেশ কয়েকটি মামলা দায়ের করলেও তা কার্যকর কোনো ফল নিয়ে আসতে পারেনি। বিচারকেরা সেসব মামলা একের পর এক খারিজ করছেন।

রিপাবলিকান দলের মূল নেতারা ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিপক্ষে এখনো প্রকাশ্য অবস্থান নেননি। অনেকেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সময় ক্ষেপণকে সমর্থন দিচ্ছেন। এ কারণে ক্ষমতার পালা বদলের প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। ট্রাম্প প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাইডেন শিবিরকে প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য এখনো কোনো সহযোগিতাও করা হচ্ছে না।

গণতন্ত্র যেকোনো একজন ব্যক্তির অহমিকার চেয়ে অনেক বড়। দেশের প্রতি আমাদের ভালোবাসা দেখানোর জন্য নির্বাচনের ফলের প্রতি শ্রদ্ধা দেখাতে হবে। ফল অপছন্দ হলে বা অন্যদিকে গেলেও এমন শ্রদ্ধা দেখাতে হবে
মিশেল ওবামা, যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ফার্স্ট লেডি

সাবেক ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামা তাঁর ইনস্টাগ্রাম পোস্টে লিখেছেন, ২০১৬ সালে ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে হিলারি ক্লিনটনের পরাজয় তাঁর কাছেও মেনে নেওয়া কঠিন হয়ে উঠেছিল। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তখন বলেছিলেন, বারাক ওবামার জন্ম আমেরিকায় হয়নি। এরপরও তিনি ট্রাম্প প্রশাসনের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের সময় যতটা সম্ভব সহযোগিতার হাত প্রসারিত করেছেন। মিশেল বলেছেন, তিনি মন থেকে জানতেন, এটাই ছিল সঠিক পদক্ষেপ।

মিশেল বলেছেন, ‘গণতন্ত্র যেকোনো একজন ব্যক্তির অহমিকার চেয়ে অনেক বড়। দেশের প্রতি আমাদের ভালোবাসা দেখানোর জন্য নির্বাচনের ফলের প্রতি শ্রদ্ধা দেখাতে হবে। ফল অপছন্দ হলে বা অন্যদিকে গেলেও এমন শ্রদ্ধা দেখাতে হবে।’

default-image

মিশেল ওবামার আগেই সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা সিবিএস নিউজের জনপ্রিয় ‘সিক্সটি মিনিটস’ অনুষ্ঠানে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। সেখানে ওবামা বলেছেন, ‘এমন আচরণ আমাদের সন্তানদের কাছ থেকেও আশা করি না। খেলায় হেরে গেলে কোনো প্রমাণ ছাড়াই যদি কেউ বলে অন্য পক্ষ জালিয়াতি করেছে, তা কেমন করে হয়।’

সাবেক প্রেসিডেন্ট বা ফার্স্ট লেডিরা সাধারণত রাজনৈতিক বিতর্ক এড়িয়ে চলেন। এবারে পরিস্থিতি ভিন্ন হয়ে উঠেছে। নির্বাচনে পরাজয় মেনে না নিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প কী করতে পারেন—এ নিয়ে কেউ নিশ্চিত নন। তাঁর কথাকে কেউ প্রকাশ্যে গুরুত্বও দিচ্ছেন না।

এমন আচরণ আমাদের সন্তানদের কাছ থেকেও আশা করি না। খেলায় হেরে গেলে কোনো প্রমাণ ছাড়াই যদি কেউ বলে অন্য পক্ষ জালিয়াতি করেছে, তা কেমন করে হয়
বারাক ওবামা, যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট

পলিটিকোর সর্বশেষ জনমত জরিপে দেখা গেছে, রিপাবলিকান দলের ৭০ শতাংশ সমর্থকেরাই মনে করেন না যে, নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ হয়েছে। সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাও নির্বাচন পরবর্তী অবস্থা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন, এবারের নির্বাচনের মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সমাজের চরম বিভক্তি প্রকাশিত হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0