default-image

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ক্ষমতায় আসার পর ‘আমেরিকা উদ্ধার পরিকল্পনা’ নামের নাগরিক সহযোগিতার ঘোষণার দিয়েছিলেন। নানা অনিশ্চয়তার পর সহযোগিতার সেই অর্থ ছাড়ের পথ প্রশস্ত হচ্ছে। আগামী মাসের মধ্যেই মিলবে এই সহযোগিতা। ১ দশমিক ৯ ট্রিলিয়ন ডলারের ‘আমেরিকা উদ্ধার পরিকল্পনা’ আইন চলতি মাসের মধ্যেই কংগ্রেসে পাস হচ্ছে। ডেমোক্র্যাট সংখ্যাগরিষ্ঠ কংগ্রেসে রিপাবলিকানদের পাস কাটিয়েই বিলটি পাস করা হতে পারে।

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, ইতিহাসের নজিরবিহীন বিপর্যয়ের সময় সরকার সর্বশক্তি নিয়ে জনগণের পাশে দাঁড়াবে। জনগণের কাছে অর্থ প্রবাহ নিশ্চিত করার মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিতে দ্রুত চাঞ্চল্য ফিরিয়ে আনাই বাইডেন প্রশাসনের এখন অগ্রাধিকার।

কোভিড-১৯ সংক্রমণে পাঁচ লাখের বেশি মানুষের মৃত্যুর বিপর্যয়কর সময়ে দাঁড়িয়ে মার্কিন সরকার সব ধরনের সহযোগিতা নিয়ে পাশে দাঁড়াতে চায়। রিপাবলিকান দলের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, নতুন করে বড় ধরনের নাগরিক সহযোগিতা এখন অপ্রয়োজনীয়। তাদের মতে, এমন উদার নাগরিক সহযোগিতা দেশের অর্থনীতির জন্য দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতির কারণ হতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের অধিকাংশ মানুষ আগামী মাসের মধ্যেই নতুন নাগরিক সহযোগিতার নগদ অর্থ পেয়ে যাবেন বলে মনে করা হচ্ছে। যাদের এককভাবে বার্ষিক আয় ৭৫ হাজার ডলার বা দম্পতি হিসেবে যৌথ আয় বছরে দেড় লাখ ডলার, তারা জনপ্রতি ১ হাজার ৪০০ ডলার করে পাবেন। চূড়ান্ত আইনে বার্ষিক আয়ের সর্বোচ্চ সংখ্যা নির্ধারণে তারতম্য হতে পারে বলেও কোনো কোনো আইন প্রণেতা ইঙ্গিত দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

নাগরিক সহযোগিতার অংশ হিসেবে প্রথম দফায় মানুষ ১ হাজার ২০০ ডলার করে এবং দ্বিতীয় দফায় জনপ্রতি ৬০০ ডলার করে পেয়েছেন। এবার জনপ্রতি ১ হাজার ৪০০ ডলার পাওয়া গেলে অর্থনৈতিক সমস্যায় হাবুডুবু খাওয়া মানুষের মধ্যে স্বস্তি আসবে বলে বাইডেন প্রশাসন থেকে বলা হচ্ছে।

প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নতুন প্রণোদনা প্যাকেজে কর্মহীন মানুষের জন্য নিয়মিত বেকারভাতার অতিরিক্ত সপ্তাহে ৪০০ ডলার করে দেওয়া হবে। প্রথম দফা সপ্তাহে ৬০০ ডলার করে দেওয়া হয়েছে। দ্বিতীয় দফায় কর্মজীবীদের এই অতিরিক্ত ভাতা সপ্তাহে ৩০০ ডলার করে দেওয়া হচ্ছে। নতুন প্রণোদনা আইনে কোভিড-১৯–এর কারণে কর্মহীন মানুষের বেকার ভাতার মেয়াদ আসছে আগস্ট মাসের শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত বর্ধিত করা হবে।

ডেমোক্র্যাট আইন প্রণেতারা বলেছেন, নতুন প্রণোদনা আইনে ১৮ বছরের কম বয়সী সন্তানের জন্য তাদের বাবা–মাকে বয়স অনুযায়ী মাসে ২৫০ ডলার থেকে ৩০০ ডলার পর্যন্ত দেওয়ার প্রস্তাব রয়েছে। এ ছাড়া অপ্রাপ্ত বয়স্ক সন্তানদের জন্য বর্তমান দুই হাজার ডলারের কর রেয়াতের বদলে ৩ হাজার ৬০০ ডলার পর্যন্ত কর রেয়াত দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। এ কর রেয়াত অগ্রিম হিসেবে পরিবারগুলোর কাছে পৌঁছে দেওয়ার প্রস্তাব রয়েছে। স্কুলগামী শিশু সন্তানের দেখভালের জন্য মাসে আলাদা ৩০০ ডলার করে দেওয়ার কথাও বলা হয়েছে প্রস্তাবে।

সরাসরি এসব নাগরিক সুবিধা ছাড়া প্রেসিডেন্ট বাইডেনের আমেরিকা উদ্ধার পরিকল্পনায় স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন খাতে উদার বরাদ্দ রয়েছে। ফুড স্ট্যাম্প, স্বাস্থ্যসেবাসহ সামাজিক নিরাপত্তার নানা বিষয়ে স্থানীয় সরকার নাগরিকদের অধিকতর সহযোগিতা করতে পারবে।

নতুন নাগরিক প্রণোদনায় ক্ষুদ্র ব্যবসা বিশেষ করে রেস্তোরাঁ, এয়ারলাইনসের মতো কোভিড-১৯–এ সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসার জন্য সহযোগিতার ব্যবস্থা থাকছে।

প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নতুন উদ্দীপনা প্রস্তাবে স্থানীয় হাসপাতাল, টিকাদান কেন্দ্রসহ স্বাস্থ্যখাতে ফেডারেল প্রণোদনা দেওয়া হবে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্যও প্রণোদনার অর্থ বরাদ্দ রয়েছে।

উদারনৈতিক নাগরিক প্রণোদনা নিয়ে রক্ষণশীল রিপাবলিকানদের বিরোধিতা থাকলেও জনগণের চাহিদা এখন চরমে। কর্মহীন মানুষ এখনো কাজে ফিরে যেতে পারেনি। যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক চাঞ্চল্যও ফিরে আসেনি। মনে করা হচ্ছে, দলীয় অবস্থানের বাইরে এসে কিছু রিপাবলিকান আইন প্রণেতাও শেষ মুহূর্তে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের প্রণোদনার পক্ষে দাঁড়াবেন।

বিজ্ঞাপন
যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন