default-image

প্রায় চার মাসের তদন্ত ও তিন সপ্তাহব্যাপী উন্মুক্ত শুনানি শেষে মার্কিন কংগ্রেসের গোয়েন্দাবিষয়ক কমিটি গত মঙ্গলবার একটি সবিস্তার প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এই প্রতিবেদনের মোদ্দাকথা, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাঁর রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ব্যাপারে ক্ষতিকর তথ্য আহরণের লক্ষ্যে তদন্ত করতে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির ওপর চাপ দিয়েছিলেন। এই লক্ষ্যে তিনি ইউক্রেনের জন্য কংগ্রেস কর্তৃক নির্ধারিত প্রায় ৪০০ মিলিয়ন ডলারের অর্থনৈতিক ও সামরিক সাহায্য প্রদানের ব্যাপারে সাময়িক বিধিনিষেধ আরোপ করেন।

প্রতিবেদনটি কংগ্রেসের বিচার বিভাগীয় কমিটির কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এই কমিটির দায়িত্ব, কোন কারণে ও কী তথ্যের ভিত্তিতে ট্রাম্পকে অভিশংসন করা হবে, তার প্রস্তাব নির্ধারণ করা। এ কাজের অংশ হিসেবে বিচার বিভাগীয় কমিটি বুধবার থেকে এক উন্মুক্ত শুনানির আয়োজন করেছে। এর আগে মঙ্গলবার গোয়েন্দাবিষয়ক কমিটি ১৩-৯ ভোটে প্রতিবেদনটি বিচার বিভাগীয় কমিটির কাছে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়। কমিটির ডেমোক্রেটিক ও রিপাবলিকান সদস্যরা নিজ নিজ দলের পক্ষে ভোট দেন।

কমিটি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছেও এই প্রতিবেদনের একটি কপি পাঠিয়েছে। ট্রাম্প এই প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে বলেছেন, ডেমোক্র্যাটদের
ব্যবহার দেশপ্রেমবিরোধী। নিজেকে সম্পূর্ণ নির্দোষ দাবি করে ট্রাম্প বলেন, ডেমোক্র্যাটরা যা করছেন তা দেশের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর।

গোয়েন্দা কমিটির প্রতিবেদনে বিস্তারিত তথ্যপ্রমাণসহ সরল ভাষায় ট্রাম্পের ক্ষমতার অপব্যবহারের বিবরণ দেওয়া হয়েছে। তিন সপ্তাহের উন্মুক্ত শুনানিতে ট্রাম্প প্রশাসনের বর্তমান ও সাবেক কর্মকর্তারা যে সাক্ষ্য দিয়েছেন, প্রতিবেদনে তার উল্লেখ রয়েছে। এ ছাড়া হোয়াইট হাউসের সঙ্গে নিউইয়র্কের সাবেক মেয়র রুডি জুলিয়ানি ও অন্যান্য ব্যক্তির কল তালিকা বা লগ সংযোজিত হয়েছে। উল্লেখ্য, প্রতিবেদন অনুসারে জুলিয়ানির মাধ্যমে ট্রাম্প ইউক্রেনের ওপর চাপ সৃষ্টির চেষ্টা চালান।

>

কংগ্রেস কমিটির প্রতিবেদন
দুটি ধারা প্রস্তাব করা হতে পারে-ক্ষমতার অপব্যবহার ও কংগ্রেসের কাজে বাধা সৃষ্টি

৩০০ পাতার এই প্রতিবেদনে ট্রাম্প ও হোয়াইট হাউস কীভাবে ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন ও বিচারপ্রক্রিয়ায় বাধা দিয়েছেন, তার পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ থাকলেও কোন ভিত্তিতে অভিশংসন ধারা লিখিত হবে, তার কোনো সুপারিশ নেই। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এই প্রতিবেদনের ভিত্তিতে বিচার বিভাগীয় কমিটি সম্ভবত দুটি অভিশংসন ধারা প্রস্তাব করবে। একটি ক্ষমতার অপব্যবহার, অন্যটি কংগ্রেসের কাজে বাধা সৃষ্টি। প্রসঙ্গত, প্রেসিডেন্ট নিজ দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হলে অথবা ক্ষমতার অপব্যবহার করলে তাঁকে অভিশংসিত করার আইনগত অধিকার কংগ্রেসের রয়েছে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আগাগোড়া অভিশংসন–প্রক্রিয়ার সঙ্গে কোনো প্রকার সহযোগিতায় অস্বীকার করেন। কংগ্রেস কর্তৃক সমন জারি করা হলেও পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওসহ মার্কিন প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তারা ট্রাম্পের নির্দেশে কংগ্রেসের শুনানিতে অংশগ্রহণে অস্বীকৃতি জানান। কংগ্রেসের চোখে এটি বিচারপ্রক্রিয়ায় বাধা সৃষ্টি, যা অভিশংসনযোগ্য।

১৯৭৪ সালে যে তিন ধারায় কংগ্রেস প্রেসিডেন্ট নিক্সনের অভিশংসন অনুমোদন করে, তার প্রথমটিই ছিল বিচারপ্রক্রিয়ায় বাধা সৃষ্টি।

গোয়েন্দাবিষয়ক কমিটির প্রধান কংগ্রেসম্যান এডাম শিফ বলেছেন, তাঁদের তদন্তকাজ শেষ না হলেও ইতিমধ্যে পর্যাপ্ত তথ্যপ্রমাণ সংগৃহীত হয়েছে। অতিরিক্ত তথ্যের জন্য কালক্ষেপণ অর্থহীন হবে। ওয়াশিংটন পোস্ট পত্রিকার সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন, জো বাইডেনের ব্যাপারে তদন্ত শুরুর বদলে সামরিক ও অর্থনৈতিক সাহায্যকে ট্রাম্প যেভাবে ব্যবহারের চেষ্টা করেন, তা অনায়াসে উৎকোচ বলে বিবেচিত হতে পারে। এটি একটি অভিশংসনযোগ্য অপরাধ। অনুমান করা হচ্ছে, বিচার বিভাগীয় কমিটি ক্ষমতার অপব্যবহার ও বিচারপ্রক্রিয়ায় বাধা সৃষ্টির পাশাপাশি উৎকোচের বিষয়টিও অভিশংসন ধারায় অন্তর্ভুক্ত করতে পারে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন