default-image

যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসন নিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসনের আদেশের বিপক্ষে রায় দিয়েছেন আদালত। এ রায়ের ফলে যুক্তরাষ্ট্রে অপ্রাপ্ত বয়সে প্রবেশ করা ১০ লাখের বেশি অভিবাসী এখন আশার আলো দেখতে পারবেন।

১৪ নভেম্বর নিউইয়র্কের ফেডারেল আদালত বলেছে, ট্রাম্প প্রশাসনের ডেফার্ড অ্যাকশন ফর চাইল্ডহুড অ্যারাইভ্যাল (ডাকা) কর্মসূচি বন্ধের আদেশ অবৈধ। ফেডারেল বিচারক নিকোলাস গুরাফেইস এ রায় দিয়েছেন।

ট্রাম্প প্রশাসনের ভারপ্রাপ্ত হোমল্যান্ড সেক্রেটারি চ্যাড উলফ গত জুলাই মাসে এক আদেশে ডাকা কর্মসূচি বন্ধ করে দেওয়ার আদেশ প্রদান করেছিলেন। প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সময়ে ডেফার্ড অ্যাকশন ফর চাইল্ডহুড অ্যারাইভ্যাল (ডাকা) কর্মসূচি চালু করা হয়েছিল।

বিজ্ঞাপন
default-image

ডাকা কর্মসূচির আওতায় সুরক্ষা পাওয়া তরুণ অভিবাসীদের বেশির ভাগই লাতিন আমেরিকার দেশগুলোর নাগরিক। তাঁরা শৈশব ও কৈশোরে মা-বাবার সঙ্গে অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে এসেছিলেন। তারুণ্যে পদার্পণের পর তাঁরা সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার গৃহীত এ কর্মসূচির আওতায় শুধু দেশ থেকে বিতাড়নের হাত থেকেই রেহাই পাননি; পেয়েছেন দেশটিতে বসবাস, পড়ালেখা ও ভবিষ্যতে কর্মসংস্থানেরও সুযোগ।

ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতায় এসেই অভিবাসন নীতি কড়াকড়ি করার জন্য নানা প্রয়াস গ্রহণ করেন। তাঁর অভিবাসনবিরোধী বেশ কিছু প্রয়াস আদালতেও শেষ পর্যন্ত গৃহীত হয়।

গত জুলাই মাসে ভারপ্রাপ্ত হোমল্যান্ড সেক্রেটারি চ্যাড উলফ এক নির্দেশনায় ডাকা কর্মসূচির নতুন আবেদন বন্ধ করে দেন। একই আদেশে জানিয়ে দেওয়া হয়, আগে যাদের অনুমতি দেওয়া হয়েছে তাঁদের বৈধতার মেয়াদ এক বছরের বেশি বৃদ্ধি করা হবে না। এমন নির্দেশে কর্মসূচির আওতায় থাকা লাখো অভিবাসী হতাশ হয়ে পড়নে। বিষয়টি নিয়ে অভিবাসী গ্রুপগুলো ফেডারেল আদালতে মামলা দায়ের করে।

ডাকা কর্মসূচির আওতায় সুরক্ষা পাওয়া তরুণ অভিবাসীদের বেশির ভাগই লাতিন আমেরিকার দেশগুলোর নাগরিক। তাঁরা শৈশব ও কৈশোরে মা-বাবার সঙ্গে অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে এসেছিলেন। তারুণ্যে পদার্পণের পর তাঁরা সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার গৃহীত এ কর্মসূচির আওতায় শুধু দেশ থেকে বিতাড়নের হাত থেকেই রেহাই পাননি; পেয়েছেন দেশটিতে বসবাস, পড়ালেখা ও ভবিষ্যতে কর্মসংস্থানেরও সুযোগ

১৪ নভেম্বর নিউইয়র্কের ফেডারেল আদালত বলেছে, ভারপ্রাপ্ত হোমল্যান্ড সেক্রেটারির নির্দেশ দিয়ে ডাকা কর্মসূচি বন্ধ করার ক্ষমতা নেই। কারণ চ্যাড উলফকে সিনেটে শুনানির মাধ্যমে নিয়োগ দেওয়া হয়নি। ফলে ভারপ্রাপ্ত হোমল্যান্ড সেক্রেটারি হিসেবে তিনি এমন নির্দেশ জারি করতে পারেন না।

এ মামলার আইনজীবী ক্যারেন তুমলিন বলেছেন, এ রায়ের ফলে লাখো অপ্রাপ্ত বয়স্ক অভিবাসীর ভাগ্য খুলে গেছে।

নিউইয়র্কের ফেডারেল আদালতের এ রায়ের বিরুদ্ধে ট্রাম্প প্রশাসনের আপিল করার সুযোগ আছে। এ নিয়ে তাঁরা আপিল আবেদন করবে কিনা, হোমল্যান্ড সিকিউরিটি বিভাগ তাৎক্ষণিকভাবে কিছু জানায়নি।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0