বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এখন আইন প্রস্তাবটি সরাসরি প্রেসিডেন্ট বাইডেনের কাছে যাবে। প্রস্তাবে তিনি স্বাক্ষর করলেই তা পুরো আইনে পরিণত হবে এবং তা বাস্তবায়নে আর কোনো বাধা থাকবে না।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডেমোক্রেটিক দলের অতি উদারনৈতিক পক্ষের ছয় সদস্য এ আইন প্রস্তাবের বিরোধিতা করে প্রস্তাবের বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন। আর এদিকে রিপাবলিকান দলের ১৩ সদস্য নিজ দলের বিরোধিতা করে ডেমোক্র্যাটদের এ আইন প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দিয়েছেন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, পরিকাঠামো আইন প্রস্তাব পাস হওয়াটা প্রেসিডেন্ট বাইডেনের জন্য অনেক বড় বিজয় বলে মনে করা হচ্ছে। আইন প্রস্তাবটি বাইডেনের অনুমোদন পাওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে ব্রিজ, সড়ক পুনর্নির্মাণসহ ব্যাপক উন্নয়নকাজ শুরু হবে। আধুনিকায়ন করা হবে ব্রিজ, রেলপথ ও নৌপথ। এ কর্মসূচি শুরু হলে বিপুলসংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

অভিবাসন, পরিকাঠামো উন্নয়ন, জলবায়ুবান্ধব এ উদারনৈতিক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে গিয়ে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে ত্রিমুখী সমস্যায় পড়তে হয়েছিল।

রক্ষণশীলদের এককাট্টা বিরোধিতা ছাড়াও নিজের দলের অতি উদারনৈতিক এবং মধ্যপন্থীদের চাপের মধ্যে ছিলেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন। ডেমোক্রেটিক দলের অতি উদারনৈতিক পক্ষ বেপরোয়া উদার কর্মসূচি গ্রহণের জন্য প্রেসিডেন্ট বাইডেনের ওপর চাপ সৃষ্টি করেছেন। মহামারি শেষ না হওয়া পর্যন্ত মাসে মাসে নগদ প্রণোদনা, বেকার ভাতা পাওয়ার মেয়াদ বৃদ্ধিসহ এসব কর্মসূচির ঘোর বিরোধিতা করা হয় মধ্যপন্থী ডেমোক্র্যাটদের পক্ষ থেকেও। শেষমেশ গতকাল রাতে আলোচনা করে সব পক্ষের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যদের সঙ্গে সমঝোতা করতে সক্ষম হয় বাইডেন প্রশাসন। এরপরই তা মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদ পাস করে। আশা করা যাচ্ছে, প্রেসিডেন্ট বাইডেন দ্রুত পাস হওয়া এ আইন প্রস্তাবে স্বাক্ষর করে অনুমোদন দেবেন।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন