default-image

হোয়াইট হাউস ছাড়ার আগে গত জানুয়ারিতে করোনাভাইরাসের টিকা নিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও সাবেক ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প। নাম প্রকাশ না করার শর্তে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্টের এক উপদেষ্টা জানিয়েছিলেন, ট্রাম্প ও মেলানিয়া জানুয়ারিতে হোয়াইট হাউসে টিকা নিয়েছিলেন। কিন্তু তাঁদের করোনার টিকা নেওয়ার সময়ের কোনো ছবি নেই। অথচ বিশ্বের যত প্রেসিডেন্ট এ পর্যন্ত করোনার টিকা নিয়েছেন, তাঁদের প্রায় সবারই টিকা নেওয়ার ছবি বা ভিডিওচিত্র রয়েছে। টিকা নেওয়ার ছবি বা ভিডিওচিত্র আছে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্টদেরও।

সিএনএন-এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত জানুয়ারিতে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ডোনাল্ড ট্রাম্প হোয়াইট হাউসে করোনার টিকা নিয়েছিলেন। কিন্তু সেই টিকা নেওয়ার সময় কোনো অফিশিয়াল আলোকচিত্রী বা ভিডিওগ্রাহক ছিলেন না। এ কারণে তাঁর টিকা নেওয়ার কোনো প্রমাণ নেই।

এ ঘটনার সঙ্গে পরিচিত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি জানিয়েছেন, ট্রাম্পের টিকা নেওয়ার মুহূর্তের কোনো ছবি বা ভিডিও আছে কিনা, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক যেসব প্রেসিডেন্ট জীবিত রয়েছেন, তাঁরা মানুষকে টিকাদানে উৎসাহিত করতে একটি কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন। এই কর্মসূচিতে তাঁদের স্ত্রীরাও অংশ নিচ্ছেন। তবে তাঁদের প্রত্যেকের টিকা নেওয়ার প্রমাণ থাকতে হবে। এ ক্ষেত্রে যেহেতু ট্রাম্পের এখনো পর্যন্ত কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি, তাই সাবেক প্রেসিডেন্টদের এই কর্মসূচিতে তাঁর অংশ নেওয়াটা কঠিন হয়ে পড়বে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, গত জানুয়ারিতে সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন, জর্জ ডব্লিউ বুশ ও বারাক ওবামা করোনার টিকা নিয়ে এই কর্মসূচির কথা বলেছিলেন। যা ১১ মার্চ আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এই কর্মসূচির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ একজন কর্মকর্তা বলেন, শুরুতেই ট্রাম্প তাঁর পূর্বসূরিদের এই কর্মসূচিতে যোগ না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। এ কারণেই এই সময়ে তাঁকে আর আমন্ত্রণ জানানো হয়নি।

বিজ্ঞাপন

তবে জানা গেছে, মানুষকে করোনার টিকাদানে উৎসাহিত করতে পূর্বসূরিদের আয়োজিত এই কর্মসূচিতে অংশ নেওয়ার ব্যাপারে কম আগ্রহ দেখিয়েছিলেন ট্রাম্প। এ কারণে এই কর্মসূচিতে তাঁকে অন্তর্ভুক্ত করার ব্যাপারে আয়োজক সংগঠনও খুব বেশি আগ্রহী ছিল না।

তবে একজন সাবেক প্রেসিডেন্টের ঘনিষ্ঠ এক কর্মকর্তা বলেছেন, এমন কর্মসূচিতে অংশ নেওয়ার ব্যাপারে ট্রাম্প কোনো ইঙ্গিত দেননি।

ট্রাম্প কেন সাবেক প্রেসিডেন্টদের এমন কর্মসূচিতে নেই, তা ট্রাম্পের একজন মুখপাত্রের কাছে জানতে চাইলে তিনি কোনো জবাব দেননি।

ট্রাম্পের টিকা নেওয়ার বিষয়ে জ্ঞাত ট্রাম্প প্রশাসনের একজন কর্মকর্তা বলেন, ট্রাম্প করোনার টিকা নেওয়ার দৃশ্য নিজে থেকেই কাউকে দেখাতে চাননি। তিনি আরও বলেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প করোনায় সংক্রমিত হয়ে যখন হাসপাতালে ছিলেন, তখনো তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় থাকার কোনো ছবি বা ভিডিও প্রকাশ করেননি। তিনি স্বাস্থ্য সম্পর্কিত কোনো বিষয় প্রকাশ করতে চান না। এ ব্যাপারে তিনি খুবই কঠোর।

তবে ট্রাম্পের মেয়ে ইভানকা ট্রাম্প ও প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স ও তাঁর স্ত্রী কারেন পেন্সসহ অন্যরা প্রকাশ্যে করোনার টিকা নিয়েছেন। কেবল ট্রাম্প ও মেলানিয়ার টিকা নেওয়ার কোনো প্রমাণ এখনো পাওয়া যায়নি।

শুরু থেকে মহামারি পরিস্থিতি মোকাবিলাকে পাত্তা না দেওয়া এবং নানা বিতর্কিত মন্তব্য করে সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। মাস্ক ও লকডাউনবিরোধী অবস্থান নিয়ে বিতর্ক তৈরি করেন তিনি।

করোনাভাইরাসের উৎপত্তি নিয়ে চীনের দিকে বারবার আঙুল তুলে বেইজিংয়ের সঙ্গেও দ্বন্দ্বে জড়িয়েছিলেন। গত নভেম্বরে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটপ্রার্থী বাইডেনের কাছে ট্রাম্পের হারের অন্যতম কারণ হিসেবে দেখা হয় করোনা পরিস্থিতি নিয়ে তাঁর ব্যর্থতাকে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন