default-image

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিপক্ষে জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের চলমান তদন্ত নতুন মোড় নিয়েছে। গত ৩ নভেম্বর অনুষ্ঠিত জাতীয় নির্বাচনের ফল পাল্টে দিতে দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাকে সরাসরি ফোন করেছিলেন তিনি। ট্রাম্পের এমন একটি ফোনকলের রেকর্ড ফাঁস হয়েছে।

জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যম দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল নতুন ওই অডিও বার্তা নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জর্জিয়ার ডাকযোগে পাওয়া

ভোট নিয়ে তদন্তের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাকে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সরাসরি ফোন করেছিলেন। ফ্রান্সিস ওয়াটসন নামের ওই তদন্ত কর্মকর্তাকে ছয় মিনিটের ফোন কলে ট্রাম্প জর্জিয়ার ডাক ভোটে জালিয়াতি খুঁজে পাওয়ার কথা বলেছেন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ট্রাম্প বলেছেন, জর্জিয়ার ভোটে তিনি জয়ী হয়েছেন। জো বাইডেন জয়ী হওয়ার ফল আসলেও ট্রাম্প বলেছেন, জর্জিয়ায় খারাপ কিছু ঘটেছে। তিনি কিছুতেই হারতে পারেন না। তদন্ত কর্মকর্তাকে পুরোনো স্বাক্ষরের সঙ্গে প্রতিটি ভোটদাতার স্বাক্ষর মিলিয়ে দেখার অনুরোধ করতে থাকেন।

বিজ্ঞাপন

ট্রাম্প ওয়াটসনকে বলেছেন, জাল ভোট আবিষ্কার করে; তাঁর ভাষায়, সঠিক উত্তর বের করে আনলে প্রশংসিত হবেন ফ্রান্সিস ওয়াটসন।

রাজ্য পর্যায়ের একজন নির্বাচন তদন্ত কর্মকর্তা সরাসরি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ফোন কল পেয়ে হতভম্ব হয়ে পড়েন। বিনয়ের সঙ্গে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বলেন, ‘আমি জানি আপনি খুবই ব্যস্ত মানুষ, খুবই গুরুত্বপূর্ণ মানুষ। আমাকে ফোন করেছেন দেখে আমি বিস্মিত হয়েছি।’

ফ্রান্সিস ওয়াটসন ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে জানিয়েছেন, তখনকার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বারবার বলেছেন, দেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ কাজ করছেন। জর্জিয়ার ফুলটন কাউন্টিতে জো বাইডেন সর্বাধিক ভোট পেয়েছিলেন। ফুলটন কাউন্টির ডাকে আসা ব্যালট পেপারে তল্লাশি করে জাল ভোট খুঁজে পাওয়ার জন্য বলতে থাকেন ট্রাম্প। জালিয়াতির কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য না দিয়েই ট্রাম্প জাল ভোট খুঁজে পাওয়ার জন্য চাপ দিতে থাকেন।

ফ্রান্সিস ওয়াটসন ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে বলেছেন, তিনি ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিশ্চিত করেছেন, তিনি ও তাঁর তদন্ত দল পাওয়া তথ্যের ওপর প্রকৃত সত্য খুঁজে বের করার জন্যই কাজ করছেন।

গত জানুয়ারিতে জর্জিয়ার সেক্রেটারি অব স্টেট ব্র্যাড রাফেন্সপার্জারকে হোয়াইট হাউস থেকে ভিন্ন এক ফোন কলে তাঁর জন্য ভোট খুঁজে পাওয়ার কথা বলেন। মাত্র ১১ হাজার বেশি ভোট পেলেই ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেনের চেয়ে তাঁর ভোট বেশি হবে বলে তিনি ওই পরিমাণ ভোট বেশি পাওয়ার জন্য চাপ দিতে থাকেন। ট্রাম্পের এমন ফোন কলের বিষয়টি নিয়ে ওয়াশিংটন পোস্ট পত্রিকায় প্রথম সংবাদ প্রকাশিত হয়। এতে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে নিন্দার মুখে পড়েন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

গত ৩ নভেম্বরের নির্বাচনে তিনি হেরেছেন বলে এখনো মনে করেন না ডোনাল্ড ট্রাম্প। ২০ জানুয়ারি ক্ষমতা থেকে বিদায় হওয়ার পর তাঁর বিরুদ্ধে জর্জিয়া রাজ্যে তদন্ত শুরু হয়েছে। নির্বাচনের ফল পাল্টে দেওয়ার জন্য চেষ্টা করেছেন এবং এ ধরনের চেষ্টা করা অপরাধ।

জর্জিয়ার নির্বাচন অফিস বিষয়টি নিয়ে এখনো তদন্ত করছে। এ তদন্তে নতুন করে ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে ফাঁস হওয়া ফোন কলের অডিও রেকর্ড গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন