বিজ্ঞাপন

সমালোচকেরা বলছেন, বেকার ব্যক্তিদের সপ্তাহে ৩০০ ডলারের প্রণোদনা দেওয়ার ফলে লোকজন কর্মবিমুখ হয়ে উঠেছে। অনেকেই কাজকর্মে যেতে উৎসাহী নয় বা কাজকর্ম খোঁজার তাড়না বোধ করছে না। বহু কর্মজীবী ন্যূনতম মজুরিতে সপ্তাহে ৩০ থেকে ৪০ ঘণ্টা কাজ করে যা মজুরি পায়, ঘরে বসে বেকারভাতা হিসেবে তার চেয়ে বেশি অর্থ পাচ্ছে। ফলে, মানুষ কাজকর্মের প্রতি অনাগ্রহী হয়ে উঠেছে বলে সমালোচকেরা বলছেন।

১০ মে প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেন, বেকার ব্যক্তিদের সপ্তাহে অতিরিক্ত ৩০০ ডলার করে দেওয়ার ফলে তারা কাজে অনীহ হয়ে উঠেছে—এমন প্রমাণ তাদের হাতে নেই। তিনি যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে যেসব এলাকায় পরিস্থিতি বেশি নাজুক, সেসব এলাকায় বর্ধিত প্রণোদনা দেওয়ার ঘোষণা দেন। এবার কর্মজীবীদের সরাসরি নগদ প্রণোদনা না দিয়ে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে প্রণোদনা দেওয়া হবে। যেসব প্রতিষ্ঠান বেশি কর্মজীবীর কর্মসংস্থান করবে, তাদের জন্য প্রণোদনা বেশি দেওয়া হবে বলে প্রেসিডেন্ট বাইডেন ঘোষণা দিয়েছেন।

প্রেসিডেন্ট বাইডেনের ১ দশমিক ৯ ট্রিলিয়ন ডলারের করোনা রিলিফের অর্থ থেকে রাজ্যপর্যায়ে এবং স্থানীয় পৌরসভাগুলোর জন্য এখন প্রণোদনা বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। রেস্টুরেন্ট, পানশালাসহ অন্যান্য ক্ষুদ্র ব্যবসার জন্য প্রণোদনা বা সহজ শর্তে ঋণ দেওয়া হচ্ছে। স্থানীয় পর্যায়ে চাইল্ড কেয়ার প্রতিষ্ঠানগুলোকে অনুদান দেওয়া হচ্ছে। কর্মজীবী নারীদের কাজে ফেরাতে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

রাজ্য ও স্থানীয় সরকারগুলোকে দেওয়া নতুন প্রণোদনার অর্থের ব্যবহারে স্থানীয় পর্যায়ে ব্যাপক স্বাধীনতা দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি এলাকা বা নগরের সমস্যা আলাদা। স্থানীয় বিবেচনায় কর্মসংস্থান বৃদ্ধিসহ সংকটে পড়া ব্যবসা-বাণিজ্য বা অন্যান্য প্রতিষ্ঠানকে সাহায্যের ব্যাপারে স্থানীয় রাজ্য বা নগর সরকার অনেকটাই স্বাধীনভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারবে বলে ট্রেজারি সেক্রেটারি জেনেথ ইয়েলেন বলেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রে জাতীয়ভাবে এখনো বেকারত্বের হার ৮ শতাংশের কাছাকাছি হলেও নগরকেন্দ্রের বাইরে কাজের জন্য কর্মী পাওয়া যাচ্ছে না—এমনটিই বলছে অনেক প্রতিষ্ঠান। করোনার আগের মজুরিতে এখন অনেকেই আর কাজ করতে আগ্রহী নয়। বিভিন্ন উৎপাদন কারখানা ও প্রতিষ্ঠানে কাজে যোগ দিলেই বোনাস দেওয়া হচ্ছে। প্রায় প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে কাজের লোক আবশ্যক বলে নোটিশ ঝোলানো রয়েছে। এরপরও বেকারত্ব দ্রুত না কমাকে সমস্যা হিসেবে দেখা হচ্ছে।

যেসব প্রতিষ্ঠান ফেডারেল অর্থ সহযোগিতা গ্রহণ করবে, তাঁরা কর্মজীবীদের উচ্চ মজুরিতে কাজে নিয়োগ দেবে বলে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন। তিনি বলেন, কর্মজীবীদের জন্য নিরাপদ কর্মক্ষেত্র নিশ্চিত করা ও ভ্যাকসিন গ্রহণে উৎসাহ দেওয়ার মাধ্যমে পরিস্থিতির দ্রুত উন্নতি হবে এবং কাজের জন্য কর্মীর কোনো অভাব হবে না।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন