default-image

করোনাভাইরাসে মৃত্যুকে চিকিৎসকেরা ফুলিয়ে–ফাঁপিয়ে বলছেন বলে অভিযোগ তুলেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি বলছেন, ‘করোনায় কেউ মারা গেলে চিকিৎসকেরা বেশি অর্থ পেয়ে থাকেন। তাঁরা খুবই স্মার্ট। এ কারণেই সবাই কোভিডে মারা যাবে বলে তাঁরা বলতে ভালোবাসেন।’

৩০ অক্টোবর মিশিগানের এক নির্বাচনী সমাবেশে বক্তৃতায় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এ কথা বলেন।

কোভিড-১৯–এর কারণে মৃত্যু নিয়ে চিকিৎসকদের ফুলিয়ে–ফাঁপিয়ে বলার কোন প্রমাণ নেই কারও কাছে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিজে থেকেই এমনটি বলেছেন বলে বার্তা সংস্থা সিএনএনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যেদিন এমন কথা বলছিলেন, সেদিনেই যুক্তরাষ্ট্রে ৯০ হাজারের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে বলে খবর বেরিয়েছে। একদিনে এমন সংক্রমণ আগে কখনো হয়নি। একই দিনে করোনায় যুক্তরাষ্ট্রে মারা গেছে ৯২৯ জন মানুষ।

শতাব্দীর ভয়াবহতম এই মহামারির সঙ্গে লড়াই করছে যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ। সারা বিশ্বে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে নিজের নির্বাচনকে নির্বিঘ্ন করতে ট্রাম্প করোনাভাইরাস নিয়ে শুরু থেকেই নানা কথা বলে আসছেন। তাঁর এসব কথার মধ্যে চিকিৎসকের ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে বলার কথাটি নতুন সংযোজন হিসেবে দেখা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

গত মার্চ মাস থেকে ব্যাপক আকারে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর কোথাও কোথাও তা নিয়ন্ত্রণে আসে। গত মাসে শীত পড়তে শুরু করার সঙ্গে সঙ্গে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আসতে শুরু করে। নতুন নতুন এলাকায় সংক্রমণ ঘটছে। সাউথ ডাকোটা এবং ওয়াইওমিং রাজ্যে গত শুক্রবারে পর্যন্ত সর্বোচ্চ মৃত্যুর কথা জানানো হয়েছে।

এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে দুই লাখ ২৯ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। প্রতিদিন মৃত্যুর তালিকায় গড়ে এক হাজার মানুষের নাম যুক্ত হচ্ছে।

আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের নাম উল্লেখ না করে দ্রুত তাঁর বক্তব্যের প্রতিবাদে বিবৃতি দিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, চিকিৎসকেরা কোভিড-১৯–কে ফুলিয়ে–ফাঁপিয়ে বলছে, এমন ধারণা সম্পূর্ণ বিভ্রান্তিকর ও বিদ্বেষমূলক।

অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট সুজান বেইলি লিখিত বিবৃতিতে বলেছেন, মহামারির এই সময়ে চিকিৎসক, নার্সসহ সামনের সারির স্বাস্থ্যসেবীরা তাদের জীবন ও স্বাস্থ্যের ঝুঁকি নিয়ে পরিস্থিতি মোকাবিলা করেছে।

নির্বাচনী সমাবেশে ট্রাম্প দাবি করেন, অন্যান্য দেশে করোনায় মৃত্যুর জন্য আগের শারীরিক কারণকে দায়ী করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রে অন্য কোনো রোগে মারা গেলেও কোভিড-১৯–এর কারণে মৃত্যু হয়েছে বলে বলা হচ্ছে। চিকিৎসকেরা কোভিড-১৯–কে পছন্দ করেন। কারণ, এতে অতিরিক্ত তহবিল

মন্তব্য পড়ুন 0