default-image

ওয়াশিংটন পোস্ট পত্রিকার ভুল সংশোধনের জের ধরে আবার খেপেছেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। প্রতিষ্ঠিত সব সংবাদমাধ্যমের ভুল ত্রুটিগুলো শুধু একদিকে অর্থাৎ তাঁর বিপক্ষে যায় বলে তিনি উল্লেখ করেছেন। এসব সংবাদমাধ্যমকে এখন সংবাদ প্রতিষ্ঠান না বলে রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান বলেই বিবেচনা করা উচিত বলে মনে করেন তিনি।

বিখ্যাত মার্কিন পত্রিকা দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট দুই মাস আগে করা একটি প্রতিবেদনের সংশোধনী দিয়ে তার ব্যাখ্যা দিয়েছে। জর্জিয়া রাজ্যের প্রধান নির্বাচন তদন্তকারী ফ্রান্সিস ওয়াটসনের সঙ্গে ট্রাম্পের ফোনকলের কথোপকথনের বিবরণী ভুলভাবে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছিল।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, জাল ভোট খুঁজে বের করতে ফ্রান্সিস ওয়াটসনকে টেলিফোনে বলেছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। বিগত জানুয়ারিতে ওয়াশিংটন পোস্টে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, ট্রাম্প তদন্ত কর্মকর্তাকে বলেছিলেন, তিনি জাল ভোট খুঁজে বের করতে পারলে জাতীয় বীরে পরিণত হবেন।

জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের সেক্রেটারি অফ স্টেট এখন ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে ফ্রান্সিস ওয়াটসনের ফোনকলের অডিও অবমুক্ত করেছেন। অডিও রেকর্ড যাচাই করে ওয়াশিংটন পোস্ট জানুয়ারি মাসে করা সংবাদটির সংশোধনী দিয়ে বলেছে, তখন সূত্রের মাধ্যমে পাওয়া তথ্যের ওপর ভিত্তি করে প্রতিবেদনটি করা হয়েছিল।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের কথা যেভাবে প্রথমে প্রতিবেদনে বর্ণনা করা হয়েছিল, আসলে ট্রাম্প ঠিক সেভাবে বলেননি বলে ওয়াশিংটন পোস্ট তাদের এখনকার সংশোধনীতে জানিয়েছে।

এমনিতেই ক্ষমতার চার বছরে মার্কিন প্রধান প্রধান সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে ডোনাল্ড ট্রাম্পের সম্পর্ক কোনো সময়েই ভালো ছিল না। ওয়াশিংটন পোস্ট তাদের সংবাদের সংশোধনী আনার পর ক্ষোভ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন ট্রাম্প। এতে তিনি বলেছেন, প্রাতিষ্ঠানিক গণমাধ্যমগুলো সব সময় তাদের ভুল–ত্রুটি এবং মিথ্যাচার একদিকেই করে থাকে। তাঁর ও রিপাবলিকান দলের বিপক্ষেই মিডিয়াগুলো তাদের ত্রুটি–বিচ্যুতি করে থাকে। সর্বশেষ ঘটনাই প্রমাণ করে, এসব সংবাদমাধ্যমকে এখন আর সংবাদের প্রতিষ্ঠান নয়, রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গণ্য করা উচিত।

বিজ্ঞাপন

ডোনাল্ড ট্রাম্প তাঁর বিবৃতিতে আবারও নির্বাচনে কারচুপি নিয়ে তাঁর পুরোনো দাবি তুলে ধরেছেন। জর্জিয়ার ফুলটন কাউন্টির ভোট নিয়ে একটি শক্তিশালী তদন্তকে এখনো তিনি স্বাগত জানাবেন বলে বলেছেন। ট্রাম্প মনে করেন, এমন তদন্তের ফলে জর্জিয়া রাজ্যের নির্বাচনের ফলাফল পুরোই পরিবর্তন হবে।

শুধু জর্জিয়া রাজ্যেই নয়, সুইং স্টেট হিসেবে পরিচিত রাজ্যগুলোতে ভোট জালিয়াতি হয়েছে বলে ট্রাম্প নির্বাচনের পর থেকেই অভিযোগ করে আসছেন। কারচুপির অভিযোগ নিয়ে তাঁর কোনো মামলা যুক্তরাষ্ট্রের কোনো আদালত গ্রহণ করেনি। ট্রাম্পের আইনজীবীরা নানা দৌড়ঝাঁপ করেও জালিয়াতির কোনো প্রমাণ উপস্থাপন করতে পারেননি।

সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও তাঁর সমর্থকেরা এখনো মনে করে, নির্বাচন কারচুপি হয়েছে। নির্বাচনে নিজের পরাজয় এখনো মেনে নেননি সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

জর্জিয়া রাজ্যের সেক্রেটারি অব স্টেট এবং নির্বাচনী কর্মকর্তাকে হোয়াইট হাউস থেকে ফোন করে ভোটের ফলাফল পাল্টানোর চেষ্টা করেছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ অভিযোগে জর্জিয়া রাজ্যে তাঁর বিরুদ্ধে একাধিক তদন্ত হচ্ছে।

গত জানুয়ারি মাসে ওয়াশিংটন পোস্ট প্রথম ট্রাম্পের ফোনকলের ব্যাপারে সংবাদ প্রকাশ করলে এ নিয়ে হইচই শুরু হয়। অন্যান্য মার্কিন গণমাধ্যমসহ আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমেও ওয়াশিংটন পোস্টের সূত্র ধরে সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছিল।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন