default-image

উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে মামলা গত বুধবার আরও জোরালো করেছে যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগ। অভিযোগপত্রে সংযোজন করা নতুন তথ্য–প্রমাণে বলা হয়েছে, তিনি হ্যাকার নিয়োগ করেছিলেন ও কম্পিউটারে অনধিকার প্রবেশের ষড়যন্ত্র এঁটেছিলেন। খবর এএফপি।

যুক্তরাষ্ট্রে জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে ১৮টি ফৌজদারি অভিযোগ আনা হয়েছে। নতুন ওই তথ্য–প্রমাণে অভিযোগের এই সংখ্যায় কিছু যোগ হবে না, তবে বর্তমান অভিযোগগুলো জোরদার করবে।

নতুন তথ্য–প্রমাণে যেসব অভিযোগ করা হয়েছে, তার একটি হলো কম্পিউটার হ্যাকিংয়ে যুক্ত প্রতিষ্ঠান লালজসেকের (লালজ সিকিউরিটি) কয়েকজন কর্মী ও অজ্ঞাতনামা আরও কয়েকটি হ্যাকিং প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে অ্যাসাঞ্জ ষড়যন্ত্র আঁটেন। বিচার বিভাগের এক বিবৃতিতে আরও অভিযোগ করা হয়, ন্যাটোভুক্ত দেশগুলোর সরকারি কম্পিউটার ব্যবস্থায় অননুমোদিত প্রবেশ করেন উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা।

আফগানিস্তান ও ইরাকে মার্কিন সামরিক বাহিনীর অভিযান–সম্পর্কিত অসংখ্য গোপন সরকারি নথি ফাঁস করার অভিযোগে যুক্তরাষ্ট্রের গুপ্তচরবৃত্তি আইন ২০১০–এর অধীন অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। ওয়াশিংটনের দাবি, ৪৮ বছর বয়সী অস্ট্রেলীয় নাগরিক অ্যাসাঞ্জ মার্কিন গোপন নথি বিশ্বজুড়ে ফাঁস করার আগে মার্কিন গোয়েন্দা বিশ্লেষক চেলসি ম্যানিংয়ের সহায়তা নেন।

যুক্তরাষ্ট্রের এই পদক্ষেপের বিষয়ে বুধবার টুইটারে বার্তা পোস্ট করেছে উইকিলিকস। তাতে বলা হয়, অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে নতুন এ অভিযোগ মার্কিন বিচার বিভাগের পক্ষ থেকে জনগণকে প্রতারিত করারই আরেকটি পীড়াদায়ক চেষ্টা।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন