default-image

ইউনিভার্সিটি অব আলাবামা অ্যাট বার্মিংহামের কম্পিউটার বিজ্ঞানের অধ্যাপক ড. রাগিব হাসানের লেখা বই ‘আমেরিকায় উচ্চশিক্ষা’ প্রকাশিত হয়েছে। এটি তাঁর লেখা সপ্তম বই। এই বইটি প্রকাশ করেছে আদর্শ প্রকাশনী। এবারের অমর একুশে গ্রন্থমেলায় বইটি পাওয়া যাচ্ছে।

সুন্দর ভবিষ্যতের প্রত্যাশায় মাস্টার্স ও পিএইচডি পর্যায়ে উচ্চতর শিক্ষা ও গবেষণার জন্য প্রায় প্রত্যেক শিক্ষার্থীরই ইচ্ছা থাকে বাইরে পাড়ি জমানোর। তার মধ্যে শিক্ষা ও গবেষণার দিক দিয়ে সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বেশির ভাগই যুক্তরাষ্ট্রে বলে অনেকেরই পছন্দের তালিকায় প্রথমেই আছে এ দেশ। কিন্তু চাইলেই কি যুক্তরাষ্ট্রে আসা যায়? এর জন্য ভিসা পাওয়া থেকে শুরু করে পাড়ি দিতে হয় ভর্তি সংক্রান্ত নানা প্রক্রিয়া। সব প্রক্রিয়া সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে পারলে তবেই না দেখা মেলে প্রত্যাশিত সোনার হরিণের। কিন্তু সঠিক তথ্যের অভাবে বাংলাদেশি মেধাবী শিক্ষার্থীরা উচ্চশিক্ষার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে আসার যথাযথ সুযোগ পাচ্ছে না। সে জন্য উচ্চশিক্ষার জন্য এ দেশে পড়তে আসা অন্যান্য এশীয় দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের সংখ্যা খুবই কম।

রাগিব হাসান দীর্ঘদিন থেকে শিক্ষকতার সঙ্গে জড়িত। বাংলা ভাষায় প্রথম শিক্ষা ওয়েবসাইট করার সঙ্গেও তিনি জড়িত ছিলেন। একুশ শতকের প্রথম দশকে যুক্তরাষ্ট্রে কম্পিউটার বিজ্ঞানের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর একটি ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয় অ্যাট আরাবানা-শ্যাম্পেইনে পিএইচডির মাধ্যমে শিক্ষার্থী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে তাঁর পথচলা শুরু। এরপর দীর্ঘদিন ধরে এ দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণা, অধ্যাপনা ও ভর্তি প্রক্রিয়ার সঙ্গে নিজে সরাসরিভাবে যুক্ত থাকায় এখানকার শিক্ষাব্যবস্থা সম্পর্কে বেশ ভালো অভিজ্ঞতা রয়েছে তাঁর।

বিজ্ঞাপন

দীর্ঘ প্রবাস জীবনেও বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের জন্য কিছু করার তাড়না সব সময় তাঁর মধ্যে কাজ করে। দীর্ঘদিন ধরে ব্যক্তিগতভাবে ও ফেসবুকসহ অনলাইনে বিভিন্ন মাধ্যমে উচ্চশিক্ষার জন্য শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় বিভিন্ন তথ্য ও দিক-নির্দেশনা দিয়ে আসছেন, যা থেকে উপকৃত হয়েছে অসংখ্য শিক্ষার্থী। উচ্চশিক্ষার জন্য প্রত্যাশী শিক্ষার্থীরা যাতে শুধু প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনা ও জ্ঞানের অভাবে পিছিয়ে না পড়ে, সেই পরিকল্পনা থেকেই যুক্তরাষ্ট্রে উচ্চশিক্ষার খুঁটিনাটি নিয়ে তিনি ‘আমেরিকায় উচ্চশিক্ষা’ বইটি লিখেছেন।

‘আমেরিকায় উচ্চশিক্ষা’ বইটি চার ভাগে ভাগ করা হয়েছে, যার প্রথম ভাগে পাঠক উচ্চশিক্ষার গুরুত্ব ও যুক্তরাষ্ট্রে উচ্চশিক্ষা ব্যবস্থা কী রকম এবং কেন তা বিশ্বসেরা—তার একটা ধারণা পাবে। উচ্চশিক্ষার জন্য কখন থেকে এবং কীভাবে প্রস্তুতি শুরু করা উচিত, বাংলাদেশি বেশির ভাগ শিক্ষার্থীদেরই এ সম্পর্কে ধারণা খুবই কম এবং তারা দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভোগে। সঠিক সময়ে প্রস্তুতি শুরু না করায় অনেকেই পিছিয়ে পড়ে মনোবল হারিয়ে পড়ে। তা ছাড়া উচ্চশিক্ষার জন্য নানা জটিল আবেদনপ্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়। যেমন—নিজের প্রোফাইল সঠিকভাবে সাজানো, বিশ্ববিদ্যালয় নির্বাচন করা, অধ্যাপকদের সঙ্গে যোগাযোগ করা ও তাদের সুষ্ঠুভাবে ইমেইল করা, স্টেটমেন্ট অব পারপাস লেখা, রিকমেন্ডেশন লেটার বা সুপারিশপত্র জোগাড় করা এসবের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ভর্তির সুযোগ পাওয়া অনেকাংশে নির্ভর করে।

default-image

কিন্তু দিক নির্দেশনার অভাবে অনেক বাংলাদেশি শিক্ষার্থী সঠিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয় নির্বাচন করতে পারে না, যত্রতত্রভাবে অধ্যাপকদের ইমেইল করে। এ ছাড়া একই ইমেইল ও স্টেটমেন্ট অব পারপাস একাধিক অধ্যাপকের কাছে পাঠিয়ে দেওয়াসহ আরও অনেক শিশুসুলভ ভুল করে থাকে; যে কারণে তাদের ভর্তির আবেদন গ্রহণ করার সম্ভাবনা কমে যায়। ‘আমেরিকায় উচ্চশিক্ষা’ বইয়ের দ্বিতীয় ভাগে রাগিব হাসান এসব বিষয়ের ওপর সহজ ও সাবলীল ভাষায় বিষদভাবে আলোচনা করেছেন, যা শিক্ষার্থীদের দিক নির্দেশনায় সহায়তায় করবে। উচ্চশিক্ষায় যুক্তরাষ্ট্রে ভর্তির সুযোগ পাওয়ার পর মাস্টার্স ও পিএইচডি পর্যায়ে সফলভাবে পড়াশোনা ও গবেষণা করার কৌশল নিয়ে বইটির তৃতীয় ভাগে আলোচনা করা হয়েছে। ভালোভাবে পড়াশোনা শেষ করার পর সবারই ইচ্ছা থাকে ভালো চাকরি ও ভালো ক্যারিয়ার গড়ার। বইটির চতুর্থ অংশে এ সংক্রান্ত ধারণা পাওয়া যাবে।

অধ্যাপক রাগিব হাসানের বিশ্বাস ‘আমেরিকায় উচ্চশিক্ষা’ বইটি বাংলাদেশ ও ইতিমধ্যে পারিবারিক বা অন্যান্য ভিসায় যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত তরুণ শিক্ষার্থীদের কাজে আসবে। এই বইটিতে দেখানো পথ ধরে শিক্ষার্থীদের মাস্টার্স ও পিএইচডি পর্যায়ে গবেষণা ও শিক্ষার জগতে প্রবেশ সহজ হবে। লেখাপড়া, গবেষণা ও পেশাগতভাবে সাফল্য অর্জনে এই বই কাজে আসবে এবং একদিন যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণ বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের পদচারনায় মুখরিত হয়ে উঠবে বলে তাঁর বিশ্বাস।

বিজ্ঞাপন
অভিমত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন