default-image

যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনা প্রতিরোধক টিকা দেওয়া কর্মসূচি চালু হয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, কোভিড-১৯ মহামারি থামাতে এই টিকা বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। তবে টিকা নিলেও আপনার মুখ থেকে মাস্ক খোলার সময় এখনো আসেনি এবং আদৌ সেই সময় আসবে কিনা, তা নিয়ে বিশেষজ্ঞরাও অনিশ্চিত।

ফাইজার ও মডার্নার টিকাগুলো কোভিড-১৯ প্রতিরোধে ৯০ শতাংশের বেশি কার্যকর। তবে টিকা নিলেও আপনি এখনো করোনা ছড়াতে পারেন। করোনার বিস্তার ঠেকাতে এই টিকাগুলো পুরোপুরি নিরাপদ নয়। তাই বিশেষজ্ঞরা বলছেন, টিকা নিলেও সবাইকে মাস্ক পরতে হবে।

করোনার নতুন নতুন ধরন ইতিমধ্যে বিশেষজ্ঞরা চিহ্নিত করেছে, যেগুলো বর্তমান করোনাভাইরাসের স্ট্রেইনের থেকে বেশ ভয়ানক ও সহজে ছড়ায়। আপনি করোনার টিকা নিলেও নতুন স্ট্রেইনের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারেন। তাই মাস্ক সর্বক্ষণ না পরলে আপনি অজান্তে সেই নতুন স্ট্রেইনের দ্বারা আক্রান্ত হয়ে অন্যের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে পারেন।

বিজ্ঞাপন

ইউসিএলএ ফিল্ডিং স্কুল অব পাবলিক হেলথের মহামারিবিদ্যার অধ্যাপক ড. অ্যান রিমন বলেন, ‘করোনার টিকা ব্যাপকভাবে বিতরণ করতে এবং ব্যাপক হারে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অর্জন করতে সময় লাগবে এবং এর কোনো নিশ্চয়তা নেই। তাই মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা করোনা বিস্তার রোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

আমাদের মনে রাখতে হবে যে, সমাজের সব ব্যক্তি আবার করোনা টিকা নানা কারণে নাও নিতে পারে। আবার অনেকে নানা স্বাস্থ্য সমস্যার কারণে বাধ্য হয়ে করোনা টিকা নিতে পারবে না। গর্ভবতী বা বুকের দুধ খাওয়ানো মায়েদের জন্য টিকা নেওয়া এখনো নিরাপদ নয়। কারণ, বিজ্ঞানীরা এখনো গর্ভবতী বা বুকের দুধ খাওয়ানো মায়েদের জন্য টিকার কার্যকারিতা সম্পর্কে বিশদ ধারণা পাননি। তাহলে আপনার আশপাশে কে টিকা নিয়েছে বা কে টিকা নেয়নি, তা বোঝা মুশকিল। তাই মাস্ক না পরলে করোনা নতুন নতুন স্ট্রেইনে জনগণ আক্রান্ত হতে পারে।

এদিকে স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমিউনোলজিস্ট মাইকেল তাল বলেন, বর্তমানে প্রত্যেকের মাস্কের নিয়মাবলি অনুসরণ করা একটি কঠিন কাজ ছিল। এখন আপনি টিকা পেয়ে যদি মাস্ক না পরেন, তাহলে অন্যেরা টিকা না পেয়েও মাস্ক পরবে না। তারা হয়তো ভাববে—অন্যদের মুখে কোনো মাস্ক নেই, তাহলে আমি মুখে মাস্ক পরব কেন? এমনটি হলে তা যেকোনো দেশ ও সমাজের জন্য ভীষণ ক্ষতির কারণ হতে পারে।

তাহলে আপনি মাস্ক খুলে করোনা পূর্ববর্তী সময়ের মতো কি আবার চলাফেরা করতে পারবেন? বিশেষজ্ঞদের মতে, মাস্ক পরা হয়তো আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অংশে পরিণত হবে। আগের মতো আর কোনো দিন হয়তো আমরা মাস্ক না পরে বাইরে নিরাপদে চলাচল করতে পারব না। করোনাভাইরাসের টিকাও প্রতি বছর নেওয়া আবশ্যক হতে পারে। করোনাভাইরাস আমাদের জীবন থেকে যাচ্ছে না এবং আগামী দিনগুলো করোনাভাইরাস নিয়ে যাপন করতে হবে। তাই সবার মাস্ক পরা আবশ্যক।

বিজ্ঞাপন
অভিমত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন