করোনা মহামারির কারণে ২০২০ সাল সবার জন্য স্মরণীয় হয়ে থাকবে। ২০২০ সালের শেষের দিকে এসে আগামী বছর আয়কর দাখিলের পরিকল্পনায় সুবিধা দেবে। কেয়ার অ্যাক্টে ২০২০ সালের আয়কর প্রদানের ক্ষেত্রে বাড়তি কিছু সুবিধা দেওয়া হয়েছে। আয়কর দাখিলের সঠিক পরিকল্পনা আগামী বছরের আয়কর দাখিল সাশ্রয়ী করবে। বছর শেষ হওয়ার আগেই পরিকল্পনা করলে অনেক সুবিধা পাওয়া যায়। ট্যাক্স পরিকল্পনা আসলে কি? যাদের আয় বেশি, তাদের কর কমিয়ে আনা এবং যাদের আয় কম, তাদের ভালো রিফান্ড পেতে সাহায্য করা এবং বিভিন্ন বাদযোগ্য খরচ বাদ দেওয়া। ২০২০ সালের ট্যাক্স পরিকল্পনায় আরও কিছু বিষয় বিবেচনায় নিয়ে পরিকল্পনা করলে আপনার ট্যাক্স রিটার্ন সাশ্রয়ী হবে। আজ ছাপা হল দ্বিতীয় কিস্তি

৪০১ (কে) কন্ট্রিবিউশন

অবসরকালীন সুবিধা পরিকল্পনার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় হলো ৪০১ (কে) কন্ট্রিবিউশন। এই পরিকল্পনা সঞ্চয় ও বিনিয়োগের মাধ্যমে অবসরকালীন সুন্দর ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করা যায়। আপনার চাকরিদাতার ৪০১ (কে) প্ল্যান থাকলে, আপনি বেতন-ভাতা থেকে সরাসরি একটি অংশ ৪০১ (কে) প্ল্যানে স্থানান্তরিত করতে পারেন। এ ক্ষেত্রে পে-রুল ট্যাক্স প্রদান করতে হবে না এবং আইআরএস ৪০১ (কে) স্থানান্তরিত অংশের ক্ষেত্রে ট্যাক্স ধার্য করে না। ২০২০ সালে বয়স পঞ্চাশের নিচে হলে ১৯ হাজার ৫০০ ডলার পর্যন্ত ও পঞ্চাশের ঊর্ধ্বে হলে ২৬ হাজার ডলার পর্যন্ত ৪০১ (কে) প্ল্যানে স্থানান্তর করা যাবে। স্থানান্তর করা অর্থ বিনিয়োগ করলে আয়ের ওপর ট্যাক্স দিতে হয় না। নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত ৪০১ (কে) প্ল্যানে জমা রাখতে হবে এবং পরে অবসরকালীন সময়ে টাকা উত্তোলন করতে পারবেন। ৪০১ (কে) প্ল্যানের বিপরীতে অনেক সময় ঋণ সুবিধা পাওয়া যায়। আপনার চাকরিদাতার যদি ৪০১ (কে) প্ল্যান থাকে, আপনি অবশ্যই তার গ্রহণ করবেন।

বিজ্ঞাপন

আইআরএ কন্ট্রিবিউশন

ব্যক্তিগত অবসরকালীন হিসাব স্থানান্তরের মাধ্যমে ট্যাক্স সুবিধা পাওয়া যাব। দুই ধরনের আইআরএ রয়েছে। ট্র্যাডিশনাল আইআরএ ও রথ আইআরএ। ট্র্যাডিশনাল আইআরএ বয়স ৫০ বছরের কম হলে ৬ হাজার ডলার পর্যন্ত এবং পঞ্চাশের বেশি হলে ৭ হাজার পর্যন্ত স্থানান্তরিত করা যাবে। ট্র্যাডিশনাল আইআরএ এই অংশের ওপর আইআরএস ট্যাক্স ধার্য করবে না, এটি ট্যাক্স কমাতে সহযোগিতা করে।

আয়কর দিয়ে রথ আইআরএ স্থানান্তর করা যায়। এই স্থানান্তরকৃত অর্থ বিনিয়োগ করলে লাভের ওপর কোন কর দিতে হবে না। রথ আইআরএতে বয়স ৫০–এর কম হলে ৬ হাজার ডলার ও বয়স ৫০–এর বেশি হলে ৭ হাজার ডলার পর্যন্ত স্থানান্তর করা যাবে।

৫২৯ প্ল্যান

যাদের আয় বেশি, তারা তাদের সন্তানদের জন্য ৫২৯ শিক্ষা পরিকল্পনা স্থানান্তর করতে পারেন। এই স্থানান্তরের ক্ষেত্রে ফেডারেল ট্যাক্স সুবিধা পাওয়া যাবে না, কিন্তু স্টেটের সুবিধা পাওয়া যাবে। ভবিষ্যতে সন্তানদের জন্য কলেজ খরচ হিসেবে ব্যবহার করা যাবে।

ফ্লেক্সিবল স্পেন্ডিং অ্যাকাউন্ট

অনেক চাকরিদাতা ফ্লেক্সিবল স্পেন্ডিং অ্যাকাউন্টের সুবিধা দিয়ে থাকেন। অ্যাকাউন্টে সর্বোচ্চ ২ হাজার ৭৫০ ডলার পর্যন্ত স্থানান্তর করা যাবে। অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে মেট্রো কার্ড ক্রয়, কো-পেমেন্ট ইত্যাদি খরচ করা যাবে এবং যার জন্য কোন কর দিতে হবে না।

ডিপেনড্যান্ট কেয়ার এফএসএ

ডিপেনড্যান্ট কেয়ার ফ্লেক্সিবল স্পেন্ডিং অ্যাকাউন্ট এফএসএতে সর্বোচ্চ ৫০০ ডলার পর্যন্ত স্থানান্তর করা যাবে। ১৩ বছরের নিচে সন্তানদের জন্য এই হিসাবে স্থানান্তর করা যাবে। করমুক্ত এই অর্থ প্রি-স্কুল, সামার ক্যাম্প, আফটার স্কুল ইত্যাদির জন্য খরচ করা যাবে।

হেল্‌থ সেভিং অ্যাকাউন্ট

যাদের আয় বেশি, তারা হেলথ সঞ্চয়ী অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন। এই অ্যাকাউন্টে টাকা স্থানান্তর করলে ট্যাক্সের আওতায় আসবে না এবং পরবর্তীতে কোয়ালিফাইলড চিকিৎসা ব্যয় হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন।

আয়কর পরিকল্পনার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় ব্যাপার হলো, আয়–ব্যয় সঠিক হিসাব সংরক্ষণ করা। আপনার অ্যাকাউন্ট্যান্টের সঙ্গে পরামর্শ নিয়ে সঠিক পন্থায় সর্বোচ্চ ট্যাক্স রিফান্ড পাওয়ার সুবিধা নিতে পারে। আয় বেশি হলে বিভিন্ন প্ল্যান গ্রহণ করে আয়কর সাশ্রয়ী করতে পারেন। মনে রাখা জরুরি, আইআরএসের সঙ্গে কোন রকম মিথ্যা কিংবা তথ্য গোপন করে কোন ট্যাক্স ফাইল করবেন না, তাহলে আপনার জন্য বিভীষিকাময় এক ভবিষ্যৎ অপেক্ষা করবে। পরিকল্পনার মাধ্যমে সঠিকভাবে সঠিক তথ্য দিয়ে ট্যাক্স ফাইল করুন, নিরাপদ থাকুন ও ভবিষ্যৎ নিরাপদ রাখুন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0