‘হ্যামিলনের বাঁশিঅলা’ শিল্পীর সঙ্গে আড্ডা

বিজ্ঞাপন
default-image

‘আমি হ্যামিলনের সেই বাঁশিওয়ালা/ বাজাব বাঁশি সুরে সুরে/ তোমাকেই আসতে হবে/ যেখানেই থাকো যত দূরে।’ হ্যাঁ, এই গানটাই ছিল আমার সংগীত জীবনের টার্নিং পয়েন্ট। কথাটা শুভ্রদেবের। বাংলাদেশের সংগীতাঙ্গনের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র।

আধুনিক গানের শিল্পীদের মধ্যে শুভ্রদেবের মতো খুব কম গায়কই আছেন, যার এত বেশি হিট গান রয়েছে। মিলনে-বিরহে আমরা শুনি তাঁর গান। সেই শুভ্রদেব ৫ সেপ্টেম্বর এসেছিলেন প্রথম আলো উত্তর আমেরিকা অফিসে। কফি নিয়ে আড্ডায় বসলেন। শোনালেন তাঁর সংগীত জীবনের কথা। এ সময়ই তিনি বলেন, ‘আমি হ্যামিলনের সেই বাঁশিঅলা গানটি গাওয়ার পর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।

আলাপে প্রথম আলো উত্তর আমেরিকার নিয়মিত লেখক ও খ্যাতিমান গীতিকার ইশতিয়াক আহমেদ রূপুর লেখা গান গাওয়ার আগ্রহ ব্যক্ত করেন শুভ্রদেব। বিখ্যাত এই গায়ক বাংলাদেশের প্রথিতযশা সব গীতিকার ও সুরকারের কথা-সুরে গান গেয়েছেন। এর আগে বাংলাদেশের আরেক নামকরা সাংবাদিক শহীদুল আজমের লেখা গান করেন শুভ্র দেব বিশ্বকাপ ক্রিকেটে। ‘চার মারো, ছক্কা মারো’ গানটি বাংলাদেশের ক্রীড়াপ্রেমীদের মধ্যে আলোড়ন তুলেছিল।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শুভ্রদেব শুধু নামকরা গায়কই নন, খেলাধুলার সঙ্গেও যুক্ত। চাইলে ক্রিকেটার হতে পারতেন। ব্যাটে-বলে দারুণ সখ্য ছিল এক সময়। হতে পারতেন নায়কও। গত ৩৫ বছরের বেশি সময় ধরে তিনি বাংলা গানের শ্রোতা, বিশেষত নারীদের মধ্যে ভীষণ জনপ্রিয়। এত লম্বা সময় ধরে তাঁর চেহারায় কোনো পরিবর্তন হয়নি। এ এক বড় রহস্য। এই নিয়ে আড্ডায় প্রশ্ন উঠল। শুভ্রদেব বললেন, ‘আমি খুব নিয়ম মেনে চলি। জীবনে কখনো সিগারেট খাইনি। আমার বাসায় কোনো অ্যাশট্রে নেই। অ্যালকোহল কখনো স্পর্শ করিনি।’

শুভ্রদেবকে বলা হয় রোমান্টিক গানের শিল্পী। বিশেষ করে বিরহের গান তাঁর কণ্ঠে বেশি মানায়। তবে কি তিনি একাধিক প্রেমে ব্যর্থ হয়েছেন—আড্ডায় ওঠা এমন প্রশ্নের জবাবে স্মিত হেসে তিনি বলেন, ‘দেখুন আমি তো গান লিখি না। গান লেখেন গীতিকারেরা। প্রশ্নটা তাঁদের করলে ভালো হয়। তবে এটা ঠিক যে, আমার কণ্ঠে আবেগী গান ভালো আসে। কারণ, আমি বোঝার পর থেকে কিশোর কুমারের গানের ভক্ত। এমন অনেক গান আছে, যা লতা মঙ্গেশকরের কণ্ঠে হিট হয়নি, কিশোর কুমারের কণ্ঠে হয়েছে। আমিও কিশোর কুমারের মতো কণ্ঠে আবেগ আনার চেষ্টা করি।’ শুভ্র দেব এরপর কিশোর কুমারের গাওয়া শ্রুতিমধুর ‘নয়ন সরসি কেন ভেসেছে জলে/ কত কি রয়েছে লেখা কাজলে কাজলে’ গানটি গেয়ে শোনান।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শুভ্র দেব নাটকে অভিনয় করেছেন। ধারাবাহিক নাটক শুকতারায় তাঁর অভিনয় এখনো মনে পড়ে অনেকের। মডেলিং করেছেন পেপসির বিজ্ঞাপনে, যা ভারতে করেছেন আমির খান। এমটিভিতে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে গান করেছেন। তারপর করেছে ব্যান্ড দল মাইলস। বাংলাদেশে হাতে গোনা মানুষের একজন হলেন শুভ্র দেব, যিনি মাইকেল জ্যাকসনের সান্নিধ্যে আসতে পেরেছিলেন। নিজের ক্যারিয়ার নিয়ে শুভ্র দেব বলেন, ‘আমি কখনো সমসাময়িক শিল্পীদের প্রতিদ্বন্দ্বী মনে করিনি। নিজেকে বাংলাদেশের প্ল্যাটফর্মে সীমাবদ্ধ রাখিনি। গান করেছি বিশ্বময়।’

মিঠুন চক্রবর্তীর বিশেষ অনুরোধে ভারতীয় সিনেমা ‘ভাগ্যদেবতা’-এ গান করেছিলেন শুভ্র দেব। সেই গানটির কিছু অংশ গেয়ে শোনালেন আড্ডায়।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শুভ্রদেবের জন্ম সিলেটে। যদিও তাঁর কথা শুনে অনেকে বুঝতে পারেন না। কিন্তু শনিবারের আড্ডায় তিনি নিজ এলাকার অনেককে পেয়ে সিলেটী ভাষায় গল্প করা শুরু করেন। শুভ্র দেব ছাত্র হিসেবেও ছিলেন মেধাবী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রাণরসায়নে মাস্টার্স সম্পন্ন করেছেন।

কফি আড্ডার সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন প্রথম আলো উত্তর আমেরিকার আবাসিক সম্পাদক ইব্রাহীম চৌধুরী ও শ্রাবণী সিং। আড্ডায় শ্রাবণী সিং নির্মলেন্দু গুণের একটি কবিতা আবৃত্তি করেন। আড্ডা শেষে খাওয়া-দাওয়া ও ফটোসেশন হয়। প্রথম আলো উত্তর আমেরিকা পরিবারের সবাই উপস্থিত ছিলেন সেদিনের বিশেষ কফি আড্ডায়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন