হোম কেয়ারের কনজ্যুমার ডিরেক্টেড পারসোনাল অ্যাসিসটেন্স প্রোগ্রাম (সিডিপ্যাপ) বন্ধ হচ্ছে না।

সিডিপ্যাপ প্রোগ্রাম নিউইয়র্ক স্টেট হেলথের মাধ্যমে পরিচালিত হয়। নিউইয়র্কের বিপুলসংখ্যক বয়স্ক অভিবাসী এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে নানা রোগ কিংবা বার্ধক্যজনিত অসুস্থতায় সেবা নিয়ে আসছেন। করোনা পরিস্থিতিতে স্টেটের অর্থনৈতিক সংকটে এই প্রোগ্রামটি বন্ধ হওয়ার আশঙ্কা বেড়েছে। এটি বন্ধ হয়ে গেলে বিপুলসংখ্যক প্রবাসীসহ নিউইয়র্কবাসী বিপদে পড়ে যাবেন।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে নিউইয়র্কের অভিজ্ঞ হোম কেয়ার সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ইমিগ্রান্ট এলডার হোম কেয়ার এলএলসির চেয়ারম্যান ও সিইও গিয়াস আহমেদ বলেছেন, করোনা মহামারির সময়ে সিডিপ্যাপ প্রোগ্রামটি সিটি মেয়র ও গভর্নরের ব্যাপক প্রশংসা পেয়েছে। কারণ পরিবারের সদস্যরাই রোগীর সেবা দেওয়ায় করোনাকালীন কোনো ব্যাঘাত ঘটেনি। এই প্রোগ্রামের আওতায় রোগীকে পরিবারের সদস্য ও প্রতিবেশী বন্ধু-বান্ধব সেবা দেওয়ায় ইতিমধ্যেই এই সিডিপ্যাপ প্রোগ্রাম জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। তাই আমরা জেনেছি, হোম কেয়ারের ‘সিডিপ্যাপ’ প্রোগ্রাম বন্ধ হচ্ছে না। তবে সিডিপ্যাপের বাইরে পিসিএ বা এইচএইচএ প্রোগ্রামে করোনাকালীন অনেক রোগী সেবা পাননি।

default-image

এক প্রশ্নের জবাবে গিয়াস আহমেদ বলেন, সিডিপ্যাপের জন্য রোগীর বয়স কোনো বিষয় নয়। যেকোনো বয়সের রোগী সিডিপ্যাপ প্রোগ্রামে অন্তর্ভুক্ত হতে পারবে। কোনো অবস্থায়ই আইনবহির্ভূত পন্থায় অথবা কোনো হোম কেয়ার এজেন্সি কর্তৃক অসাধু প্রস্তাব বা সুযোগ-সুবিধা দেওয়া যাবে না।

এই প্রোগ্রামের বিস্তারিত জানাতে গিয়ে গিয়াস আহমেদ বলেন, রোগীকে অবশ্যই মেডিকেড থাকতে হবে এবং রোগীর সেবার প্রয়োজন তা প্রমাণ করতে হবে। রোগী তাঁর ইচ্ছামতো কেয়ার গিভার বা সেবা প্রদানকারী নিয়োগ দিতে পারবেন। যিনি সেবা দেবেন, সেই ব্যক্তি নিজের পরিবারের সদস্য, প্রতিবেশী বা বন্ধু হতে পারবে। তবে স্বামী-স্ত্রী একে অপরকে সেবা দিয়ে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন না।

বিজ্ঞাপন

গিয়াস আহমেদ নিজেদের প্রতিষ্ঠান ‘ইমিগ্রান্ট এলডার হোম কেয়ার এলএলসি সম্পর্কে বলেন, ২০১৬ সালে জ্যাকসন হাইটসে প্রতিষ্ঠার পর ধীরে ধীরে সুনামের সঙ্গে চার বছরে পাঁচটি শাখা বৃদ্ধি করতে পেরেছি। ব্রঙ্কসের পার্কচেস্টার, ওজোন পার্ক, লং আইল্যান্ডের ডিক্সহিলে ও আপ স্টেটের বাফেলোতে এই শাখা রয়েছে। এই সেবা এখন বাংলাদেশিদের মধ্যেই সীমিত নয়, আমরা সেবা দিচ্ছি ল্যাটিনো/স্প্যানিশ এবং আফ্রিকান-আমেরিকান কমিউনিটিতেও। যেসব ইমিগ্রান্ট এলডার হোম কেয়ারের সেবা গ্রহণ বা সেবা দান করেন, কারও কাছ থেকেই কোনো ফি চার্জ করা হয় না। বরং ঘণ্টায় তাঁদের ২১ ডলার করে পে করা হয়।

এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে ৯১৭-৭৪৪-৭৩০৮ এই নম্বরে যোগাযোগ করার জন্য তিনি আহ্বান জানিয়েছেন।

নিউইয়র্ক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন