default-image

প্রতি বছর অক্টোবর মাসকে নিউইয়র্কে স্তন ক্যানসার সচেতনতা মাস হিসাবে পালন করা হয়। কিন্তু চলতি বছর করোনা মহামারির কারণে বিকল্প ব্যবস্থার আয়োজন করেছে সংবাদমাধ্যম সিবিএস টেলিভিশন। করোনাকালে প্রতিটি নারীর স্তনে ক্যানসার রয়েছে কিনা, তার জন্য মেমোগ্রাম পরীক্ষা যেন ব্যাহত না হয়, সেই লক্ষ্যে নগরের কম সুবিধাপ্রাপ্ত নারীদের জন্য স্ক্যান ভ্যান নামের একটি ভ্রাম্যমাণ পরীক্ষাগার চালু করেছে প্রতিষ্ঠানটি। নগরের বিভিন্ন এলাকায় ২৪০ দিন এই ভ্রাম্যমাণ পরীক্ষাগারের মাধ্যমে সেবা প্রদান করা হবে।

প্রোজেক্ট রিনিউয়াল নামের এই মানবিক উদ্যোগের পরিচালক মেক্স গোমেজ জানান, নিউইয়র্কে চলতি বছরের বড় একটি সময় করোনা মহামারির কারণে লকডাউন ছিল। এ ছাড়া অনেকে ইনস্যুরেন্স জটিলতা, কেউ আবার অসচ্ছলতার কারণে ক্যানসার রোধে স্তন পরীক্ষা করতে পারছেন না। কিন্তু এ ক্ষেত্রে পিছিয়ে থাকলে চলবে না।

প্রোজেক্ট রিনিউয়ালের আরেক পরিচালক অ্যাঞ্জেলা বার্নসউইকের এক গবেষণা থেকে জানা যায়, নারীদের বর্ণভেদে স্তন ক্যানসারের রকমভেদ থাকায় সবার নির্দিষ্ট সময় পরপর মেমোগ্রাম পদ্ধতির মাধ্যমে স্তন পরীক্ষা করা খুবই জরুরি। এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, শ্বেতাঙ্গ নারীদের স্তন ক্যানসারের হার বেশি থাকলেও এতে মৃত্যুহার কৃষ্ণাঙ্গ নারীদের মধ্যে বেশি।

বিজ্ঞাপন

উদ্যোক্তারা জানান, মেমোগ্রাম না করানোর অন্যতম কারণ অর্থনৈতিক। এ ছাড়া অনেক নারী জানেন না কোন ইনস্যুরেন্স নিলে স্তন পরীক্ষার সুবিধা বিনা মূল্যে পাওয়া যায়। এটি নগরের প্রতিটি বয়স্ক নারীর নাগরিক অধিকার। তাই নারীদের নাগালে এমনকি দ্বারপ্রান্তে চলে আসবে স্ক্যান ভ্যান নামের এ চলমান পরীক্ষাগার। ভ্যানের ভেতরে রয়েছে চিকিৎসকের চেম্বারের সব সুযোগ-সুবিধা। ক্যানসার বিশেষজ্ঞদের একটি দল সব সময় ভ্রাম্যমাণ এ ভ্যানে উপস্থিত থাকবেন বলে পরিচালক নিশ্চিত করেছেন।

প্রোজেক্ট রিনিউয়ালের পক্ষ থেকে জানানো হয়, কোনো নারীর এই পরীক্ষা কার্যক্রম থেকে বাদ পড়ার কোনো সুযোগ নেই। বরং অসচ্ছল নারীদের আর্থিক সুবিধা দেওয়ার ব্যবস্থাও রয়েছে। মেমোগ্রাম পরীক্ষা করাতে চাইলে ৬৪৬-৪১৫-৭৯৩২ নম্বরে বা scanvan@projectrenewal.org ঠিকানায় ই-মেইল করে যোগাযোগ করতে অনুরোধ করা হয়েছে। নিজ এলাকায় কবে এই স্ক্যান ভ্যান আসবে, তার সূচি জেনে নিতে সরাসরি যোগাযোগ করতে অনুরোধ করেছেন আয়োজকেরা।

মন্তব্য পড়ুন 0