default-image

শীতকালীন ভয়াবহ তুষারঝড়ে নাকাল অবস্থা নিউইয়র্ক নগরের। ভয়াবহ এ তুষারঝড়ে ২ ফুটের মতো তুষারপাত হতে পারে বলে এরই মধ্যে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক পোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়, এরই মধ্যে নিউইয়র্ক নগর তুষারের নিচে ঢাকা পড়েছে। শীতকালীন এই ঝড় এবার ভয়াবহ রূপ নিয়ে হাজির হয়েছে। শুধু নিউইয়র্ক নগরেই ১২ থেকে ১৮ ইঞ্চি তুষারপাত হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া বিভাগ।

অ্যাকুওয়েদারের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ মাইকেল লেসেনি নিউইয়র্ক পোস্টকে বলেন, ১ ফেব্রুয়ারি স্থানীয় সময় সকাল ৬টার মধ্যেই ৩ থেকে ৬ ইঞ্চি তুষারপাত হয়েছে নগরটিতে। শুধু নিউইয়র্ক নগরেই ১২ থেকে ১৮ ইঞ্চি পর্যন্ত তুষারপাত হতে পারে। আর নিউজার্সি ও হাডসন ভ্যালির কাছাকাছি অঞ্চলে এমনকি ২ ফুট পর্যন্ত তুষারপাত হতে পারে। এই তুষারঝড় নতুন কোনো রেকর্ড করবে কিনা, তা এখনই বলা না গেলেও, যখন ২ ফুটের মতো তুষারপাতের পূর্বাভাস থাকে, তখন সবই সম্ভব। পুরো বিষয়টিই আবহাওয়ার গতিবিধির ওপর নির্ভরশীল।

আবহাওয়া বিভাগের বরাত দিয়ে নিউইয়র্ক পোস্ট জানায়, এই তুষারঝড় কতটা দীর্ঘ হবে, তা এখনো নিশ্চিত নয়। তবে এটি নিউইয়র্ক নগরে সোমবার, এমনকি মঙ্গলবার পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে। সবচেয়ে বেশি তুষারপাতের আশঙ্কা সোমবার স্থানীয় সময় সকাল ৭টা থেকে সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে। ঝড় চলাকালে তাপমাত্রা অনেক কম থাকবে। তবে বাতাসের কারণে এই ঠান্ডা আরও বেশি অনুভূত হবে। এই সময়ে বাতাসের গতিবেগ সর্বোচ্চ ঘণ্টায় ৫০ মাইল হতে পারে।

বিজ্ঞাপন

মাইকেল লেসেনি নিউইয়র্ক পোস্টকে বলেন, ‘তুষার ও বাতাসের কারণে এই শীত আমাদের জন্য ভয়াবহ হয়ে হাজির হবে। ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। এমনকি বিদ্যুৎহীন অবস্থায়ও থাকতে হতে পারে নিউইয়র্কবাসীকে। ঝড়ের কারণে উপকূলবর্তী এলাকায় বন্যার আশঙ্কাও আছে। দৃষ্টিপথ পরিষ্কার থাকবে না। ফলে রাস্তায় চলাচল কঠিন হয়ে পড়বে। আশা করি, সবাই এই সময়টা ঘরে কাটাবেন এবং আমাদের কোনো বাজে সমস্যার মুখোমুখি হতে হবে না।’

ভয়াবহ এই তুষারপাতের পূর্বাভাসের পরই নিউইয়র্ক নগরের মেয়র বিল ডি ব্লাজিও গতকাল রোববার জরুরি অবস্থা জারি করেন। তিনি এই ঝড়কে ‘খুবই ভয়াবহ’ বলে উল্লেখ করেছেন। এ সম্পর্কিত বিবৃতিতে মেয়র বলেন, ‘সবাই ঘরে থাকুন। রাস্তাকে পরিষ্কার রাখার চেষ্টা করুন, যাতে জরুরি সেবা সবার কাছে পৌঁছে দেওয়া যায়। কোনো ভুল করবেন না। এই ঝড়ের কারণে ভারী তুষারপাত হবে, যা চলাচলের রাস্তাকে বিপজ্জনক করে তুলবে।’

নিউইয়র্ক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন