নিউইয়র্কে ২৪ অক্টোবর আগাম ভোট শুরুর পর ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের লম্বা সারি। ২৪ অক্টোবর নিউইয়র্ক নগরের ব্রঙ্কস এলাকা থেকে তোলা
নিউইয়র্কে ২৪ অক্টোবর আগাম ভোট শুরুর পর ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের লম্বা সারি। ২৪ অক্টোবর নিউইয়র্ক নগরের ব্রঙ্কস এলাকা থেকে তোলা ছবি: রয়টার্স

নিউইয়র্কে আগাম ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। কোভিড-১৯ এর নতুন বাস্তবতায় যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য নির্বাচনী ব্যবস্থায় কিছু পরিবর্তন এনেছে। এরই অংশ হিসেবে ডাকযোগে ভোটের বাইরে আগাম ভোটের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে নিউইয়র্কে। ২৪ অক্টোবর আগাম ভোটের জন্য ভোটকেন্দ্রগুলো খুলে দেওয়া হলে হাজারো ভোটারকে সারি বেঁধে ভোট দেওয়ার অপেক্ষা করতে দেখা যায়। এর আগে এমন দৃশ্য কখনো নিউইয়র্কে দেখা যায়নি।

নিউইয়র্কের ভোটকেন্দ্রগুলো ২৪ অক্টোবর খুলে দেওয়া হয়। প্রথমবারের মতো জাতীয় নির্বাচনে আগাম ভোট দেওয়ার এ সুযোগ গ্রহণ করেছেন নিউইয়র্কের ভোটাররা। ২৪ অক্টোবর শনিবার সপ্তাহান্তের দিন থাকায় প্রথম দিনেই অঙ্গরাজ্যের ভোটকেন্দ্রগুলোয় লম্বা সারি দেখা যায়। লোকজন এক ঘণ্টার বেশি সময় ভোটকেন্দ্রের বাইরে শারীরিক দূরত্ব মেনে লাইনে দাঁড়িয়েছেন। ভোট দিয়েছেন তাঁদের পছন্দের প্রার্থীদের।

নিউইয়র্ক ডেমোক্র্যাট প্রধান অঙ্গরাজ্য। ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেনের পক্ষেই যে বেশি ভোট পড়ছে, তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। আগাম ভোটের জন্য নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যে ২৮০টি ভোটকেন্দ্র খোলা হয়েছে। এর মধ্যে ৮৮টি কেন্দ্রই নগরকেন্দ্রে। এমন আগাম ভোট ১ নভেম্বর পর্যন্ত দেওয়া যাবে।

আগাম ভোট দিতে যাওয়া কয়েকজন বলেন, তাঁরা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অপেক্ষা না করে আগেভাগেই ভোট দেওয়ার চেষ্টা করছেন।

নিউইয়র্ক ডেমোক্র্যাট প্রধান অঙ্গরাজ্য। ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেনের পক্ষেই যে বেশি ভোট পড়ছে, তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। আগাম ভোটের জন্য নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যে ২৮০টি ভোটকেন্দ্র খোলা হয়েছে। এর মধ্যে ৮৮টি কেন্দ্রই নগরকেন্দ্রে। এমন আগাম ভোট ১ নভেম্বর পর্যন্ত দেওয়া যাবে
বিজ্ঞাপন
default-image

উল্লেখ্য, আগামী ৩ নভেম্বর মঙ্গলবার জাতীয়ভাবে নির্বাচনের দিন। দিনটি কর্মদিবস হওয়ায় কর্মজীবীদের কাজে যাওয়ার আগে বা পরে ভোট দিতে হবে। এ কারণেই আগাম ভোটের প্রতি অনেকে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন।

নিউইয়র্কের ৭৬ বছর বয়সী বারবারা আব্রাহাম এ সম্পর্কিত এক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘জীবনে কখনো ভোট দেওয়া থেকে বিরত থাকিনি। এ কারণে ভোটের দিনের জন্য আগাম প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হতো। এবার আগাম ভোট দেওয়ার সুযোগ থাকায়, তা কাজে লাগাচ্ছি।

নিউইয়র্ক নগরের জ্যামাইকা এলাকার বাসিন্দা বাংলাদেশি ইফতেখার চৌধুরী। তিনি বলেন, আগাম ভোট দেওয়ার প্রথম দিনেই তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রথম ভোট দেওয়ার সুযোগ গ্রহণ করেছেন।

কুইন্সের এক ভোটকেন্দ্রে ভোট দেওয়া এক নারী ভোটার জানান, তাঁকে প্রায় দুই ঘণ্টা ভোটকেন্দ্রের লাইনে দাঁড়াতে হয়েছে। এবারের ভোট খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যুক্তরাষ্ট্রের ভবিষ্যতের জন্য এ ভোটে অংশ নেওয়া সবার কর্তব্য।

ভোটকেন্দ্রগুলোতে কোভিড-১৯ সংক্রমণ প্রতিরোধের জন্য সাবধানতা অবলম্বন করা হচ্ছে। ভোটকেন্দ্রে প্রবেশের আগে ভোটারদের তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হচ্ছে। স্যানিটাইজার রাখা হয়েছে। নির্বাচনকর্মীরা ৬ ফুট দূরত্বে সবাইকে লাইনে দাঁড়ানোর জন্য সাহায্য করছেন।

ডাকযোগে আসা ব্যালটে আগাম ভোট দেওয়ার কথা জানান নগরীর ব্রুকলিনে বসবাসরত রোমেনা লেইস। ২৪ অক্টোবর ভোট জমা দিয়ে নিজের নাগরিক দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। পাশাপাশি সবাইকে এ নির্বাচনে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান এ লেখক।

নিউইয়র্কের অ্যাটর্নি জেনারেল ল্যাটিসিয়া জেমস বলেন, তিনিও এবার আগাম ভোট দিয়েছেন। নিউইয়র্কে কোনো ধরনের ভোট জালিয়াতি বা কারচুপি যেন না হয়, সে জন্য সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এ জন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও আইনজীবীদের প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ভোট নিয়ে যেকোনো কারচুপির অভিযোগ কঠোরভাবে দেখা হবে।

আগামী ১ নভেম্বর পর্যন্ত নিউইয়র্কে আগাম ভোট গ্রহণ করা হবে। এর পর একদিন বিরতি। জাতীয় নির্বাচনের পূর্বনির্ধারিত তারিখ অনুযায়ী ৩ নভেম্বর আবার ভোটগ্রহণ করা হবে।

করোনা মহামারির কারণে এবার ডাকযোগে ও আগাম ভোট বেশি পড়ছে। ২৩ অক্টোবর পর্যন্ত পাঁচ কোটির ভোট পড়েছে। ডাকযোগে ভোট গ্রহণের জন্য নগরকেন্দ্রের বিভিন্ন এলাকায় ভোটের বাক্স রাখা হয়েছে। ডাকযোগে আসা ব্যালটে ভোট দিয়ে তাতে স্বাক্ষর করে তা আবার ডাকে ফেরত দেওয়া যাচ্ছে। নিজে গিয়ে ভোটের বাক্সে ফেলার সুযোগও রাখা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
default-image

নিউইয়র্কে নয় দিনের জন্য আগাম ভোটের ব্যবস্থা রাখা হলেও কোনো কোনো অঙ্গরাজ্যে এটি বেশ থেকেই শুরু হয়েছে। ক্যালিফোর্নিয়ায় ২৯ দিন, ভার্জিনিয়ায় ৪৫ দিন আগাম ভোট দেওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে।

গত বছরের প্রাথমিক বাছাইয়ের সময় প্রথমবারের মতো নিউইয়র্কে আগাম ভোট গ্রহণের পরীক্ষা করা হয়। গত জুন মাসে ডেমোক্রেটিক দলের প্রাইমারিতে নিউইয়র্কে ১ লাখ ১৮ হাজার আগাম ভোট পড়ে, যা মোট ভোটের ৬ দশমিক ৭ শতাংশ।

আগাম ভোট, অ্যাবসেন্টি ভোট ও ডাকযোগে ভোট এবার বেশি করে হচ্ছে। আগামী ৩ নভেম্বর নির্বাচনের দিন অতিরিক্ত ভিড় এড়াতে এমন আগাম ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। করোনা মহামারিতে ২ লাখ ২৪ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে শুধু যুক্তরাষ্ট্র। শুধু নিউইয়র্কেই মারা গেছে ৩০ হাজারের বেশি মানুষ। এখনো দিনে গড়ে এক হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। ৮০ লাখের বেশি মানুষ করোনার সংক্রমণে পড়েছে। এ অবস্থায় নির্বাচনের কারণে যেন সংক্রমণ না বাড়ে, তারই সতর্কতা হিসেবে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0