default-image

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক রাজ্যে গত পাঁচ মাসে কোভিড-১৯ সংক্রমণে সবচেয়ে কম মৃত্যু হয়েছে। রাজ্যের গভর্নর অ্যান্ড্রু ক্যুমো ১৮ এপ্রিল বলেছেন, আগের দিন ১৭ এপ্রিল রাজ্যে করোনায় ৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।

গত ২২ নভেম্বরের পর এই সংখ্যাটিই নিউইয়র্কে সর্বনিম্ন। এর আগের দিন রাজ্যে ৫৮ জনের মৃত্যুর কথা জানানো হয়েছিল। এখন অধিকাংশ মৃত্যুর ঘটনাই ঘটছে নগরের হাসপাতালগুলোতে।

নগর প্রান্তের বাইরের এলাকায় সংক্রমণের হার শূন্যে নেমে না আসলেও মৃত্যু হচ্ছে কম। নগরের ব্রুকলিনে এখনো করোনায় বেশি মৃত্যু হচ্ছে। সর্বশেষ ১৮ এপ্রিল জানানো হয়েছে, আগের দিন ১৭ এপ্রিল কেবল ব্রুকলিনেই ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

নিউইয়র্ক রাজ্যের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, রাজ্যে করোনায় এ পর্যন্ত ৪১ হাজার ৪৮৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। অবশ্য জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, রাজ্যে মৃত্যুর সংখ্যা অনেক বেশি। ১৮ এপ্রিল পর্যন্ত ৫১ হাজার ৫৩৭ জনের মৃত্যুর কথা জানিয়েছে জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়।

গভর্নর অ্যান্ড্রু ক্যুমো বলেন, কোভিড-১৯ সংক্রমণের হারও এখন সর্বনিম্ন। ১৮ এপ্রিলের সর্বশেষ হিসাবে বলা হয়েছে, করোনা সংক্রমণের হার ২ দশমিক ৯২ শতাংশ। প্রথমবারের মতো নিউইয়র্ক রাজ্যজুড়ে সংক্রমণের হার তিন শতাংশের নিচে নেমে এসেছে।

বিজ্ঞাপন

গভর্নর বলেন, হাসপাতালে ভর্তি ও ইনসেনটিভ কেয়ারে থাকা রোগীর সংখ্যাও কমে এসেছে। ১৮ এপ্রিল পর্যন্ত নিউইয়র্ক রাজ্যে ৪১ দশমিক ৪ শতাংশ মানুষ অন্তত এক ডোজের টিকা গ্রহণ করেছেন। ২৮ দশমিক এক শতাংশ মানুষ পূর্ণ টিকার ডোজ গ্রহণ করেছেন।

অ্যান্ড্রু ক্যুমো বলেন, টিকাদান ও সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে নিউইয়র্ক আশাপ্রদ অবস্থানে রয়েছে। তবে কোভিড-১৯ ভাইরাসের নতুন ধরনে সংক্রমণ নিয়ে উদ্বেগ রয়েছে বলেও তিনি সাংবাদিকদের বলেন।

এদিকে নিউইয়র্ক নগরের মেয়র বিল ডি ব্লাজিও বলেছেন, নগরবাসীর টিকা প্রাপ্তির বিষয়টি আরও সহজ করা হয়েছে। ১৭ এপ্রিল থেকে ৫০ বা তার বেশি বয়সী নিউইয়র্কবাসী কোনো ধরনের নিবন্ধন ছাড়াই নগর পরিচালিত টিকাকেন্দ্রে গিয়ে টিকা নিতে পারবেন।

মেয়র এক বিবৃতিতে বলেন, ‘আমাদের পরবর্তী কয়েক মাসের অগ্রাধিকার পরিষ্কার। আমরা যতটা সম্ভব নগরবাসীকে টিকা দিতে চাই। আমরা ৫০ বা তার বেশি বয়সী ৫০ লাখ নগরবাসীকে জুনের মধ্যে টিকার পূর্ণ ডোজ দিতে চাই।

নিউইয়র্ক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন