নিউইয়র্কের মেয়র পদে লড়বেন স্ট্রিংগার

বিজ্ঞাপন
default-image

নিউইয়র্কের আগামী ২০২১ সালের মেয়র নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য প্রার্থী হিসেবে নিজের নাম ঘোষণা করেছেন কম্পট্রোলার স্কট স্ট্রিংগার। মেয়র নির্বাচিত হয়ে নগরীকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি।

কোভিড-১৯ এর প্রভাবে আর্থিক সংকটের মুখে নিউইয়র্ক নগরীর রাজ্য সরকার। নগর সরকারের প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা হিসেবে নিজের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে স্কট স্ট্রিংগার নগরীর আর্থিক চাঞ্চল্য ফিরিয়ে আনার ঘোষণা দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
নিউইয়র্কের আগামী ২০২১ সালের মেয়র নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য প্রার্থী হিসেবে নিজের নাম ঘোষণা করেছেন কম্পট্রোলার স্কট স্ট্রিংগার। মেয়র নির্বাচিত হয়ে নগরীকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন তিনি

গত সপ্তাহে আগামী মেয়র নির্বাচনে লড়াই করার ঘোষণা দিয়ে স্ট্রিংগার বলেন, ‘২০২২ অর্থ বছরের বাজেটের প্রাক্কালে নগরী ৪২ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতির সম্মুখীন হবে। আমরা এমন এক পরিস্থিতিতে এসেছি, যখন নিউইয়র্ক নগরী আর্থিক সংকটের মধ্যে পড়ে গেছে। যা আমরা এর আগে কোনো প্রজন্মেই দেখিনি। এ কারণেই সিটি হলে নতুন করে আর্থিক অভিজ্ঞতা ও সরকারি অভিজ্ঞতা সম্পন্ন নেতৃত্বের প্রয়োজন। কেবল আমাদের অর্থনৈতিক পরিবর্তন নয়, নিরাপদ নগরীও গড়ে তুলতে হবে।’

স্কট স্ট্রিংগার বলেন, আমাদের অবশ্যই ওয়াশিংটনের সম্ভাব্য দেউলিয়ার হুমকি থেকে বাঁচতে হবে। নগরীতে গত ২০ বছরে ধনী ব্যক্তি যারা আছেন, যারা এখনো বেশ ভালো আয় করছেন তাঁদের কর বাড়িয়ে দিতে বলার অনুরোধ করতে হবে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

চিকিৎসক, নার্স, খাবার ও বিভিন্ন সরবরাহকারী ব্যক্তিদের উদ্দেশ্যে স্ট্রিংগার বলেন, শহরে তাঁদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে হয়েছে। এ মুহূর্তে তাঁরা আদর্শ সৈনিক। আমি চাই অন্য লোকেরাও এমন আদর্শ সৈনিক হোক।

স্কট স্ট্রিংগার আরও বলেন, মেয়রকে সিটির এজেন্সিগুলোর দক্ষতার দিকে আরও নজর দিতে হবে। এজেন্সিগুলো খুব খারাপভাবে পরিচালিত হয়ে আসছে। এগুলো বহু উপায়ে ফুলে ফেঁপে উতরে গেছে। এমনকি নগরীর এজেন্সিগুলোর মধ্যে অপব্যয়ের মূল হেতু নির্মূল করার কথা ভাবতে হবে। এ ছাড়া নগর সরকার প্রতিদিন কীভাবে নগর পরিচালনা করতে হবে তার নিয়ন্ত্রণ ও মান হারিয়ে ফেলেছে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
করোনাভাইরাসের প্রকোপ বেড়ে গেলে নগরী আবার লকডাউন করে দেওয়া ছাড়া কোনো উপায় থাকবে না। গত মার্চে আমার অফিস বন্ধ করে দিয়েছিলাম, কারণ জীবনটা গুরুত্বপূর্ণ। ট্রাম্পকে বিশ্বাস করে ভাববেন না যে এই সংকট শেষ। নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে মাস্ক পরা জরুরি।
নিউইয়র্কের কম্পট্রোলার স্কট স্ট্রিংগার

নিউইয়র্কের মেয়র হওয়ার দৌড়ে তিনি কাকে সবচেয়ে শক্তিশালী প্রতিপক্ষ হিসেবে বিবেচনা করছেন—এমন প্রশ্নের জবাবে স্ট্রিংগার বলেন, তিনি ‘কে সামনে, কে পেছনে’ সে বিষয়ে সত্যই ভাবেন না।

করোনাভাইরাসের প্রকোপ আবার বেড়ে গেলে কী হবে—তা জানতে চাইলে স্ট্রিংগার বলেন, নগরী আবার লকডাউন করে দেওয়া ছাড়া আমাদের আর কোনো উপায় থাকবে না। গত মার্চে আমার অফিস বন্ধ করে দিয়েছিলাম, কারণ জীবনটা গুরুত্বপূর্ণ। ট্রাম্পকে বিশ্বাস করে ভাববেন না যে এই সংকট শেষ। নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে মাস্ক পরা জরুরি।

স্ট্রিংগার বলেন, ‘আমাদের অর্থনীতির ব্যাপারটা গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়া দরকার। আস্তে আস্তে নগর খুলে দিতে হবে। বিজ্ঞান ও চিকিৎসকদের কথাও মেনে চলতে হবে।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন