বিজ্ঞাপন

৭ জুন নিউইয়র্কের অভিবাসীবহুল জ্যামাইকার বেসলি পন্ড পার্কে উপস্থিত হয়েছিলেন ডারমট শিয়া। টি-২০ ক্রিকেটের উদ্বোধন করতে এসে জানালেন, নিজের অনেক যোগ্যতা থাকলেও ক্রিকেট খেলায় তাঁর নিজের যোগ্যতা নিয়ে সন্দিহান আছেন। কয়েকবার হাত ঘুরিয়ে খেলার মাঠে ঠিকই ক্রিকেট খেলোয়াড়দের মতো পোজ দিলেন। কথা বলেছেন অনুষ্ঠানে উপস্থিত লোকজনের সঙ্গেও।

তিনি বলেন, পুলিশ ও ট্রাফিক সদস্যরা পেশার বাইরে জনসমাজের সঙ্গে সংযুক্ত থাকার এমন আয়োজন খুবই গুরুত্বের। চৌকস এসব পেশাজীবীরা প্রতিদিন মহৎ কাজ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করে যাচ্ছেন। শুধু নিউইয়র্ক নগরেই নয়, সারা বিশ্বের এসব পেশাজীবীদের প্রতি ডারমট শিয়া নিজের ভালোবাসার কথাই জানান দিলেন বাংলাদেশি পুলিশ ও ট্রাফিক এজেন্টদের ক্রিকেট টুর্নামেন্টের আয়োজনে উপস্থিত হয়ে।

যুক্তরাষ্ট্রে যোগাযোগ ও সংবাদমাধ্যমের পেশাজীবীদের অধিকার নিয়ে সদা সোচ্চার কমিউনিকেশন ওয়ার্কার অব আমেরিকা (সিডব্লিউএ) নামের সংগঠন। মার্কিন সমাজ ও রাজনীতিতে পেশাজীবী ইউনিয়নগুলোর প্রভাব অকল্পনীয়। নিউইয়র্কের পেশাজীবীদের নিয়ে সাংগঠনিক জেলার ভাইস প্রেসিডেন্ট ডেনিস ট্রেনর।

default-image

ক্রিকেটের কোনো টুর্নামেন্টে ডেনিস ট্রেনর প্রথমবারের মতো উপস্থিত হয়েছেন, টের পাওয়া গেল। তাঁকে নিয়ে ট্রাফিক এজেন্ট এবং অন্যান্যদের ব্যস্ততা। প্রভাবশালী এ ইউনিয়ন নেতার সঙ্গে কথা বলার সুযোগ করে দিলেন সিডব্লিউএ-১১৮১ এর ভারপ্রাপ্ত প্রশাসক রিকি মরিসন।

খেলার মাঠের একপাশে বসেই সাক্ষাৎকার দিলেন প্রথম আলো উত্তর আমেরিকাকে। যুক্তরাষ্ট্রের পেশাজীবী ইউনিয়নের এ প্রভাবশালী নেতা শুরুতেই জানালেন, ট্রাফিক এজেন্টরা তাঁদের কাজের সমান মূল্যায়ন পান না। তাঁদের নানাভাবে বঞ্চিত করা হয়। এসব পেশাজীবীদের জীবনমানের উন্নতি ঘটানোর জন্য তাঁদের ন্যায্য পাওনা এবং সুবিধা থেকে বঞ্চিত করা হয়।

একজন ইউনিয়ন নেতা হিসেবে নিজেদের পেশাজীবীদের অধিকার আদায়ে ন্যায্য লড়াই চালিয়ে যাওয়ার কথা জানিয়ে ডেনিস ট্রেনর বলেন, ট্রাফিক এজেন্টদের জীবনমানের উন্নতির মাধ্যমে জনসমাজের উন্নতি ঘটে। বাংলাদেশি ট্রাফিক এজেন্টদের প্রশংসা করে ডেনিস ট্রেনর বলেন, মহামারির সময় তাঁর ইউনিয়নের সদস্যরা ধর্ম বর্ণ পরিচয়ের ঊর্ধ্বে উঠে বিপন্ন মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। নিজেদের পেশার বাইরের এমন কাজের মধ্য দিয়ে এ পেশাজীবীরা জনগণের ভালোবাসা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।

তিনি বলেন, তাঁর ইউনিয়নের সদস্যদের প্রাপ্ত সব সুবিধা নিশ্চিত করার জন্য তাঁদের সংগ্রাম চলবে। ইউনিয়নের প্রতিটি সদস্য তাঁদের প্রাপ্ত সুবিধা যেন পায়, এ জন্য কর্তৃপক্ষের সঙ্গে লড়াই চালিয়ে যাবেন বলে প্রত্যয় ঘোষণা করেন ইউনিয়ন নেতা ডেনিস ট্রেনর।

নিউইয়র্ক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন