default-image

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি জনসমাজের পরিচিত মুখ ও জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জুয়েল চৌধুরীর ছেলে জিমাম চৌধুরীর (২১) অকাল মৃত্যু হয়েছে (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

একমাত্র ছেলে জিমাম ও পরিবারসহ গত ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে জুয়েল চৌধুরী বাংলাদেশে যান। ২৭ জানুয়ারি জিমাম একা নিউইয়র্কে ফিরে আসেন। পারিবারিক বন্ধুর পরিবার তাঁকে জেএফকে বিমানবন্দর থেকে তাঁদের বাসায় নিয়ে যান। ওই রাতে জিমাম সেখানেই ছিলেন। পরদিন ২৮ জানুয়ারি সন্ধ্যায় জিমামকে জামাইকার হিলসাইড অ্যাভিনিউয়ে তাঁর বাসায় পৌঁছে দেওয়া হয়।

২৯ জানুয়ারি শুক্রবার সারা দিন জিমামের সঙ্গে নিউইয়র্কে কারও যোগাযোগ করার খবর জানা যায়নি। ৩০ জানুয়ারি দুপুরে জিমামের এক বন্ধু বাসায় এসে তাঁকে ডাকাডাকি করে কোনো সাড়া পাননি। পরে তিনি একই বাসার নিচ তলার লোকজনের সাহায্যে বাসায় ঢুকে জিমামকে নিশ্চল অবস্থায় দেখে ৯১১-এ কল দেন। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে জিমামের মৃতদেহ উদ্ধার করে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য হাসপাতালে নিয়ে যায়। হৃদ্‌যন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে জিমামের মৃত্যু হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।

বিজ্ঞাপন
যুক্তরাষ্ট্রে যেকোনো মানুষের সংকটে এগিয়ে আসেন জুয়েল চৌধুরী। করোনায় নিউইয়র্কে মৃত্যু হওয়া অর্ধ শতাধিক স্বদেশির দাফনের দায়িত্ব পালন করেছেন জুয়েল চৌধুরী

সিলেট শহরে নিজের বাসায় অবস্থানরত জিমামের বাবা জুয়েল চৌধুরী ও মা লুবানা চৌধুরীকে একমাত্র ছেলের মৃত্যুর খবর জানানো হয়েছে। সব স্থানীয় আনুষ্ঠানিকতার পর নিউইয়র্কে জানাজা শেষে জিমামের মরদেহ দেশে পাঠানোর কথা পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রে যেকোনো মানুষের সংকটে এগিয়ে আসেন জুয়েল চৌধুরী। করোনায় নিউইয়র্কে মৃত্যু হওয়া অর্ধ শতাধিক স্বদেশির দাফনের দায়িত্ব পালন করেছেন জুয়েল চৌধুরী। তাঁর ছেলের মৃত্যুতে অসংখ্য সংগঠন ও ব্যক্তি শোক জানিয়েছেন।

নিউইয়র্ক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন