বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রচারণা সভায় দেওয়া বক্তব্যে নগরকে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে নানা দুর্যোগ থেকে রক্ষা করতে তাঁর পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেছেন।

গত ১ সেপ্টেম্বর মাত্র এক ঘণ্টার ভারী বৃষ্টিপাতে নগরে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি সাধিত হয়েছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে একের পর এক প্রাকৃতিক দুর্যোগ অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে যাচ্ছে। শত বছর আগের নগর-পরিকল্পনায় প্রাকৃতিক কারণে এমন দুর্যোগের কথা সেভাবে বিবেচনায় আনা হয়নি। অন্য দেশের মতো নিউইয়র্কেও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব নিয়ে রাজনীতিক ও জনসমাজ চরমভাবে বিভক্ত। রক্ষণশীলদের মতে, জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে হাহাকার করা একটা উদারনৈতিক ভাবনা। উদারনৈতিক এ ভাবনার বিজ্ঞানভিত্তিক তথ্যকেও রক্ষণশীলদের অবিশ্বাস করতে দেখা যায়।

এরিক অ্যাডামস বলেছেন, আমরা অনেক সমস্যা মোকাবিলা করছি। ধরিত্রীকে আমরাই ধ্বংসের দিকে নিয়ে গিয়েছি। কার্বন মনোক্সাইডের বিরূপ প্রভাব আমরা একের পর এক দেখছি। বায়ুমণ্ডলের উষ্ণতা বেড়ে গেছে। খরা বন্যা হচ্ছে অস্বাভাবিক ভাবে। প্রকৃতির বিরূপতার কারণে জনজীবন বিপন্ন হচ্ছে। মানুষের জীবনমান, নিরাপত্তা ও জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এরিক অ্যাডামস আরও বলেন, নিউইয়র্ক নগরের জন্য দুর্যোগ পূর্বাভাসের সতর্ক ব্যবস্থা আধুনিক করা হবে। নগরের অবকাঠামোকে বন্যা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় টেকসই কিনা, তা নিয়মিত পরীক্ষা করা হবে। এ ছাড়া নগরের বেসমেন্টকে আইন অনুযায়ী বসবাসের জন্য নিরাপদ করার বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে। জলবায়ু পরিবর্তন ও এর প্রভাব নিয়ে নাগরিক সচেতনতা বৃদ্ধি করা হবে এবং জলবায়ুবান্ধব সব উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করা হবে।

কোনি আইল্যান্ড বিউটিফিকেশন প্রকল্পের প্রেসিডেন্ট পামেলা পেটিজন এরিক অ্যাডামসের পরিকল্পনাকে সমর্থন জানিয়ে বলেছেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ আমাদের শিক্ষা দিয়ে গেছে এবং দ্রুত করণীয় নির্ধারণের তাগিদ প্রদান করছে।

নিউইয়র্ক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন