বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এজি স্পোর্টিং ক্লাবের রেদোয়ান টুর্নামেন্টে হ্যাটট্রিক করেন এবং সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন। টুর্নামেন্টের সেরা গোল রক্ষক নির্বাচিত হন একই ক্লাবের শফি আহমেদ। ফাইনাল খেলায় রেফারি ছিলেন উইলিয়াম, ধারাভাষ্যে ছিলেন মামুন ও টিটু।

টুর্নামেন্টের স্পনসর ছিল—ল’ অফিস-অ্যাটর্নি র‍্যান্ডি বি. সিগেল, বিসিএল অব ইউএসএ, মিরচ রেস্টুরেন্ট, জ্যামাইকা সোশ্যাল অ্যাডাল্ট ডে কেয়ার, বোম্বে ট্রাভেলস অ্যান্ড গ্রাফিকস, অভিজাত গ্রুপ, আই জে ক্রিয়েটিভ সলিউশন, এনওয়াই ইনস্যুরেন্স ও ব্রোকারেজ, সিলেট মোটরস, এমপায়ার স্টেট ইনস্যুরেন্স ব্রোকারেজ, ফোমা ইনোভেটিভ ইন্‌ক এবং অ্যাড এন টেক আইটি সলিউশন ইন্‌ক।

খেলা শেষে পুরস্কার বিতরণী পর্বটি পরিচালনা করেন জ্যামাইকা বাংলাদেশি ইয়ুথ ফোরামের প্রেসিডেন্ট মো. জাসেম। মাঠে আগত অতিথিরা চ্যাম্পিয়ন দলের কাছে ট্রফি ও ৭০০ ডলারের চেক এবং রানার্সআপ দলের কাছে ট্রফি ও ৪০০ ডলারের চেক হস্তান্তর করেন। পুরস্কার বিতরণী পর্বে চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ দলের খেলোয়াড়দের মেডেল দেওয়া হয়। এ ছাড়া খেলার রেফারি এবং প্রতিটি টিম ওনারদের জেবিওয়াইএফের পক্ষ থেকে প্ল্যাক দেওয়া হয়। টুর্নামেন্ট সফলভাবে সম্পন্ন করার জন্য হাসানুজ্জামান সুমনকে করতালি দিয়ে অভিনন্দন জানানো হয়।

টুর্নামেন্টের অর্গানাইজার হাসানুজ্জামান সুমন, মনি খান, রাজিবুল হক ভূঁইয়া, রাশেদুল আলম রিমেল, আনজাম রাফী ও আরিফুল ভূঁইয়া জিয়া বলেন, তরুণদের খেলাধুলার প্রতি উৎসাহিত করার জন্য এবং তাঁদের খেলাধুলায় আরও সম্পৃক্ত করার জন্যই এই আয়োজন। ভবিষ্যতে এ রকম টুর্নামেন্ট আরও আয়োজন করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন তাঁরা।

খেলোয়াড়দের উৎসাহ দিতে মাঠে উপস্থিত ছিলেন—ল’ অফিস-অ্যাটর্নি র‌্যান্ডি বি. সিগেলের রোমানো, অ্যাটর্নি সোমা সাঈদ, কমিউনিটি অ্যাকটিভিস্ট মিজান চৌধুরী, জ্যামাইকা সোশ্যাল অ্যাডাল্ট ডে কেয়ারের তানজীর হক, অ্যাড অ্যান্ড টেক আইটি সলিউশনের মো. খন্দকার রাকীব, শেখ হায়দার আলী, এমপায়ার স্টেট ইনস্যুরেন্স ব্রোকারেজের আলী খান ও বাংলাদেশ ন্যাশনাল হকি লিগের সাবেক খেলোয়াড় লিটন আহমেদ। এ ছাড়া জেবিওয়াইএফের বর্তমান কমিটির সব সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

টুর্নামেন্টের সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন—মইনুর রহমান, মো. আবু নাসের ভূঁইয়া, নাদিরুল এ তপু, মো. কাশেম, বাবু, আহসান ইবনে আবদুল্লাহ, মেহেদী রিজন, মাজেদ হোসাইন, সুমন খান, আসাদ সুমন, কাজী রিয়াদ, রাকীব, করিম, মো. আফতাব হোসেন, মাহিন রিফাত, মো. সেলিম উল্লাহ, শেখ আপেল, নাসিফ, সজীব, রিপন, সাদী, সাজীদ, খাইরুল ইসলাম, মেহের আলম, খন্দকার, তৌহিদ, রাজেস, সাহেদ, ফরহাদ, রেজা, হৃদয়, সুমন ব্যাপারী, সবুজ, মোতালেব, শামীন, মাসুদ রানা, তাইফুর চৌধুরী, রফিকুল ইসলাম, আবু শাহেদ, কারিবুল ইসলাম, পারভেজ, ইভান খান প্রমুখ।

এবারের টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়া মোট পাঁচটি দল হচ্ছে—ঢাকা স্করপিয়ন সকার স্পোর্টিং ক্লাব (স্বত্বাধিকারী হাসানুজ্জামান সুমন), চেজারর্স স্পোর্টিং ক্লাব (স্বত্বাধিকারী ফয়সাল আহমেদ), এজি স্পোর্টিং ক্লাব (স্বত্বাধিকারী আরিফুল ভূঁইয়া জিয়া), আর এস সি স্পোর্টিং ক্লাব (স্বত্বাধিকারী মো. রুমন চৌধুরী) এবং রিও’স নাইট স্পোর্টিং ক্লাব (স্বত্বাধিকারী মো. কাশেম)।

জ্যামাইকা বাংলাদেশি ইয়ুথ ফোরামের প্রেসিডেন্ট মো. জাসেম ও সেক্রেটারি তানভীর ভূঁইয়া বলেন, তরুণদের নিয়ে এই উদ্যোগ সফলভাবে সম্পন্ন করার জন্য খেলাপ্রিয় মানুষসহ পৃষ্ঠপোষকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা। ফুটবল ছাড়াও অন্যান্য খেলাধুলা নিয়ে টুর্নামেন্টে করার ব্যাপারেও তাঁদের পরিকল্পনায় আছে।

নিউইয়র্ক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন