বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

চালক থেকে মেডেলিয়ান মালিক হওয়া হাজারো মানুষ আছে। এর মধ্যে অধিকাংশই অভিবাসী। তাঁরা এখন বিপাকে পড়েছেন। উবার ও অ্যাপসভিত্তিক গাড়ির আধিপত্যের কারণে হলুদ ট্যাক্সির ব্যবসা ও চালনায় ধস নেমেছে বেশ আগেই।

ট্যাক্সি অ্যালায়েন্সের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এক সময় পরিশ্রমী ক্যাব চালকদের মেডেলিয়ানের মালিক হওয়ার জন্য প্ররোচিত করা হয়েছে। মার্কিন মধ্যবিত্ত জীবনে প্রবেশ করার জন্য একটি মেডেলিয়ান কিনতে জীবনের সমস্ত পরিশ্রম ও অর্জন ব্যয় করেছেন বহু ক্যাব চালক। চলমান বাস্তবতায় তাঁদের এ স্বপ্ন দুঃস্বপ্নে পরিণত হয়েছে।

ট্যাক্সি অ্যালায়েন্স এক লাখ ২৫ হাজার ডলার করে মেডেলিয়ান ঋণ মওকুফ করা এবং ঋণের কিস্তি ২০ বছর করে সর্বোচ্চ মাসিক ৭৫০ ডলার কিস্তি নির্ধারণের দাবি জানিয়েছে।

এস্টোরিয়া থেকে নির্বাচিত সিটি কাউন্সিলম্যান জোহরান মামদানিসহ অন্য নেতৃবৃন্দ নিয়মিত ক্যাব চালক ও মেডেলিয়ান মালিকদের প্রতিবাদ সমাবেশে যোগ দিচ্ছেন। সিটি হলের সামনের সমাবেশে জোহরান মামদানি বলেছেন, তিনি তাঁর নির্বাচনী এলাকায় বসবাস করা ক্যাব চালকদের এবং মেডেলিয়ান মালিকদের কষ্টের কথা জানেন। পরিশ্রমী জনগোষ্ঠীর হতাশা ও ক্ষোভকে নিরসন করে আশার আলো জ্বালাতে পারে ট্যাক্সি অ্যালায়েন্স কর্তৃক প্রস্তাবের বাস্তবায়ন। তিনি আন্দোলনকারীদের পাশে থাকার প্রত্যয় ঘোষণা করেছেন।

ডেমোক্রেটিক দলের প্রাইমারিতে নির্বাচিত বাংলাদেশি-আমেরিকান শাহানা হানিফ আন্দোলনকারীদের সমাবেশ যোগ দিয়েছেন। প্রথমে বাংলায় দেওয়া বক্তব্যে শাহানা হানিফ বলেন, একজন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত হিসেবে তিনি কাছ থেকে ক্যাব চালক ও মেডেলিয়ান মালিকদের কষ্ট ও হতাশা দেখার সুযোগ পাচ্ছেন।

নিউইয়র্ক নগর সভায় প্রথম বাংলাদেশি-আমেরিকান হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পথে তরুণ নাগরিক সংগঠক শাহানা হানিফ বলেছেন, বাংলাদেশিরা নিউইয়র্ক নগরের হলুদ ক্যাব চালকদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য অংশ। তিনি তাঁদের আন্দোলনে পাশে থাকবেন এবং সবাই মিলে ক্যাব চালক ও মেডেলিয়ান মালিকদের দাবি আদায়ের সংগ্রাম চালিয়ে যাবেন বলে তিনি ঘোষণা দিয়েছেন।

নিউইয়র্ক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন