বিজ্ঞাপন

অন্যদিকে নারীদের হাঁড়িভাঙা ও বালিশ পাচার খেলা দারুণ ‍উপভোগ করেন সবাই। বনভোজনের উদ্বোধন করেন কমিউনিটি অ্যাকটিভিস্ট কাজী তোফায়েল ইসলাম। প্রধান অতিথি ছিলেন অ্যাটর্নি সোমা সাঈদ।

কুমিল্লা সোসাইটি অব ইউএসএ ইন্‌ক-এর সাধারণ সম্পাদক আ স ম খালেদুর রহমান ও কার্যকরী সদস্য রেজাউল আবদুল্লাহর সঞ্চালনায় স্মৃতিচারণমূলক কথামালায় সভাপতিত্ব করেন সোসাইটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলী আহমেদ।

আ স ম খালেদুর রহমান বলেন, আমাদের বনভোজনে প্রধান অতিথি থাকার কথা ছিল অ্যাসোসিয়েশন অব সাউথ জার্সির সভাপতি জহিরুল ইসলাম। তবে ব্যক্তিগত ব্যস্ততার কারণে তিনি উপস্থিত থাকতে না পারলেও মুঠোফোনে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এবং বনভোজনের সফলতা কামনা করেছেন।

এ সময় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সমাজসেবক সাবুনাথ চন্দ্র নাথ। বক্তব্য রাখেন—কমিউনিটি অ্যাকটিভিস্ট এমদাদুল হক, বাংলাদেশ সোসাইটির প্রধান নির্বাচন কমিশনার জামাল আহমেদ, সাবেক ছাত্রনেতা আনোয়ারুল ইসলাম ও অর্গানাইজেশন ফর অ্যান্টি হেইট ক্রাইমের আহ্বায়ক সেলিম রেজা।

কুমিল্লা সোসাইটির বার্ষিক এ বনভোজন আয়োজনের আহ্বায়ক ছিলেন মো. আবুল হোসেন, সদস্যসচিব তাছলিমা পাটোয়ারি, যুগ্ম আহ্বায়ক মো. কবির হোসেন, যুগ্ম সদস্যসচিব হাসিনা আক্তার, প্রধান সমন্বয়কারী সালাউদ্দিন চৌধুরী ও সমন্বয়কারী ছিলেন মো. আবদুল মতিন।

আয়োজনের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ছিলেন মফিজুল ইসলাম ভূঁইয়া, পৃষ্ঠপোষক ছিলেন কাজী আবদুর রশিদ, মোফাজ্জল হোসেন, বশির আহমদ ও জাকির হোসেন।

যাদের সার্বিক সহযোগিতায় এ বনভোজন সুন্দরভাবে সম্পন্ন হয়েছে তাঁরা হলেন—মনিরুল আলম, আবদুল্লাহ আল রেজা, আবদুল আলীম মিয়া, সাইদুল ইসলাম, মো. হাবিব উল্লাহ, আবদুল কাইয়ুম মিয়াজী, মো. এইচ আর ভূঁইয়া, মো. নজরুল ইসলাম, রাজন হাসান, শাহীন আলম, হাসিনা আক্তার, গোলাম সাঈদ, মো. ইব্রাহিম খলিল, আবু কাউছার, মিজানুর রহমান, জহিরুল ইসলাম, আশরাফুল ইসলাম, দীপক সাহা, রোমেল সরকার ও সালাহ উদ্দিন।

নিউইয়র্ক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন