default-image

আফ্রিকান-আমেরিকান ইতিহাসে গবেষণার অগ্রণী হিসেবে বিবেচনা করা হয় কার্টার জি উডসনকে। তাঁকে ‘ব্ল্যাক হিস্ট্রির জনক’ বলা হয়। কার্টার জি উডসন ছিলেন একজন আমেরিকান ইতিহাসবিদ, লেখক, সাংবাদিক ও অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য স্টাডি অব আফ্রিকান-আমেরিকান লাইফ অ্যান্ড হিস্ট্রির প্রতিষ্ঠাতা। তিনি আফ্রিকান-আমেরিকান ইতিহাসসহ আফ্রিকান প্রবাসের ইতিহাস অধ্যয়নকারী প্রথম পণ্ডিতদের একজন ছিলেন।

দাসের ছেলে উডসন কয়লা খনিতে কাজ করে শৈশব কাটিয়েছেন। তিনি চার মাস মেয়াদি স্কুলে পড়াশোনা করেছিলেন। কারণ ওই সময় কালো স্কুলগুলোর জন্য এটাই প্রচলিত রীতি ছিল।

সাবেক দাস অ্যানি এলিজা (রিডাল) ও জেমস হেনরির ছেলে কার্টার জি উডসনের জন্ম ১৮৭৫ সালের ১৯ ডিসেম্বর ভার্জিনিয়ার নিউ ক্যান্টনে। আর তাঁর মৃত্যু হয় ১৯৫০ সালের ৩ এপ্রিল। তাঁর বাবা-মা নিরক্ষর ছিলেন। উডসনের বাবা ছিলেন কাঠমিস্ত্রি ও কৃষক। তিনি গৃহযুদ্ধের সময় ইউনিয়ন সৈন্যদের সহায়তা করেছিলেন। উডসনের পরিবার ছিল অত্যন্ত দরিদ্র। এ কারণে তাঁকে পরিবারে সহায়তা করতে ফার্মে বাবার সঙ্গে কাজ করতে হতো।

১৭ বছর বয়সে উডসন তাঁর ভাইয়ের সঙ্গে হান্টিংটনে চলে যান। সেখানে পড়াশোনায় নিয়মিত হওয়ার ইচ্ছা ছিল তাঁর। কিন্তু সেখানেও তাঁকে কয়লা খনিতে কাজ করার পাশাপাশি পড়াশোনা করতে হতো। তবু নিরাশ হননি উডসন। ঘরে বসে বা কাজের ফাঁকেই তিনি পড়ালেখা আয়ত্ত করতে সক্ষম হয়েছিলেন।

বিজ্ঞাপন

এরপর ১৯ বছর বয়সে নিজে নিজেই ইংরেজি ফান্ডামেন্টাল ও পাটিগণিতে পারদর্শী হওয়া উডসন উচ্চবিদ্যালয়ে ভর্তি হন। মেধাবী উডসন সেখানে দুই বছরের মধ্যে চার বছরের পাঠ্যক্রম সম্পন্ন করেন। ১৯০৩ সালে তিনি বেরিয়া কলেজ থেকে স্নাতক শেষ করেন এবং শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। এরপর তিনি হার্ভার্ড থেকে ডক্টরেট ডিগ্রি অর্জন করেছিলেন।

ইতিহাসের পাঠ্যপুস্তক যখন যুক্তরাষ্ট্রের কৃষ্ণাঙ্গ জনগোষ্ঠীকে উপেক্ষা করে যাচ্ছিল, তখন উডসন ইতিহাসে তাদের স্থান দিতে লিখতে শুরু করেন। এটি করার জন্য তিনি ‘অ্যাসোসিয়েশন ফর স্টাডি অব নিগ্রো লাইফ অ্যান্ড হিস্ট্রি’ নামে একটি সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি সর্বজন স্বীকৃত প্রকাশনা ‘জার্নাল অব নিগ্রো হিস্ট্রি’ও প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

এরপর ১৯২৬ সালে উডসন ‘নিগ্রো হিস্ট্রি উইক’ প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি বিশ্বাস করতেন, নিগ্রোদের অর্জন আদি মানব অগ্রগতির একটি মূল কারণ এবং আধুনিক সভ্যতার নির্মাতা হিসেবে এটি তাঁকে সম্মানের সঙ্গে জয়ী করবে।

১৮৭৬ সালে নিগ্রো হিস্ট্রি মান্থ ‘ব্ল্যাক হিস্ট্রি মান্থ’-এ প্রসারিত হয়েছিল। তখন থেকেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট আনুষ্ঠানিক ভাবে ফেব্রুয়ারি মাসকে ব্ল্যাক হিস্ট্রি মান্থ হিসেবে পালন করে আসছেন।

ব্ল্যাক হিস্ট্রি মান্থ উদ্‌যাপন করতে ফেব্রুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহই কেন উডসন বেছে নিয়েছিলেন? এর কারণ ছিল মূলত বিশেষ দুই ব্যক্তির জন্মদিন চিহ্নিত করা। যারা যুক্তরাষ্ট্রের কৃষ্ণাঙ্গ জনগোষ্ঠীকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করেছিল। তাঁদের একজন ছিলেন রেডরিক ডগলাস, যিনি দাসত্ব থেকে রক্ষা পেয়ে বিলোপবাদী ও নাগরিক অধিকারের নেতা হয়েছিলেন। যদিও তাঁর জন্ম তারিখ জানা যায়নি, তবে তিনি ১৪ ফেব্রুয়ারি জন্মদিন উদ্‌যাপন করতেন।

আরেকজন ছিলেন প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিংকন, যিনি যুক্তরাষ্ট্রের রাজ্যগুলোর দাসত্বকে বাতিল করতে মুক্তির ঘোষণায় স্বাক্ষর করেছিলেন। আব্রাহাম লিংকনের জন্ম ১২ ফেব্রুয়ারি।

বর্তমানে স্কুল, কলেজ, অফিস ও আদালতে অত্যন্ত মর্যাদার সঙ্গে ব্ল্যাক হিস্ট্রি মান্থ রাষ্ট্রীয়ভাবে পালন করা হয়। কানাডা ও যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বের অন্য দেশগুলোও ব্ল্যাক হিস্ট্রি মান্থ হিসেবে ফেব্রুয়ারি মাসটিকে উৎসর্গ করে থাকেন।

বিজ্ঞাপন
সাহিত্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন