(টার্কি নিয়ে লেখা একটি কবিতায় প্রভাবিত হয়ে)

পাঁচ টার্কি ঠায় দাঁড়িয়ে

ঘরের দরজায়,

একটি ধীরে খাবার খেতে

বনের দিকে ধায়।

লেকের ধারে বেড়াতে যায়

টার্কি বাকি চারে,

নাইবে বলে একজন আবার

চলল ধুলোর ধারে।

তিন টার্কি অলস ভারী

নেই তো করার কিছু,

একটা গেল খেলতে মাঠে

হাঁসের পিছু পিছু।

দুই টার্কি গাছের তলায়

বিষাদ মাখা মনে,

একজন যায় ঘরে ফিরে

ঘাসফড়িংয়ের সনে।

এক টার্কি ঘুরছে একা

সন্ধ্যা নেমে এলে

ঘুমিয়ে গেল গাছের তলায়

বাড়ির আরাম ফেলে।

শীতের রাতে পাখনাতে মুখ

গুঁজে, রাতের কালো

পার করে দেয়, জাগল শেষে

পেয়ে ভোরের আলো।

গাছের নিচে রাত কাটানোয়

ঝুঁকি ছিল শত!

শঙ্কা নিয়ে ভাবনা এল

দিন-তারিখ আজ কত?

ও মা, সে কী আজকে দেখি

নভেম্বরের শেষে

বৃহস্পতি দিনটাও ঠিক

মিলছে সাথে এসে।

থ্যাঙ্কসগিভিং-এর আতঙ্কটা

আবার এল ঘুরে

ফিরব না আজ খামার বাড়ি

বলেই পালায় দূরে!

রোস্ট হয়ে সব বন্ধু শোয়া

পার্টি টেবিলজুড়ে,

দূর থেকে তা দেখে মন ওর

কাঁদছে করুণ সুরে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0