বিজ্ঞাপন

প্রবাসীদের অদ্ভুত একটা ব্যাপার থাকে, তারা মনের মধ্যে সব সময় দেশকে নিয়েই ঘোরেন। প্রতি বছর আমরা রেডিয়াম হট স্প্রিংস নামক একটা ছোট শহরে বেড়াতে যাই। উইনস্টন চার্চিল নাকি এখানে এসেছিলেন। হট স্প্রিঙের পানিতে নেমেছিলেন। কোনো এক বিচিত্র কারণে আমার রেডিয়াম গেলে মনে হয় বান্দরবান বা রাঙামাটিতে আছি। যে কোথাও বেড়াতে যাওয়ার কথা আসলেই আমি রেডিয়ামের নাম একবার বলি। সেখানে একটা অদ্ভুত দৃশ্য দেখেছিলাম। মা ভালুক তার দুই ছানাকে নিয়ে রাস্তা পার হচ্ছে। দুপাশের গাড়ি লাইন ধরে থামিয়ে আমরা রুদ্ধশ্বাসে সেই দৃশ্য দেখছি। একটা বাচ্চা বোধ করি পিছে পড়ে গেছে। মা ঠিক ফেরত এসে দুই ছানাকে নিরাপদে রাস্তা পার করল।

বছর দশেক আগে একবার ক্যাম্পিং করতে গেলাম কানানাস্কিস কান্ট্রি নামের একটা জায়গায়। ঠিক যখন সন্ধ্যা নেমেছে, আগুনের চারপাশে আমরা সবাই গোল হয়ে বসে আছি। পেছনে জমাট অন্ধকার। আমার ছোটবেলায় শোনা বকুল তলার ভূতের গল্প মনে পড়ল। তখন আমি লেখালেখি করি না। পরবর্তীতে সেই ক্যাম্পিংয়ের অভিজ্ঞতার গল্প লিখলাম আমি। পাঠক বেশ অবাক হলেন আমার সাবলীল বর্ণনায়। আমি সেই ভ্রমণের তোলা কিছু ছবি লেখার সঙ্গে জুড়ে দিলাম।

ভোররাতে ভালুকের গর্জন আর মাঝরাতে তাঁবুর পাশ দিয়ে শেয়ালের দৌড়ে যাওয়ার শব্দ এখনো কানে বাজে। ভ্রমণের অভিজ্ঞতাগুলো লেখালেখিকে ঋদ্ধ করে। ভ্রমণে গেলে আরেকটা ব্যাপার চমৎকার কার। এখনো পাহাড়ের অনেক জায়গায় নেটওয়ার্ক পাওয়া যায় না। একেবারে ফোন–ইন্টারনেট ছাড়া দিন যাপন। হয়তো শিশির পড়ার টুপটাপ শব্দ ভোররাতে শুনি। ঠিক সেই অভিজ্ঞতা নিয়ে আরও অনেক প্রশান্তি নিয়ে ফেরত আসি।

প্রকৃতি আমাদের উদারতা শেখায়। কত অচেনা মানুষের দেখা মেলে এসব ভ্রমণে। প্রতিটি ভ্রমণ শেষে কিছু স্মৃতি যে সঙ্গে করে নিয়ে আসি, তেমন কিন্তু নয়। আমার মনে হয়, আমরা নিজেদের একটি অংশ সেখানে ছেড়ে আসি। আর সে কারণেই ওই সব জায়গা আমাদের বারবার করে টানে।

সাজসজ্জা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন