চলে গেল দুর্গাপূজা। ৮ অক্টোবর গেল বিজয়া দশমী। তবে প্রবাসী হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে এর রেশ এখনো রয়ে গেছে। সেই পূজাকে ঘিরে রান্নার রেসিপি দিয়েছেন ফাল্গুনী দত্ত
default-image

লাবড়া

উপকরণ: মিষ্টি কুমড়া, বেগুন, আলু, মুলা, বরবটি, ফুলকপি, কাঁকরোল, পটোল—বাজারে পাওয়া যায় এমন মৌসুমি সবজি। মসলার জন্য পাঁচফোড়ন, শুকনা মরিচ, গাওয়া ঘি, ছ্যাঁচা আদা, ধনেগুঁড়া হলুদ কাঁচামরিচ।
প্রণালি: সব সবজি ছোট ছোট করে কেটে নিতে হবে। রান্নার পাত্রে ৩/৪ চামচ গাওয়া ঘি দিয়ে গরম হলে তেজপাতা ও শুকনো মরিচ দিয়ে নাড়তে হবে। পরে পাঁচফোড়ন ও ছ্যাঁচা আদা দিয়ে কিছুক্ষণ ভেজে কেটে রাখা সবজি দিয়ে দিতে হবে। এবার সবজির মধ্যে হলুদ দিতে হবে। মাঝে মাঝে নেড়ে দিতে হবে। সবজি থেকে জল বের হলে ঢেকে দিতে হবে। নামানোর আগে কাঁচামরিচ আর ধনেগুঁড়া দিয়ে নামিয়ে নিতে হবে।

default-image

খেজুর গুড়ে নারকেল নাড়ু

উপকরণ: কোরানো নারকেল একটি। ঘন দুধ দুই কাপ পরিমাণ/কনডন্সেড মিল্কও ব্যবহার করা যেতে পারে। এলাচ দুটি। পূজার গন্ধ মাখাতে করপুর ব্যবহার করা যায়। পরিমাণমতো খেজুর গুড়।
প্রণালি: ননস্টিক ফ্রাই প্যানে কোরানো নারকেল দিয়ে মাঝারি আঁচে নাড়তে হবে। নারকেলের বাড়তি পানি শুকিয়ে গেলে একটু একটু করে দুধ দিয়ে নাড়তে নাড়তে হবে। দুধ দিয়ে ভাজার পরে গুড় দিয়ে মাঝারি আঁচে নাড়তে হবে। শেষের দিকে আঁচ একদম কমিয়ে দিতে হবে। নারকেল আঠালো হয়ে গেলে হাতে নিয়ে বল আঁকার হয় কিনা দেখতে হবে। হয়ে গেলে নামিয়ে গরম থাকা অবস্থায়ই নানা আকারে নাড়ু তৈরি করে নিতে হবে।

default-image

ভোগের খিচুড়ি/সবজি খিচুড়ি

উপকরণ: গোবিন্দভোগ বা যেকোনো পোলাওয়ের চাল আড়াই শ গ্রাম। সোনা মুগডাল আড়াই শ গ্রাম। মাঝারি সাইজের আলু অর্ধেক করে কাটা ৫/৬টি। গাজর, ফুলকপি, বাঁধাকপি, মটরশুঁটি পরিমাণ মতো কেটে নিতে হবে। আর মসলার জন্য লাগবে...গাওয়া ঘি, তেজপাতা, শুকনা মরিচ, গোটা জিরে...আদা বাটা কাঁচা মরিচ নুন চিনি।
প্রণালি: চাল মেপে নিয়ে জলে ভিজিয়ে রাখতে হবে ১ ঘন্টার মতো। মুগ ডাল হালকা ভেজে তুলে রাখতে হবে...। রান্না করার পাত্রে ৫/৬ কাপ জল দিয়ে ফুটিয়ে এর মধ্যে মুগ ডাল দিয়ে দিতে হবে। কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করে মটরশুঁটি বাদে কেটে রাখা সবজি দিতে হবে। আবারও কিছুক্ষণ রান্না করে ভিজিয়ে রাখা চাল দিয়ে দিতে হবে। একই সঙ্গে নুন চিনি ও মটরশুঁটি দিয়ে দিতে হবে। কাঁচা মরিচ ও আদা বাটা দিয়ে নেড়ে কিছুক্ষণ ঢেকে রান্না করতে হবে। রান্না হয়ে আসলে কিছুক্ষণ অল্প আঁচে রেখে দিতে হবে। অন্য আরেকটা পাত্রে ফোড়নের জন্য গাওয়া ঘি গরম করে তেজপাতা আর গোটা জিরে ভেজে খিচুড়ির সঙ্গে মিশিয়ে দিতে হবে।

default-image

পাঁচফোড়নে আলুর দম

উপকরণ: আধা কেজি লাল ছোট আলু। পাঁচফোড়ন, শুকনো লঙ্কা, টমেটো কুচি এক কাপ, চিনি।
প্রণালি: আলুগুলো আগে সেদ্ধ করে ছোলা তুলে রাখতে হবে। একটি পাত্রে তেল গরম করে শুকনো মরিচ লাল করে ভেজে নিতে হবে। মরিচ ভাজা হলে পাঁচফোড়ন ভাঁজতে হবে। এর মধ্যে টমেটো কুচি দিয়ে দিতে হবে। টমেটো গলে গেলে সেদ্ধ আলু, লবণ, হলুদ গুঁড়ো দিয়ে ২ কাপ জল দিয়ে দিতে হবে। কিছুক্ষণ রান্না করার পরে অল্প চিনি দিয়ে আঁচ কমিয়ে দিতে হবে। নামানোর আগে কয়েকটা কাঁচা লঙ্কা দিয়ে কিছুক্ষণ ঢেকে রেখে পরিবেশন করা যাবে। চাইলে ধনে পাতাও দেওয়া যেতে পারে।

default-image

ঘি ফোড়নে খাসি বা পাঠার কসা মাংস

উপকরণ: খাসি বা পাঠার মাংস ১ কেজি, ১৫০ গ্রাম টক দই। পেঁয়াজ বাটা ও কুচানো। আদা বাটা, রসুন বাটা, জিরা বাটা, এলাচ, ৪/৫টা শুকনো মরিচ, কাঁচা মরিচ, হলুদ, গুঁড়া দারুচিনি এবং লবণ পরিমাণমতো। ফোড়নের জন্য গোটা জিরা ও গাওয়া ঘি।
প্রণালি: মাংসগুলো ভালো করে ধুয়ে জল ঝরিয়ে রাখতে হবে। পেঁয়াজ বাটা, আদা বাটা, জিরা বাটা, রসুন বাটা এবং টকদই দিয়ে মাংস মাখিয়ে আধঘণ্টা রেখে দিতে হবে। পাত্রে তেল গরম করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ লাল করে ভেজে নিতে হবে। এর মধ্যে দারুচিনি ও এলাচ দিয়ে মেখে রাখা মাংস দিয়ে দিতে হবে। কিছুক্ষণ কসানোর পরে তেল ওপরে উঠে এলে ৩/৪ কাপ জল দিয়ে দিতে হবে। মাংস সিদ্ধ হয়ে মাখা মাখা হয়ে এলে আরেকটি পাত্রে ৩/৪ চামচ ঘি গরম করে গোটা জিরা ভেজে মাংসের মধ্যে মিশিয়ে নিতে হবে। কাঁচা লঙ্কা দিয়ে নামিয়ে নিতে হবে। লুচির সঙ্গে অসম্ভব সুস্বাদু এই মাংস কসা।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0